নারী কেলেঙ্কারিতে সমালোচিত বাংলাদেশের যত ক্রিকেটার

  • ২৭-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

দাম্ভিকতা যে খুব একটা ভালো জিনিস নয় সেটা বোধহয় আমাদের জাতীয় ক্রিকেট দলের কয়েকজন খেলোয়াড় জানেনই না। তারকাখ্যাতি তাঁদেরকে এমন ভাবে গ্রাস করেছে যে, তাঁরা রীতিমতো উড়ছেন। বাংলাদেশ দলের কিছু খেলোয়াড়দের মাঠের খেলা যত ভালো, ঠিক ততই খারাপ মাঠের বাহিরে ব্যাক্তিগত জীবনের অবস্থা।

সম্প্রতি এই তালিকায় যোগ হয়েছে আরেক ক্রিকেটারের নাম। জাতীয় দলের উঠতি ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বিরুদ্ধে যৌতুক নিরোধ আইনে তাঁর স্ত্রী সামিয়া শারমীন সামিনা মামলা দায়ের করেন। মামলায় সৈকতের বিরুদ্ধে হুমকি, যৌতুক ও মারধোরের অভিযোগ আনা হয়।

এর আগে ধর্ষণ আর নারী নির্যাতনের মামলায় জেল খেটেছেন রুবেল হোসেন। আরাফাত সানি ঘরে স্ত্রী রেখে বাইরেও আরেক স্ত্রী নিয়ে সমস্যায় আছেন। জেল খেটেছেন। শাহাদাত হোসেন রাজীব ও তার স্ত্রীও জেল খেটেছেন। সেটি শিশু নির্যাতনের মামলায়। সাব্বির রহমান, আল-আমিন হোসেনরা বড় অংকের জরিমানা গুনেছেন অনৈতিক সম্পর্কের দায়ে। এতো গেল সবার জানা ঘটনাগুলো। কিন্তু কিছু অজানা নিশ্চয়ই আরোও কিছু আছে।

এরপর ক্রিকেটার শহীদের স্ত্রী বিসিবির কাছে অভিযোগ করেছিলেন শহীদ নাকি পরনারীতে আসক্ত। এ কারণে তার ঘরে শান্তি নেই। তিনি নিজেও মানসিক ভাবে ঠিক নেই। কিছু বলতে গেলে অনেক কথা শুনতে হয় এবং মারও খেতে হয়।

এর আগে ২০১৫ সালে সেপ্টেম্বরে গৃহপরিচারিকা হ্যাপীকে শারীরিকভাবে নির্যাতন মামলায় ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব। সে মামলায় সস্ত্রীক জেলও খেটেছেন তিনি। পরে হ্যাপীর সঙ্গে সমঝোতা করে সে নিষেধাজ্ঞা থেকে উদ্ধার পান তিনি।

শুধু শাহাদাত নয়, বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও ২০১৪ সালের জুলাইয়ে ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল আচরণ বিধি ভঙ্গ করার। কোচ হাথুরুসিংহের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের কারণে নিষেধাজ্ঞায় পড়েন তিনি। এর আগেও টিভি ক্যামেরাও উস্কানিমূলক অঙ্গভঙ্গির জন্য তিন ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছিলেন সাকিব।

গত বিপিএলের মাঝ পথে নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে বড় অঙ্কের জরিমানা দেন সাব্বির রহমান ও আল-আমিন হোসেন। এ দুই ক্রিকেটার ছাড়া একই কেলেঙ্কারির অভিযোগ ছিল আরও রংপুর রাইডার্সের জুপিটার ঘোষ নামের তুলনামূলক অখ্যাত খেলোয়াড়ের।

আরাফাত সানির ঘটনাও অনেকটা এমন। তিনি চেয়েছিলেন দুই স্ত্রী নিয়ে সংসার করতে কিন্তু সেটা তার স্ত্রী নাসরিন মেনে না নিয়ে মামলা করলে তিন মাস জেলে কাটান সানি। জামিনে বের হলেও এখনো কোনো কিছুই সুরাহা হয়নি।

এইতো কিছুদিন আগে হুমাইরা সুভা নামে এক উঠতি মডেল ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও ধর্ষণের অভিযোগ করে। যদিও ওই মডেল আইনের দ্বারস্থ হননি।  

তবে ক্রিকেট বোর্ডেরও বা এক্ষেত্রে কী করার আছে। বোর্ড শাস্তি দিতে পারে, সামজিক মূল্যবোধের শিক্ষা নয়। সামাজিক মুল্যবোধের শিক্ষা তো মানুষ পরিবার থেকেই পায়!

Ads
Ads