রাবি শিক্ষককে সর্বহারাদের হুমকি: আপনি নম্রভদ্র মানুষ, কত টাকা দেবেন বলেন?

  • ৩-মার্চ-২০১৯ ০৮:০৪ পূর্বাহ্ণ
Ads

ভোরের পাতা ডেস্ক
সর্বহারা পরিচয় দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন শিক্ষকের কাছে চাঁদা চাওয়া হয়েছে। চাঁদা নিা দিলে তাদের হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে।

হুমকিপ্রাপ্ত শিক্ষকরা হলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও সৈয়দ আমীর আলী হলের প্রাধ্যক্ষ ড. আমিনুল ইসলাম এবং দর্শন বিভাগের অধ্যাপক মোতাছিম বিল্লাহ।

এ ঘটনায় শুক্রবার নগরীর মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই দুই শিক্ষক।

নগরীর মতিহার থানায় ড. আমিনুল ইসলামের জিডি সূত্রে জানা গেছে, সর্বহারা পরিচয় দিয়ে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা ৫২ মিনিটে মোবাইল ফোনে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় সর্বহারা পরিচয়ে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি।

ওই ব্যক্তির ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর-০১৭২৫৬৬৪৯৭২। তবে প্রতিবেদক ওই নম্বরে বেশ কয়েকবার ফোন দিলে নম্বরটি ইনভ্যালিড দেখায়।

এর আগে ২০১৫ সালে একইভাবে ড. আমিনুল ইসলামকে হুমকি দেয়া হয় বলে জানান তিনি। সে ঘটনাও তৎক্ষণাৎ পুলিশকে জানিয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন।

ড. আমিনুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, সর্বহারা পরিচয় দিয়ে ফোন দিয়ে বলে দীর্ঘদিন থেকে আপনি টার্গেটে আছেন। কিডন্যাপ করে মেরে ফেলা হবে আপনাকে।

কিন্তু আপনি নম্রভদ্র মানুষ তাই আর্থিক সমঝোতা করতে চাচ্ছি। কত টাকা দেবেন বলেন? আমি বলেছি কোনো টাকা দিতে পারব না। আপনি যা ইচ্ছা করেন।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি। প্রক্টরকেও জানিয়েছি। যারা এই ঘটনায় জড়িত তাদেরকে দ্রুত খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান তিনি।

অন্যদিকে দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহতাসিম বিল্লাহ বলেন, একই দিন সন্ধ্যা ৭টা ৬ মিনিটে আমাকে ফোন দিয়ে সর্বহারা কমান্ডার মহিউদ্দিন পরিচয় দেয়।

এরপর টার্গেটে আছি জানিয়ে সমঝোতা করবে বলে অর্থ দাবি করে। আমি টাকা দেব না জানায়। এরপর দেখে নেয়া হবে এবং প্রাণে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেয়া হয়।

পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানানো হয়নি। প্রক্টরকে জানাব। নিরাপত্তার বিষয়টি তারা দেখবেন।

এ ব্যাপারে মতিহার থানার ওসি শাহাদাৎ হোসেন জানান, সর্বহারা নামে রাবির দুই শিক্ষকের কাছে চাঁদা দাবি করেছে। চাঁদা না দিলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়েছে বলে ওই শিক্ষকরা জিডি করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

Ads
Ads