মিয়ানমারের মানচিত্রে সেন্টমার্টিন: রাষ্ট্রদূতকে তলব করে কড়া প্রতিবাদ বাংলাদেশের

  • ৬-Oct-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

বাংলাদেশের দ্বীপ সেন্টমার্টিনের কিছু অংশ নিজের ভূমি বলে দাবি করেছে মিয়ানমার। তাদের প্রকাশিত মানচিত্রে এই উদ্ভট দাবি করার পর ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত উ লুইন ও-কে তলব করে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একইসঙ্গে এ ব্যাপারে অবিলম্বে মিয়ানমারকে ব্যাখ্যা দিতে বলেছে ঢাকা।

শনিবার (০৬ অক্টোবর) দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিটের প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. খুরশেদ আলমের দফতরে মিয়ানমার রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত আসামাত্র আমরা কঠোর প্রতিবাদ জানিয়েছি। এ-সংক্রান্ত একটি প্রতিবাদলিপি তাকে দিয়েছি। মিয়ানমারের এ ধরনের ভুয়া দাবি উত্থাপনের দ্রুত ব্যাখ্যা দেওয়ার দাবি জানিয়েছি আমরা।

সম্প্রতি দুটি ওয়েবসাইটে মিয়ানমার তাদের মানচিত্র আপলোড করেছে। তাতে সেন্ট মার্টিনকে তাদের ভূখণ্ডের অংশ হিসেবে দেখানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, মিয়ানমারের ভূখণ্ডের অংশ হিসেবে সেন্ট মার্টিনকে দেখানোর পেছনে তাদের ‘অস্পষ্ট মনোভাব’-এর বিষয়ে ঢাকা চিন্তিত। কারণ, দ্বীপটি ব্রিটিশ আমল থেকে কখনোই তাদের ভূখণ্ডের অংশ ছিল না এবং এখন পর্যন্ত ভূখণ্ডগত মালিকানা নিয়ে তাদের সঙ্গে কোনও ধরনের বিবাদও হয়নি।

তিনি বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমুদ্রসীমাবিষয়ক (মেরিটাইম) ইউনিটের সেক্রেটারি রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) এম খুরশেদ আলম মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে বলেন, ব্রিটিশ ভারত থেকে বার্মা যখন আলাদা হয় সেন্ট মার্টিন তখন অবিভক্ত ভারতের অংশ ছিল।

তিনি বলেন, এরপর ১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তান বিভাজনের সময় সেন্ট মার্টিন স্বাভাবিকভাবে তৎকালীন পাকিস্তানের অংশ থাকে এবং ১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দ্বীপটি নিশ্চিতভাবে আমাদের ভূখণ্ডের অংশ হয়।

সমুদ্রসীমাবিষয়ক (মেরিটাইম) ইউনিটের সেক্রেটারি মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে এ-ও মনে করিয়ে দেন যে, ২০১২ সালে সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের রায় বাংলাদেশের পক্ষে যায়। ‘এবং এ রায় আবারও নিশ্চিত করে যে সেন্ট মার্টিন বাংলাদেশের অভিন্ন অংশ।’

/ই

Ads
Ads