জাতীয় নির্বাচনে অনিয়ম হবে না এমন নিশ্চয়তা দেয়া যায় না: সিইসি

  • ৭-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কোনো অনিয়ম হবে না, এমন নিশ্চয়তা দেয়া যাবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা।

মঙ্গলবার (০৭ আগস্ট) নির্বাচন কমিশনে প্রতিবন্ধীদের ভোটার অধিকার নিয়ে আয়োজিত এক কর্মশালা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি

নির্বাচন কমিশনের প্রতি জাতির আস্থা নেই ড. কামাল হোসেনের এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সিইসি বলেন, কোন জাতি তাকে কি বলেছে আমি জানি না। একটা কথা বললে তো তার একটা পরিসংখ্যান দরকার। জাতি কি তাকে বলেছে নির্বাচন কমিশনের ওপর আমাদের আস্থা নেই? এ সম্পর্কে আমি তো কিছু জানি না। 

বিএনপিসহ স্টকহোল্ডারদের সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন অস্বস্তিতে নেই বলেও জানান তিনি। 

কেএম নুরুল হুদা বলেন, গত পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে যেখানে যত বেশি অনিয়ম হয়েছে আমরা সেখানে তত বেশি অ্যাকশন নিয়েছি। এ ধরনের পাবলিক নির্বাচনে কিছু অনিয়ম হয়। 

জাতীয় নির্বাচনেও এমন অনিয়ম হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি না যে, জাতীয় নির্বাচনে এমন কোনো অসুবিধা হবে। কোনো অনিয়ম হবে না এরকম নিশ্চয়তা দেওয়ার সুযোগ আমাদের নেই। তবে যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করা দরকার সেভাবে আমরা নিয়ন্ত্রণ করবো।  নির্বাচনের পরিবেশের সুব্যবস্থা আছে। আমরা কোনো অসুবিধা দেখি না।’

তিনি বলেন, সংসদ নির্বাচন ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির প্রথমে অনুষ্ঠিত হবে। আমরা অক্টোবরের শেষে তফসিল ঘোষণা করবো। সংবিধান অনুযায়ী ২২ জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রযেছে।

শিক্ষার্থী আন্দোলন আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। বলেন, সম্প্রতি যে শিক্ষার্থী আন্দোলন হয়েছে তার সঙ্গে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কোনো সম্পর্ক নেই। এই আন্দোলন কখনোই নির্বাচনকে প্রভাবিত করবে না। আইন অনুযায়ী অক্টোবরেই তফসিল ঘোষণা হবে জানিয়ে সিইসি বলেন, ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে জানুয়ারির শুরু – যে কোনো সময়, যে কোনো দিন নির্বাচন হবে।

আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা, ভোটকেন্দ্র, ডিলিমিটেশনসহ অনেক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন সিইসি। এখন শুধু তফসিল ঘোষণা বাকি।

আয়োজিত ওয়ার্কশপে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, পৃথিবীতে প্রত্যেকটি মানুষই প্রতিবন্ধী। সব মানুষের ভেতরেই কোনো না কোনো প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। যেমন, কেউ বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, কেউ আবার লালসার প্রতিবন্ধী।

তাই মূলধারায় সাধারণ মানুষের সাথে প্রতিবন্ধীদের যেন বৈষম্য না করা হয় সেদিকে সংশ্লিষ্টদের সজাগ থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

প্রতিবন্ধীরা ভোট দিলে তাদের যেন মূলধারার অন্যান্যদের থেকে আলাদা করা না হয় সে বিষয়েও তিনি নির্দেশনা দেন কর্মশালায়।

অন্যান্য সাধারণ মানুষের মতো প্রতিবন্ধীরাও যেন জাতীয় নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারে, সব প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে উঠে জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ যে কোনো নির্বাচনে তারা যেন নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে, সে রকম সুব্যবস্থা করে রাখতে রিটার্নিং অফিসারদের নানারকম নির্দেশনা দেন সিইসি।

উল্লেখ্য, এ আয়োজনে যৌথভাবে অংশ নিচ্ছে আন্তর্জাতিক সংস্থা আইএফইএস। প্রতিবন্ধীরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে গেলে কী কী সমস্যার সম্মুখীন হন, যারা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী তাদের জন্য আলাদা ব্যালট পেপার ছাপানো যায় কি না, এসব বিষয়ে ২০/২৫ জন প্রতিবন্ধীকে নিয়ে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে।

/ই

Ads
Ads