বিদেশে বসে ষড়যন্ত্রের নীলনকশাকারী কারা এই ৫ জন!

  • ২১-Nov-২০১৯ ০২:২৮ অপরাহ্ন
Ads

:: নিজস্ব প্রতিবেদক ::

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের পরিস্থিতি অস্থির করার জন্য একটি পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা নিশ্চিত করেছে। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মনে করছে যে, লাগামহীন পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি চালের বাজারে অস্থিরতা, লবন নিয়ে গুজব এবং রেল দুর্ঘটনা বা পরিবহন সংকট সবই একই সূত্র গাঁথা। এগুলো করা হচ্ছে পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে। একটা নির্বাচিত সরকারকে অস্থিতিশীল এবং অস্বস্তির মধ্যে ফেলার জন্যই এই পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য নীলনকশা করা হয়েছে দেশের বাইরে থেকে। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে পাঁচজন ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছে, যারা প্রত্যেকেই বিদেশে অবস্থান করছে। এরা বিএনপি-জামাত এবং যুদ্ধাপরাধী গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ত।

তারেক রহমান গোয়েন্দা অনুসন্ধানে দেখা গেছে যে, সাম্প্রতিক সময়ের ষড়যন্ত্রগুলোর মূলহোতা হলো লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। যেকোনো মূল্যে বাংলাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য তারেক জিয়া মরিয়া হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে পেঁয়াজ সিন্ডিকেট করা, গুদামে পেঁয়াজ পঁচিয়ে ফেলা এগুলোর সঙ্গে তারেকের সংশ্লিষ্টতার সুস্পষ্ট প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দারা।

মোসাদ্দেক হোসেন ফালু দুবাইয়ে অবস্থানরত বিএনপি নেতা এবং বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক একান্ত সচিব মোসাদ্দেক আলী ফালুর নামও উঠে এসেছে ষড়যন্ত্রকারী দের তালিকায়। সাম্প্রতিক সময়ে ফালুর কিছু সম্পত্তি ক্রোক করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এরপর থেকেই শুরু হয় পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা। এই দুটোর মধ্যে একটা যোগসূত্র খোঁজা হচ্ছে।

হারিছ চৌধুরী হারিছ চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরেই নিখোঁজ। তিনি লন্ডন, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে পালাক্রমে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। বিএনপির সঙ্গে তিনি সংশ্লিষ্ট রয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে অস্থিরতা সৃষ্টির পেছনে তার যোগসাজশের প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গেছে।

সাম্প্রতিক সময়ের ষড়যন্ত্রগুলোর অর্থের যোগানদাতা এবং অন্যতম হোতা হলো মীর কাসেম আলীর পুত্র আহমেদ বিন কাসেম। তিনি বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা এবং অস্থিরতা সৃষ্টির পেছনে তার হাত রয়েছে বলে একধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

ষড়যন্ত্র প্রক্রিয়ার সঙ্গে জামাতের সাবেক সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের পুত্র আলী আহমেদ মাবরুরের নামও এসেছে। তিনি পরিকল্পিতভাবে দেশকে অশান্ত করে তোলার ষড়যন্ত্র করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, এই পাঁচজন ব্যক্তির নাম এলেও এদের সঙ্গে আরও কয়েকজন জড়িত রয়েছে। খুব শিগগিরই আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা এবং গোয়েন্দারা এ সমস্ত ষড়যন্ত্রের মূল হোতাদেরকে খুঁজে বের করবে বলে জানিয়েছে।

Ads
Ads