চলে গেলেন গাইবান্ধা-৩ আসনের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ফজলে রাব্বী

  • ২০-Dec-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি টি আই এম ফজলে রাব্বি চৌধুরী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহির রাজিউন)।

গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের ছয়বারের এমপি সাবেক মন্ত্রী ফজলে রাব্বি দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন। তার বয়স হয়েছিলো ৮৪ বছর।

বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে তিনটার দিকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণ ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। তার ৩ ছেলে ও ২ কন্যা সন্তান রয়েছে। তিনি পলাশবাড়ী উপজেলার তালুকজামিরা গ্রামের প্রয়াত স্কুলশিক্ষক আহসান উদ্দিন চৌধুরীর ছেলে।

সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন জানান, ফজলে রাব্বী দীর্ঘদিন ধরে হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় ভোটের মাঠে আসতে পারছিলেন না তিনি। তবে বৃহস্পতিবার তার ভোটের মাঠে আসার কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে ঢাকার নিজ বাসায় বুকে ব্যাথা অনুভব করেন তিনি। পরে দ্রুত তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার জোহরের পর বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ি মসজিদে ধানের শীষের এই প্রার্থীর জানাজা হবে। শুক্রবার সকালে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গাইবান্ধায় তার নির্বাচনী এলাকা পলাশবাড়ীতে। সেখানে আরেক দফা জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

ফজলে রাব্বি চৌধুরীর মৃত্যুর খবরে সকালে ইউনাইটেড হাসপাতালে ছুটে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন।

জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, প্রেসিডিয়াম সদস্য এএসএম আলম, জাফরুল্লাহ খান চৌধুরী, শফিউদ্দিন ‍ভুঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব এএসএম শামীমসহ দলের জ্যেষ্ঠ নেতারাও এ সময় হাসপাতালে ছিলেন।

১৯৩৪ সালে ১ অক্টোবর পলাশবাড়ী উপজেলার তালুক জামিরা গ্রামে জন্ম ফজলে রাব্বী চৌধুরীর। তিনি গাইবান্ধা-৩ আসনে জাতীয় পার্টির হয়ে ১৯৮৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত (১৯৯৬ বিতর্কিত নির্বাচনসহ) ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানে ফজলে রাব্বী জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের ধানের শীষ প্রতীকে প্রার্থী হন তিনি।

১৯৮৪ সালে এইচ.এম এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন ফজলে রাব্বী। সাবেক রাষ্ট্রপাতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক উপদেষ্টা ছিলেন তিনি। ফজলে ভূমি মন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী ও সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বও পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহে প্রফেসর হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি।

/ই

Ads
Ads