শিশুর হাতে মাদক

  • ২২-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: মোশারফ হোসাইন ::

প্রত্যেকের হাতে পলিথিন পলিথিনের ভেতরে কিছু একটা আছে যা ঠিক দৃশ্যমান নয়। মাঝেমাধ্যেই সেই পলিথিনের ভেতর নাকসহ মুখ ডুবিয়ে লম্বা লম্বা নিঃশ্বাস নিচ্ছে। অবস্থা দেখলে মনে হতে পারে শিশুগুলো খেলাই করছে। না এটা কোন সাধারণ খেলার দৃশ্য নয়, ড্যান্ডী নামক নেশার দৃশ্য।

সরজমিনে দেখা যায়, রাজধানী শ্যামলী, আগারগাঁও, ও তেজগাঁও, কমলাপুর, এয়ারপোর্ট, টঙ্গী রেলস্টেশন এলাকার পথ শিশু সহ শহরের প্রায় সব রেলস্টেশন, ফুটপাত ও বস্তিবাসীর ৫ থেকে ১৪ বয়সী শিশুদের নেশার আরেক জগত ড্যান্ডী।

কথা হয় ড্যান্ডি নেশায় আসক্ত শিশুদের সাথে, তারা বলে এসব তৈরি, জুতা-স্যান্ডেল তৈরি ফোমে ব্যবহৃত সলিশন বা স্যান্ডেল জোড়া লাগানোর কাজে ব্যবহৃত আইকা ও গাম ইত্যাদি হলো ড্যান্ডি নামক নেশা তৈরির উপকরণ দীর্ঘক্ষণ এভাবে নাকে মুখে শ্বাস নিলে মাথা ঝিমঝিম করতে থাকে পাশাপাশি আসক্তি তৈরি হয় নেশায়। 

যে বয়সে বই হাতে নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা সে বয়সে জীবিকার সন্ধানে বস্তা হাতে নিয়ে কুড়িয়ে বেড়াচ্ছে ভাঙারি। আবার অনেকে জড়িয়ে বিভিন্ন অপরাধ মূলক কাজের সাথে। এসব করেই পার হচ্ছে তাদের দিন।

তাদেরও স্বপ্ন আছে, আছে ইচ্ছা ও তবে কঠিন বাস্তবতা। তাদের বেশিরভাগই পিতামাতা ও অভিভাবকহীন পরিবেশ ও সমাজের অনেকেই ওদের দেখে ভিন্নচোখে। অগোছালো চুল। ছেড়া গেঞ্জি ও ময়লাযুক্ত প্যান্ট পরে কখনো দলবদ্ধ হয়ে আবার কখনো একাকি নেশায় আসক্ত হয়ে পরে রেল লাইন ও বস্তির পাশে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দ্রুত এ নেশার প্রতিকার করা নাহলে বড় বড় নেশার জগতে জড়িয়ে পড়বে এই কমলমতি শিশুরা।

Ads
Ads