চাকরির দাবিতে আমরণ অনশনে মেরিন শীপবিল্ডিং গেজেট বাস্তবায়ন কমিটি: দাবি না মানা হলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারী

  • ১-Oct-২০১৯ ১১:১৬ অপরাহ্ন
Ads

:: নিজস্ব প্রতিবেদক ::

ডিপ্লোমা শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারদের সরকারি নিয়োগ সংক্রান্ত নীতিমালা সংশোধন, চাকুরীর বাজার উন্মুক্তকরণসহ উপ-সহকারী প্রকৌশলী হিসাবে ১০ম স্কেলে ডিপ্লোমা মেরিন/শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারদের গেজেট আকারে মেকানিক্যাল ও পাওয়ার প্রকৌশলীদের সঙ্গে বিএমইটি চলমান মামলা দ্রত নিষ্পত্তির দাবিতে আনরণ অনশনের ডাক দিয়েছে কেন্দ্রীয় মেরিন শীপবিল্ডিং গেজেট বাস্তবায়ন কমিটি।

এতে দেশের চার শতাধিক মেরিন/শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ার অংশ নেয়। গতকাল সোমবার সকালে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা আকরাম খাঁ হলে সংবাদ সম্মেলন করে তারা।

সংবাদ সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন খাতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উপযোগী প্রায় ২ হাজার শূন্যপদে নিয়োগ নিশ্চিত করার দাবি তোলা হয়। একই সঙ্গে তাদের দাবি শীঘ্রই মেনে না নিলে আমরণ অনশনসহ কঠোর কর্মসূচি পালনের হুঁশিয়ারী দেয়া হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত প্রধান অতিথি একুশে পদকপ্রাপ্ত কবি অসীম সাহা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যার সুযোগ্য নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে চলেছে। বর্তমানে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত। আমাদের অগ্রগতি অনেক বিশ্বের দরবারে রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। এমন এক সময় ডিপ্লোমা মেরিন/শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারদের দাবি নিশ্চয় প্রধানমন্ত্রীর নজর এড়িয়ে যাবে না।’

দেশকে খুব দ্রুত এগিয়ে নিতে কবি অসীম সাহা যৌক্তিক এই দাবি সরকারকে মেনে নেয়ার আনুরোধ জানান। মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় মেরিন শীপবিল্ডিং গেজেট বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম রাজিব বলেন, ‘২০১০ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা ও আমাদের সুযোগ্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিপ্লোমা ইন মেরিন ও ডিপ্লোমা ইন শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য স্বতন্ত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছিলেন। অজানা কারণে এখনো তার কোন পরিকল্পনা দৃশ্যমান হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী বাংলাদেশের প্রত্যেকটি শীপ ইয়ার্ড, ডক ইয়ার্ড ও শীপ ডিজাইন ফার্মে ন্যূনতম দুইজন শীপবিল্ডিং ইঞ্জিনিয়ার থাকার কথা। কিন্তু কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই চলছে এসব অঙ্গন।’

তিনি এ বিষয়ে সরকারের তদারকি ও কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সভাপতি বলেন, ‘সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতি বছর হাজার হাজর শিক্ষার্থী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হয়ে বের হন। তারপরই বেকারত্বের বোঝা কাঁধে চেপে বসে। এভাবে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়াররা বেকার হয়ে বসে থাকলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ পেতে সময় লেগে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।’

কমিটির উপদেষ্টা আদিল সাদ বলেন, ‘জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়, কর্ম কমিশন, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন দফতরে সমরাস্ত্র কারখানায় ম্যাটালার্জি প্রকৌশলী, নেভাল ডিপ্লোমা, নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট ইঞ্জিনিয়ার হিসেবেও কাজ করার দক্ষতা রাখি। এছাড়া রোল, গৃহায়ন, নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের অধীনেও কাজের সুযোগ রয়েছে আমাদের। এছাড়া কাজের দক্ষতা আমাদের কোথায় নেই। কিন্তু সুযোগ দেয়া হচ্ছে না।’

তিনি সব ক্ষেত্রে কাজের সুযোগ দ্রুত উন্মুক্ত করার দাবি জানান। সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের আল-মনসুর দ্বীন মেরিন ও শীপবিল্ডিং ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের দাবি মেনে নিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং দাবি মেনে না নিলে আমরণ অনশনসহ কঠোর কর্মসূচি পালনের হুশিয়ারী দেন।

পরে মানববন্ধনে উপস্থিত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়াররা জানান, চার বছরের ডিপ্লোমা কোর্সের সর্বোচ্চ ডিগ্রি নিয়ে যোগ্যতা অর্জন করা সত্তে¡ও সরকারি নিয়োগ সংক্রান্ত নীতিমালায় গেজেটভুক্ত না থাকায় তারা সরকারি চাকরীর সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা তাদের পড়াশুনা শেষ করে সরকারের প্রতিটি দফতরে চাকরীর জন্য আবেদন করতে পারে, কিন্তু তাদের আবেদন করার কোন সুযোগ নেই। তারা এই দ্বৈতনীতির অবসান চান।

তারা বলেন, ‘দীর্ঘ বিশ বছরের বেশি সময় ধরে এ ব্যাপারে বহুবার আবেদন জানিয়ে আসছেন তারা। আর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় থেকে বার বার আশ্বাস দেয়া হলেও তার কোন প্রতিফলন ঘটেনি। এ অবস্থায় তারা নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন।

Ads
Ads