আমরা সবার জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ চাই: মেয়র আতিকুল

  • ২৪-Oct-২০১৯ ০৫:৫৭ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

পুশ বাটন লাইটের উদ্বোধন প্রসঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম বলেছেন, প্রত্যেকটা কাজের পেছনে একটা উদ্দেশ্য থাকে। লাইট বসানোর উদ্দেশ্য হচ্ছে, আমরা নিরাপদ সড়ক চাই, আমরা নিরাপদ একটি শহর চাই। আমরা সবার জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ চাই।

বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের গ্রিন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সামনে পুশ বাটন টাইম কাউন্টডাউন সিগনালসহ জেব্রাক্রসিং উদ্বোধন কালে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়েছিলাম। তিনি আমাকে পুশ বাটন ও জেব্রা ক্রসিংয়ের কথা বলেছেন। এই লাইট লাগানোর আইডিয়াটা প্রধানমন্ত্রীর। আমরা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে এটাকে বাস্তবায়ন করছি।

মেয়ের আতিকুল ইসলাম বলেন, আমরা সিটি করপোরেশন থেকে অনেক কাজ করি। কিন্তু সেটা স্থায়ী হয়না। আমি এই স্কুলের অথরিটির কাছে সবিনয় অনুরোধ করবো, তারা যেনো এটাকে রক্ষণাবেক্ষণ করে। স্কুল অথরিটিও আমাদের পুশ বাটন লাইটটি রক্ষণাবেক্ষণের সহযোগিতা করবে বলে আমাকে আশ্বাস দিয়েছে।

সিটি করপোরেশন থেকে জানা গেছে, বিশ্বের উন্নত শহরগুলোর আদলে ডিজাইন করে তৈরি করা হচ্ছে এসব ‘পুশ বাটন সিগন্যাল’। সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে ডিএনসিসির ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং সার্কেল (টিইসি) সিগন্যালগুলো বসানোর কাজ করছে। পথচারীদের যত্রতত্র সড়ক পারাপারের ঝুঁকি এড়াতে এবং বিশেষ করে বয়োজ্যেষ্ঠ, প্রতিবন্ধী ও অন্ধ পথচারী এবং যানবাহনের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিতের উদ্দেশ্য নিয়ে বসানো হচ্ছে এসব সিগন্যাল।

এই সিগন্যালে সড়ক পারাপারে ইচ্ছুক কোনো পথচারী পুশ বাটনে চাপ দিলে ডিজিটাল সিগন্যালে একটি ‘কাউন্টডাউন’ শুরু হবে। নির্ধারিত সময় শেষ হলে পথচারীদের জন্য ‘সবুজ’ সংকেত ভেসে ওঠবে সিগন্যালে। অন্যদিকে যানবাহন চালকদের জন্য ভেসে ওঠবে ‘লাল’ সংকেত। অন্ধ পথচারীদের জন্য এই ডিভাইসে আছে ‘ভয়েস’ নির্দেশিকা সুবিধা।

এ উপলক্ষে গ্রিন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের নিয়ে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানের শুরুতে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত ও স্কুল সংগীত পরিবেশিত হয়। এসময় জাতীয় পতাকা ও স্কুলের পতাকা উত্তোলন করেন যথাক্রমে মেয়র আতিকুল ইসলাম ও স্কুলের অধ্যক্ষ আশা গোমেজ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে মেয়র বলেন, তোমরাই বাংলাদেশ। তোমরাই আমাদের ভবিষ্যৎ। তোমরাই আমাদের রাষ্ট্রনায়ক। কেননা তোমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তোমাদের কাছে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে’। এসময় তিনি নিরাপদে সড়ক আইন মেনে চলা, শিক্ষকদের কথা, বাবা মায়ের কথা মেনে চলার উপদেশ দেন।

ট্রাফিক আইন মেনে চলার কথা উল্লেখ করে চালকদের উদ্দেশে আতিকুল ইসলাম বলেন, এখানকার নতুন সিগন্যাল লাইটের সঙ্গে ক্যামেরার ব্যবস্থা আছে। যেসব গাড়ির ড্রাইভার ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করবে তাদের গাড়ির নম্বর ক্যামেরা দিয়ে খুঁজে বের করা হবে।তাদেরকে চিহ্নিত করে মামলা দেয়া হবে। ইতিমধ্যেই পুলিশকে সে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে’।

 

/কে 

Ads
Ads