খিলক্ষেত-কারওয়ান বাজারের ফুটপাত ও সড়ক থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএনসিসির অভিযান

  • ৩০-Sep-২০১৯ ০৪:৩৭ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

নগরীর উত্তরা এবং কারওয়ান বাজার এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। অভিযানে উত্তরার খিলক্ষেত এলাকায় আট শতাধিক এবং কারওয়ান বাজারে তিন শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।

কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, উত্তরা, খিলক্ষেত ও মিরপুরের ফুটপাত ও সড়ক থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) অভিযান পরিচালিত হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা বেলা ১১টা থেকে রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও ফার্মগেটে ফুটপাত ও সড়কের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সাজিদ আনোয়ার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। তিনি কারওয়ান বাজারের চালের আড়ত, মাছের আড়ত এবং রেল লাইনের পাশ থেকে প্রায় তিন শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেন। এছাড়া তার নেতৃত্বে ফার্মগেট থেকে ইন্দিরা রোড পর্যন্ত ফুটপাত ও সড়ক থেকে প্রায় পাঁচ শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

অভিযানের বিষয়ে গণমাধ্যমকে মেয়র আতিকুল বলেন, ‘কাওরান বাজারের এই রাস্তাগুলো অনেক প্রশস্ত, অবৈধ দখলমুক্ত করা গেলে ফার্মগেট থেকে রেল ক্রসিংয়ের পাশ দিয়ে কাওরান বাজারের এ সকল রাস্তা ব্যবহার করে যানজট অনেক কমানো যায়। আমরা ফুটপাত ও সড়কের উপর কোনো ধরনের অবৈধ স্থাপনা রাখতে দেব না। জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ করে এ সকল রাস্তা ও ফুটপাত নির্মাণ করা হয়েছে। জনগণ কোনো অবস্থাতেই চায় না এ সকল রাস্তা ও ফুটপাত অবৈধ দখলদারদের হাতে চলে যাক।’

পুনরায় দখল ঠেকাতে পদক্ষেপের বিষয়ে মেয়র বলেন, ‘পুনরুদ্ধারকৃত ফুটপাত ও সড়ক দখল হওয়া থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সমন্বয়ে একটি মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

এছাড়া পূর্ব নির্ধারিত তালিকা অনুযায়ী করপোরেশনের অঞ্চল-১ এর উত্তরা এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় উত্তরার খিলক্ষেতে অভিযান চালিয়ে সড়ক ও ফুটপাত থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে প্রায় আট শতাধিক অবৈধ স্থাপনা।

অভিযানের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল হামিদ মিয়া এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন। সড়ক ও ফুটপাত দখল করতে অঞ্চল ভিত্তিক উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শফিউল আজমের নেতৃত্বে মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনের ‘এ’ ব্লকের বিভিন্ন সড়কে ৮৭টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। এ ছাড়া ফুটপাত ও সড়কে অবৈধভাবে নির্মাণসামগ্রী রাখার অপরাধে ২টি মামলার মাধ্যমে মোট ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এছাড়া উত্তরায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আব্দুল হামিদ মিয়া এবং জুলকার নায়ন ৯ ও ১০ নম্বর সেক্টর ও খিলক্ষেত কাঁচা বাজারে অভিযান চালিয়ে ফুটপাত ও সড়ক থেকে প্রায় ৬৫০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে। এছাড়া ট্রেড লাইসেন্স না থাকা এবং ফুটপাতের উপর এম্বুলেন্স রাখার অপরাধে ৭টি  মামলার মাধ্যমে মোট ৪৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। 

ডিএনসিসির উচ্ছেদ অভিযান ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত থাকবে।

Ads
Ads