শূন্য হাতে, শূন্য টেবিলে আলোচনা হয় না : রিজভী

  • ১১-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সুনির্দিষ্ট দাবি আছে। সেই দাবিগুলো বিবেচনায় নিতে হবে। শূন্য হাতে, শূন্য টেবিলে আলোচনা হয় না। আমরা যে নীতি ও দাবির ওপর আন্দোলন করেছি, নিশ্চয়ই সেটা নিয়ে সেখানে আলোচিত হতে হবে। তারা যদি এটা না চায় তাহলে বুঝতে হবে তাদের মন স্বচ্ছ না। তাদের মন সাদা নয়, অফ হেয়াইট (ধূসর)।

শনিবার (১১ আগস্ট) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনিপর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

শর্তছাড়া রাজি হলে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা হতে পারে ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন রিজভী। শুক্রবার (১০ আগস্ট) আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন- ‘নির্বাচন প্রসঙ্গে পূর্বশর্ত দিয়ে বিএনপির সঙ্গে কোনও আলোচনা নয়, শর্ত ছাড়া যেকোনও বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।’

রিজভী বলেন, ‘কোনও এজেন্ডা ছাড়া আলোচনা নয়। একটা গ্রহণযোগ্য, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত হওয়ার জন্য যে আলোচনা হওয়া দরকার সে আলোচনার জন্য তো আমাদের দল সব সময় প্রস্তুত। আর এ ধরনের সংলাপের ডাক তো বিএনপি সব সময়ই দিয়ে যাচ্ছে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় কারাগারে বন্দি করে রাখবেন আর নির্বাচনের কথা বলবেন সেটা কিভাবে হয়? নির্বাচনের আগে বিএনপি চেয়ারপারসনকে মুক্তি দিতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা এবং নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। কারণ এই কমিশন নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে।’

রিজভী বলেন, ‘বিএনপি সব সময় অংশগ্রহণমূলক ও সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বলে আসছে। শুধু অংশগ্রহণমূলক হলেই হবে না, নির্বাচন সুষ্ঠু হতে হবে। যে নির্বাচনে ভোটাররা নির্ভয়ে ভোট দিতে পারবেন। এসব বিষয়ে সমাধান না হলে সেই নির্বাচন জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। বিএনপিও সেই নির্বাচনে অংশ নেবে না।’

সরকারের সমালোচনা করে রিজভী আরও বলেন, ‘লোক দেখানো সড়ক পরিবহন খসড়া আইন একটা শূন্য কুম্ভ, অর্থাৎ একটা শূন্য কলসি, প্রতিমুহূর্তে তার আলমত দেখা যাচ্ছে। সড়কের দুর্ঘটনা তো কমেনি। বরং সড়কে প্রতিনিয়ত লাশের জমায়েত দীর্ঘতর হচ্ছে। সড়কে হ-য-ব-র-ল অবস্থা। পরিবহন খাতে আরও বিশৃঙ্খলা বেড়েছে। যার প্রমাণ মন্ত্রীর গাড়িও রেহাই পাইনি। শুক্রবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর গাড়িতে ধাক্কা দিয়েছে একটি বেপরোয়া বাস। যা চালাচ্ছিল একজন হেলপার। এর পুনরাবৃত্তি হচ্ছে কেন বিবেক জাগেনি এই পরিবহন সেক্টরে? কারণ সরকার তো তাদের পক্ষে, দানবদের পক্ষে, দুর্বৃত্তদের পক্ষে এবং যারা আন্দোলন করছে তাদের দমন করছে।’

দৃকের প্রতিষ্ঠাতা শহিদুল আলমকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় যে বক্তব্য দিয়েছেন তা পুলিশী নির্যাতনকে আরও উৎসাহিত করবে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির এই নেতা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

/ই

Ads
Ads