ধুলাদূষণ নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমাণ আদালত: মেয়র খোকন

  • ১-Dec-২০১৯ ০২:৩৮ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

রাজধানীর ধুলা দূষণ নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।  এছাড়া ডিএসসিসির প্রধান সড়কগুলোতে সকাল-বিকেল পানি ছিটানোর উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

রোববার (০১ ডিসেম্বর) সকালে নগর ভবন প্রাঙ্গণে পরিবেশ দূষণ মোকাবেলার অংশ হিসেবে ধুলা দূষণ কমিয়ে আনার লক্ষ্যে নগরীতে পানি ছিটানোর ‘স্পেশাল ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’ এর উদ্বোধনকালে মেয়র এ কথা জানান।

সাঈদ খোকন বলেন, ধুলা দূষণ নিয়ন্ত্রণের জন্য যে ব্যবস্থাপনা আছে, সেটি সীমিত। মূলত এ দায়িত্ব পালন করে পরিবেশ অধিদফতর। কিন্তু নাগরিক দায়িত্বকে সম্মান জানিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন বরাবর এ কাজগুলো করে থাকে। আমরা আজ একটা বিশেষ প্রোগ্রাম শুরু করতে যাচ্ছি। এর আওতায় আমাদের যেসব প্রাইমারি সড়ক রয়েছে, তাতে সকালে এবং বিকালে দুই বেলা পানি ছিটিয়ে বায়ু দূষণ রোধের চেষ্টা করবো।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন, বর্তমানে আমাদের শহরে মেট্রোরেল ও এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ চলছে। পাশাপাশি ওয়াসা ও সিটি করপোরেশনের কাজও ধূলি দূষণের কিছুটা উৎস হিসেবে পরিণত হয়েছে। উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলো দূষণের জন্য অনেকটা কাজ করে থাকে। এ কারণে আমরা অনেক সমস্যায় পড়ি। আমরা আশা করি, যেসব প্রকল্প চলমান রয়েছে, এই কাজগুলো শেষ হয়ে যাওয়ার পর বায়ু দূষণ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমে আসবে। এই অন্তর্বর্তীকালীন সময়ে নাগরিকদের যে দুর্ভোগ হচ্ছে, এজন্য আমরা অত্যন্ত দুঃখিত। উন্নয়নের জন্য সাময়িক দুর্ভোগ জনগণ সহজভাবে মেনে নেবেন বলে আমরা আশা করি।

মেয়র বলেন, এই কর্মসূচির আওতায় সকাল ৬টা থেকে ৮টা ৩০ মিনিট এবং বিকালে নির্দিষ্ট সময়ে পানি ছিটানো হবে। এই কর্মসূচির আওতায় যেসব স্থানে কন্সট্রাকশন চলছে, সেখানে যদি সঠিকভাবে কাজ না হয়, বা যেখানে সেখানে যদি মাটি পড়ে থাকে, তাহলে আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবো। যেকোনও নির্মাণ কাজ সঠিক ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে করতে হবে।

সাঈদ খোকন আরও বলেন, আপনারা জানেন, বড় বড় প্রকল্পের নির্মাণ কাজ  চলছে। এসব কাজের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ অনেকটা কষ্টকর। তারপরেও অনিয়ন্ত্রিত অবস্থায় একেবারে যত্রতত্র কাজ করা আমরা অ্যালাউ করবো না। আমাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আমরা সেসব কাজ নিয়ন্ত্রণে আনবো।

কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কাকরাইল হতে মৎসভবন, গুলিস্থান রোড, বঙ্গভবনের সামনে, তোপখানা রোড, সেগুনবাগিচা, আনন্দবাজার, পলাশী, শাহবাগ, কাঁটাবন, সাতমসজিদ রোড, হাজারীবাগ, জিগাতলা, সাইন্সল্যাব, নীলক্ষেত, হাতিরপুল, শেরাটন মোড়, মগবাজার, কাকরাইল, শান্তিনগরসহ ডিএসসিসি আওতাধীন প্রায় সব এলাকায় দিনে দুই বার পানি ছিটানো হবে।

ক্রাশ প্রোগ্রাম উদ্বোধনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মোহাম্মদ ইমদাদুল হক, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডোর জাহিদ হোসেন, কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ডিএসসিসি বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

Ads
Ads