‘কখনো বিএনপি করেনি, তবুও সভাপতি-সম্পাদক করা হয়েছে’

  • ৩-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

আমরা কখনো বিএনপি করিনি, তবুও আমাদের নিয়ে অপপ্রচার হচ্ছে। কিছু স্বার্থান্বেষীমহল হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য নড়াইলের মাউলি ইউনিয়ন বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের কমিটিতে আমাদের তিনজনের নাম দিয়েছে।

রোববার দুপুরে নড়াইলের নড়াগাতি থানার মহাজন বাজার এলাকায় সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ভুক্তভোগী কাঠাদুরা গ্রামের তুষার গাজী।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমরা কখনো বিএনপির মিছিল, মিটিংসহ কোনো কর্মসূচিতে ছিলাম না। এমনকি আমাদের পরিবারের অন্য সদস্যরাও বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়। তবুও বিএনপির কমিটিতে নাম দেখে হতবাক হয়েছি।

তিনি আরও বলেন, বিএনপির কমিটি থেকে আমাদের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব। আমাদের নাম প্রত্যাহারের জন্য ইতিমধ্যে মাউলি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাদের বলা হয়েছে। তবে কোনো সুফল মেলেনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অপর দুই ভুক্তভোগী নড়াগাতি থানার তপসীডাঙ্গা গ্রামের আশরাফ সরদার ও মহাজন এলাকার গুরুপদ সাহাসহ নড়াগাতি থানা যুবলীগের আহ্বায়ক হাদিউজ্জমান হাদী, মাউলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাব্বির হোসেন মোল্যা, মাউলি ইউনিয়ন সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার শাহিনা আক্তার ঝর্ণা প্রমুখ।

নড়াইল জেলা পরিষদ সদস্য ও নড়াগাতি থানা যুবলীগের আহ্বায়ক হাদিউজ্জমান হাদী বলেন, তুষার, আশরাফ ও গুরুপদ বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়। স্বার্থান্বেষীমহল এ ধরনের অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। এরা আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থক।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগীরা জানান, আশরাফ সরদারকে নড়াইলের মাউলি ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি, গুরুপদ সাহাকে ৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও তুষার গাজীকে মাউলি ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য হিসেবে প্রচার করা হচ্ছে।

আশরাফ সরদার বলেন, বিএনপির কমিটি থেকে আমাদের নাম বাদ দেয়ার জন্য ইতিমধ্যে মাউলি ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নুরুল হক মোল্যাকে জানিয়েছি।

এ ব্যাপারে মাউলি ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক পারভেজ হোসেন ইলিয়াস বলেন, পারিবারিক ও অসুস্থতার কারণে প্রায় ৩ বছর ধরে রাজনীতিতে নিজেই নিষ্ক্রিয় অবস্থায় আছি। আমার জানামতে- তুষার গাজীও যুবদলের সঙ্গে নেই।

Ads
Ads