রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশের ওপর দায় চাপালেন সু চি

  • ২২-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি নিজে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে তেমন কথা বলেন না। রোহিঙ্গা শব্দটিও তিনি উচ্চারণ করেননা।

তবে সিঙ্গাপুরে এক সফরে গিয়ে এক বক্তৃতায় মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি মঙ্গলবার (২১ আগস্ট) রাখাইন অঞ্চলে তার সরকারের কর্মকাণ্ডের সমর্থনে অনেক কথা বলেছেন।

দেশটির স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি বলেন, মিয়ানমার শরণার্থীদের নিতে প্রস্তুত, তাদের পুনর্বাসনের জন্য জায়গাও ঠিক হয়ে গেছে, কিন্তু তাদের পাঠানোর দায়িত্ব মূলত বাংলাদেশের। তাদেরকে ফেরত পাঠাতে হবে বাংলাদেশকে, আমরা শুধু তাদের সীমান্তে স্বাগত জানাবো। কত দ্রুত এই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু হবে তা নির্ভর করছে বাংলাদেশের ওপর।

তবে এ প্রক্রিয়ার জন্য নির্দিষ্ট কোনো সময়সীমা বেঁধে দেওয়া কঠিন বলেও উল্লেখ করেন সু চি।

কয়েক প্রজন্ম ধরে রাখাইনে বসবাস করে আসলেও রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব স্বীকার করে না মিয়ানমার। গত আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গণহত্যা, নির্যাতন ও দমনপীড়ন চালায় দেশটির সেনাবাহিনী। এতে জীবন বাঁচাতে ৭ লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। বিষয়টিকে ‘জাতিগত নিধন’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে জাতিসংঘ।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্বসম্প্রদায় সরব হয়ে উঠলে ২০১৭ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো মুখ খোলেন সু চি। সে সময় জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা গণহত্যার বিষয়ে বিশ্ব সম্প্রদায়ের উদ্বেগে মিয়ানমার বিচলিত নয়। তিনি ঔদ্ধত্যের সুরে বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পর্যবেক্ষণ মিয়ানমার ভয় পায় না।’

অনেক রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে স্বীকার করে রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বেআইনি সহিংসতার নিন্দা জানিয়ে সু চি বলেন, ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে হওয়া সমঝোতার ভিত্তিতে যাচাই-বাছাই করে শরণার্থীদের ফিরিয়ে নিতে সু চি সরকার প্রস্তুত।

এরপর রোহিঙ্গাদের ফেরাতে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। গঠন করা হয় ‘যৌথ ওয়ার্কিং কমিশন’। শুধু তাই নয় অং সান সু চি ও দেশটির সেনাপ্রধান মিন অং লাইংসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত করে রায়ও দেন একটি আন্তর্জাতিক গণ-আদালত।

/ই

Ads
Ads