রাজনৈতিক সংকটে শ্রীলংকা: প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত, নতুন প্রধানমন্ত্রী রাজাপাকসে

  • ২৭-Oct-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: সীমানা পেরিয়ে ডেস্ক ::

শ্রীলংকার রাজনীতি অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে। গতকাল শুক্রবার আকস্মিকভাবে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহকে বরখাস্ত করে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ্র রাজাপাকসের নাম ঘোষণা করেন দেশটির বর্তমান প্রসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা। গতকালই রাজপক্ষে শপথ বাক্য পাঠ করেন। খবর আলজাজিরা, বিবিসির।

এদিকে বরখাস্ত হওয়া প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহকে দাবি করেছেন তিনিই বৈধ প্রধানমন্ত্রী। প্রেসিডেন্টের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তিনি আদালতে যাবেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, আমি আপনাদেরকে শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বলছি। আমি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বহাল আছে এবং আমি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ করে যাব। হাউসে এখনও আমার প্রতি সকলের আস্থা রয়েছে। আমিই প্রধানমন্ত্রী এবং হাউসে আমারই সংখ্যাগরিষ্ঠতা বেশি। সংবিধান অনুসারে আমিই প্রধানমন্ত্রী। আমাকে সরিয়ে দেয়া সম্পূর্ণ অবৈধ।

অর্থমন্ত্রী মঙ্গলা সামারভাইরা বিবিসিকে বলেছেন, এটি একটি গণতন্ত্রবিরোধী অভ্যুত্থান। রাষ্ট্রপতি সাংবিধানিকভাবে রনিলকে পদচ্যুত করতে পারেন না। তাই এখনও রনিলই প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে প্রেসিডেন্টকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগে শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তা নালাকা ডি সিলভাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শ্রীলংকার বর্তমান প্রেসিডেন্টের সঙ্গে রনিল বিক্রমসিংহের সম্পর্ক ভাল নয়। গত কয়েক মাস ধরে তাদের দুইজনের দ্বন্দ্বে রাজনীতিতে অস্থিরতা তৈরি হয়। দ্বন্দ্বের জের ধরে বর্তমান জোট সরকার থেকে সমর্থন তুলে নেয় প্রেসিডেন্ট সিরিসেনার রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড পিপলস ফ্রিডম অ্যালায়েন্স। এরপরই পালাবদলের ঘটনা ঘটে।

২০১৫ সালের নির্বাচনে রাজাপক্ষকে পরাজিত করেছিলেন সিরিসেনা। বিরোধীরা একে ‘অভ্যুত্থান’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

সম্প্রতি ভারতকে একটি বন্দরের বরাদ্দ দেওয়া নিয়ে ক্যাবিনেটে বিবাদে জড়ান প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী। এমনকি সিরিসেনা ক্যাবিনেটে অভিযোগ করেছিলেন ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে। যদিও পরে তিনি সেটি অস্বীকার করেন।

/ই

 

 

 

 

Ads
Ads