বিএনপি-জামায়াত সম্পর্ক যে পথে

  • ১-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

জামায়াতের সাথে বিএনপির সম্পর্ক বেশ পুরনো। বিএনপি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই জামায়াত বিএনপির সাথে যুক্ত আছে। মূলত শুরু থেকেই বিএনপি নিজেদের ক্ষমতা সুসংহত করার জন্যই জামায়াতকে ইন্ধন দিয়ে আসছে।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে দেশের বিরোধিতা করায় স্বাধীন দেশে জামায়াতকে রাজনীতি থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। ১৯৭৭ সালে মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে জামায়াতের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিলে জামায়াত আবার রাজনীতিতে সক্রিয় হয়। ১৯৭৯ সালের দিকে তৎকালীন জামায়াতে ইসলামীর অত্যন্ত প্রভাবশালী নেতা আব্বাস আলী খানের নেতৃত্বে গঠন করা হয় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী দল।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিএনপি-জামায়াত জোটের বয়স প্রায় ৩৮ বছর। বিএনপি-জামায়াত সরকার জোটবদ্ধ হয়ে একসাথে দু’বার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। এর মধ্যে ক্ষমতা হাতে নিয়েছে একবার। তবে বহু পুরনো এ সম্পর্কে এবার চিড় ধরেছে বলে মনে করছেন অনেকেই। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জামায়াতের আন্দোলন করার কথা থাকলেও, রাজপথে সেই ভাবে সক্রিয় দেখা যায় নি জামায়াতকে। খালেদা জিয়ার সাজা বিএনপির দলীয় ইস্যু দাবি করে এই আন্দোলন থেকে নিজেদের দূরে রেখেছে জামায়াত। প্রকাশ্যে একসাথে কোথাও সমাবেশ বা মিছিল করতে দেখা যায় নি তাদের।

নির্বাচনকে সামনে রেখে গোপনে দল গোছাচ্ছে সব রাজনৈতিক দল। নির্বাচনের আগে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করতে বেশ আগে থেকেই বিএনপির ওপর আসছে নানা দেশি-বিদেশি চাপ। সাম্প্রতিক সময়ে জামায়াত-বিএনপি সম্পর্ক নিয়ে দলের মধ্যেই রয়েছে তর্ক-বিতর্ক।

দলের সিনিয়র নেতাদের অনেকেই দাবি করছেন, বিএনপি-জামায়াত সম্পর্ক এখন ভাঙ্গনের পর্যায়ে। যদিও এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোন সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারেনি বিএনপি। সেই ভিত্তিতেই এখন পর্যন্ত ১৯ দলের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করার সুযোগ পাচ্ছে জামায়াত।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামায়াতকে সাথে নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে বিএনপির জনসমর্থন পাওয়া অনেকটাই কষ্টকর হবে। এ নিয়ে বিএনপিতে অনেক মতভেদ রয়েছে। জামায়াতের সাথে নির্বাচনের বিষয়ে বিএনপির এক পক্ষ দাবি করছে জামায়াতকে বিএনপির সাথে রেখেই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার।

অপর পক্ষের দাবি, জামায়াতকে নিয়ে নির্বাচন করলে জনগণের সমর্থন পাওয়া যাবে না। জামায়াতকে নিয়ে বিএনপি আছে এখন উভয়দ্বন্দ্বে। এদিকে জোট ভাঙ্গার গুঞ্জনকে যেন আমলেই নিচ্ছে না জামায়াতের নেতারা। বিএনপির সাথে জোট ভাঙ্গার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে জামায়াতের সিনিয়র এক নেতা বলেন, ‘বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের জোট ভাঙ্গার কোন সম্ভাবনাই নেই।

এবারের তিন সিটি নির্বাচনে মেয়র পদ নিয়ে দল দু’টির মধ্যে সম্পর্কের টানা পোড়েন দেখা গেছে। সিলেট সিটি নির্বাচনে জামায়াতের মেয়র প্রার্থী এহসানুল মাহবুব জুবায়েরের প্রার্থীতা নিয়ে দুই দলের মধ্যে সম্পর্কে মনোমালিন্য দেখা যায়। তিন সিটি নির্বাচনে জামায়াত অন্তত একটি আসনে জয়লাভ করতে চেয়েছিল। সে লক্ষ্যেই সিলেট নির্বাচনে জয় লাভ করার জন্যে বিএনপি প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে প্রার্থীতা সরিয়ে দেওয়ার জন্যও বিএনপিকে নানা ভাবে চাপ দিয়েছে জামায়াত। সিলেট সিটি নির্বাচনে আরিফুল হক চৌধুরির যথেষ্ট জনপ্রিয়তা থাকায় বিএনপি জামায়াতের এই ধরনের আবদার আমলে নেয় নি।

নব্বই এর পরবর্তী সময়ে জামায়াত অন্য দলগুলোর সাথে মিলিত হয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন করলেও, ২০০১ সালের নির্বাচনে আবার যুক্ত হয় বিএনপির সাথে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতাসীন হয় ২০০১ সালের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসার পর। পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকাকালীন সময় সারা দেশে সন্ত্রাস, দুর্নীতিসহ নানা ধরনের নৈরাজ্য জনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরও সেই জোট ভাঙ্গে নি। সে সময় বার বার দেশে হরতাল, অবরোধ অগ্নিকান্ডসহ নানা ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে সক্রিয় ছিল জামায়াত-বিএনপি জোট। ২০১৩ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হলে জামায়াত-বিএনপি সহিংস হয়ে ওঠে। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা কাদের মোল্লা ও দেলওয়ার হোসেন সাঈদীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হলে জামায়াত সারা দেশে জ্বালাও-পোড়াও কর্মসূচীতে নামে। সর্বশেষ ২০১৩ সালের ১ আগস্ট বাংলাদেশে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে জামায়াতকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

বিএনপি-জামায়াত জোট যতবারই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে, ততবারই দেশে সৃষ্টি হয়েছে ত্রাসের রাজনীতি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করার পর ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহন করেনি বিএনপি। তবে সহিংসতা থেমে থাকেনি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের বিরোধিতা করে সারাদেশে বিএনপি-জামায়াত জোটের সন্ত্রাসের রাজত্ব আবার শুরু হয়। সর্বশেষ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের ভেতর ঢুকে জামায়াত-বিএনপি সারাদেশে ত্রাস সৃষ্টি করতে চেয়েছিল, যদিও তাদের এই পরিকল্পনা শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি। সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

/ই

Ads
Ads