মোটরসাইকেল চোরাকারবারীকে পুলিশে দিলেন ছাত্রলীগ নেতা মারুফ

  • ২৮-জানুয়ারী-২০২০ ০৮:২২ অপরাহ্ন
Ads

নিজস্ব প্রতিবেদক

সারাদেশে ছাত্রলীগ নিয়ে যখন-তখনই নেতিবাচক খবর শিরোনাম হয়ে থাকলেও এবার কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসাইন ইতিবাচক কাজের মাধ্যমে গণমাধ্যমে জায়গা করে নিয়েছেন। কক্সবাজার শহরের তারাবনিয়ারছড়া ও রুমালিয়ারছড়া এলাকা থেকে গত এক মাসে ৬ টির অধিক মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে। একের পর এক এই ঘটনা ঘটতে থাকায় চোর ধরতে প্রশাসনের পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে মাঠে নামে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। অবশেষে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসাইনের নেতৃত্বে মোটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের প্রধান মো: রুবেলকে (২৬) আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরে কক্সবাজার সদর থানার পুলিশ আটক মো: রুবেলকে সাথে নিয়ে অফিযানে বের হয়ে আব্দুল্লাহ্ নামে আরেক মোটরসাইকেল চোরকে আটক করে।

সোমবার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল চুরির প্রমাণ সহ সাথে নিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় চোর সিন্ডিকেটের প্রধান মো: রুবেলকে। রুবেল হলেন উখিয়ার কোটবাজার এলাকার মো: হারুনের ছেলে। তিনি শহরের পানবাজার সড়ক সংলগ্ন নুরপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকেন।
পরে কক্সবাজার সদর থানার এসআই প্রদীপ আটক মো: রুবেলকে সাথে নিয়ে অভিযান চালিয়ে মোটরসাইকেল চুর সিন্ডিকেটের আরেক সদস্য মো: আব্দুল্লাহকে (২৮) আটক করে। আব্দুল্লাহ হলেন টেকনাফের জালিয়া পালং এলাকার বাসিন্দা।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, গত ১৮ নভেম্বর শহরের রুমালিয়ারছড়া এলাকার নুর গার্ডেন ভবনের বাসিন্দা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের (কক্স মেট্রো ল-১১-৩১১৮) মোটর সাইকেল চুরি হয়। এর আগে চুরি হয় আরো একটি মোটরসাইকেল। যার নাম্বার (কক্স মেট্রো ল-১১-৩১১০)। গত ২৫ জানুয়ারী উত্তর তারাবনিয়ার ছড়ার জিয়াউদ্দিনের মোটরসাইকেল চুরি হয়। গত ২১ ডিসেম্বর উত্তর তারাবনিয়ারছড়ার এডভোকেট আয়াছুর রহমানের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল চুরি হয়। একই সময় ওই এলাকা থেকেই শামশুল আলমের মোটরসাইকেলও চুরি হয়।
একের পর এক এলাকায় মোটরসাইকেল চুরি হতে থাকায় প্রশাসনের পাশাপাশি চুর ধরতে মাঠে নামে জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসাইনের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

এদিকে গতকাল মারুল ইবনে হোসাইনের নেতৃত্বে সিসিটিভি ফুটেজের চিত্র অনুযায়ী ওই এলাকায় সন্দেহজনকভাবে ঘুরাঘুরি করতে থাকা মো: রুবেলকে আটক করা হয়। পরে মো: রুবেলকে জিজ্ঞাসা করা হলে মোটরসাইকেল চুরির প্রমাণ মিলে তার বক্তব্যের মাঝে। ওই সময় মো: রুবেল প্রাথমিকভাবে জানায় চোরাই মোটরসাইকেল কোথায় রেখেছে এবং কারা তার সাথে জড়িত। ওইসময় তিনি মোটরসাইকেল ফেরত দেওয়ার কথাও জানায়। তিনি চিহ্নিত মোটরসাইকেল চোর হওয়ায় তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয় মারুফ ইবনে হোসাইন। মো: রুবেলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ তার সহযোগি আব্দুল্লাহকে আটক করে।

এ ব্যপারে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসাইন বলেন, অন্যায় এবং অপরাধমূলক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করাই হচ্ছে ছাত্রলীগের কাজ। তারই ধারাবাহিকতায় দেশের প্রচলিত আইনকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সহযোগিতার জন্য এই মোটরসাইকেল চুর সিন্ডিকেটকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এই ধারা অব্যাহত থাকবে।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর থানার এসআই প্রদীপ জানান, মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে মো: রুবেল নামে একজনকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। প্রাথমিকভাবে ওই যুবক মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত রয়েছে বলে প্রমান পাওয়া গেছে। তারই দেওয়া তথ্যে‘র ভিত্তিতে আব্দুল্লাহ নামে আরেকজনকে আটক করা হয়েছে। সেও মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত রয়েছে। পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
উল্লেখ্য, মো: রুবেল মোটরসাইকেল চুরি‘র অভিযোগে দীর্ঘদিন কারাভোগ শেষে কিছুদিন আগে ছাড়া পায়।

এদিকে, ছাত্রলীগের কক্সবাজার জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের এমন কাজে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় আওয়ামী ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের একাধিক নেতাও প্রশংসা করছেন মারুফ ইবনে হোসাইনের। 

Ads
Ads