দেড়লাখ টন কয়লা গায়েব :১৯ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

  • ২৫-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

::ভোরের পাতা ডেস্ক::

দিনাজপুরে বড় পুকুরিয়া খনি থেকে প্রায় দেড় লাখ টন কয়লা গায়েবের ঘটনায় কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদসহ ১৯ কর্মকর্তার নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে খনির ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আনিছুর রহমান বাদী হয়ে দুর্নীতি দমন আইনের ৫ (২) ও ৪০৯ ধারায় পার্বতীপুর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

কয়লা চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে যেসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে তাঁরা হলেন -সাময়িক বরখাস্ত মহাব্যবস্থাপক (মাইন অপারেশন) আবু তাহের মো. নুরুজ্জামান চৌধুরী, সাময়িক বরখাস্ত উপ-মহাব্যবস্থাপক (স্টোর) খালেদুল ইসলাম, সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (বর্তমানে ওএসডি) প্রকৌশলী মো. হাবিব উদ্দিন আহমদ, সাবেক মহাব্যবস্থাপক ও কোম্পানি সচিব আবুল কাশেম প্রধানিয়া, ব্যবস্থাপক (এক্সপ্লোরেশন) মোশারফ হোসেন; ব্যবস্থাপক (জেনারেল সার্ভিসেস) মাসুদুর রহমান হাওলাদার, ব্যবস্থাপক (প্রডাকশন ম্যানেজমেন্ট) অশোক কুমার হালদার, ব্যবস্থাপক (মেইনটেনেন্স অ্যান্ড অপারেশন) আরিফুর রহমান, ব্যবস্থাপক(ডিজাইন, কন্সট্রাকশন অ্যান্ড মেইনটেনেন্স) জাহিদুল ইসলাম, উপ-ব্যবস্থাপক(সেইফটি ম্যানেজমেন্ট) একরামুল হক, উপ-ব্যবস্থাপক(কোল হ্যান্ডলিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট) খলিলুর রহমান, উপ-ব্যবস্থাপক (মেইনটেনেন্স অ্যান্ড অপারেশন) মোর্শেদুজ্জামান, উপ-ব্যবস্থাপক (প্রডাকশন ম্যানেজমেন্ট) হাবিবুর রহমান, উপ-ব্যবস্থাপক (মাইন ডেভেলপমেন্ট) জাহিদুর রহমান, সহকারী ব্যবস্থাপক (ভেনটিলেশন ম্যানেজমেন্ট) সত্যেন্দ্র নাথ বর্মন, ব্যবস্থাপক (নিরাপত্তা) সৈয়দ ইমাম হাসান, উপ-মহাব্যবস্থাপক (মাইন প্লানিং অ্যান্ড অপারেশন) জোবায়ের আলী, সাবেক মহাব্যবস্থাপক (অর্থ ও হিসাব) আব্দুল মান্নান পাটওয়ারী এবং মহাব্যবস্থাপক (অর্থ ও হিসাব) গোপাল চন্দ্র সাহা।

এছাড়া এমডি হাবিব উদ্দিন আহমেদসহ চার শীর্ষ কর্মকর্তার বিদেশ গমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত বাকি তিন কর্মকর্তা হলেন পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানির (বিসিএমসিএল) জিএম আবুল কাশেম প্রধানীয়া, জিএম আবু তাহের মো. নুরুজ্জামান ও ডিজিএম একেএম খালেদুল ইসলাম।

গতকাল মঙ্গলবার এই চারজনের বিদেশ গমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত এক চিঠি দুদক থেকে পুলিশের বিশেষ শাখা ও ইমিগ্রেশন বিভাগে পাঠানো হয়।

Ads
Ads