মহাসড়কে টোল ব্যবস্থাপনার সঙ্গে তদারকিও পরিকল্পনায় নেওয়া জরুরি

  • ৪-Sep-২০১৯ ১১:১১ অপরাহ্ন
Ads

:: ড. কাজী এরতেজা হাসান ::

বাংলাদেশের মহাসড়কগুলোয় গাড়ি চলাচলের ক্ষেত্রে টোল দেওয়ার নিয়ম চালু করার পরিকল্পনা করছে বাংলাদেশের সরকার। বিশ্বের অনেক দেশে এই ব্যবস্থা আছে। টোল ব্যবস্থা সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন হলে দেশের মহাসড়কের অবস্থা আর বেহাল দশার মুখোমুখি হবে না বলেই আমাদের বিশ্বাস। সুষ্ঠুভাবে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় পৌঁছে যাব আমরা। পোহাতে হবে না ঝুঁকির বিড়ম্বনা। এটা বাংলাদেশের জন্য এক যুগান্তরকারী পরিকল্পনা। তবে এ নিয়ে বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন মালিকদের রয়েছে মধ্যে তৈরি হয়েছে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া। অন্যদিকে মানুষের মনেও তৈরি হয়েছে যাতায়াত ভাড়াভীতি। কারণ, সরকার এর আগে তেলের দাম সামান্য বাড়াতেই পরিবহনগুলোতে যাতায়াত ভাড়া বেড়ে হতে দেখা গেছে আকাশচুম্বী। এসব ক্ষেত্রে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে নীরব ভূমিকায় অবস্থান নিতে দেখা গেছে। তাই মহাসড়কে টোল ব্যবস্থাপনার পরিকল্পনার শুরুতেই এসব দিক মাথায় রেখে ভাড়াও সরকার কর্তৃক বেঁধে দেওয়ার আহ্বান আমাদের।  

বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন মধ্যম-আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। প্রবৃদ্ধিও এখন বিশে^র কাছে অনুসরণীয়। একনেকে তিনিই সেতুর পাশাপাশি মহাসড়ক থেকে টোল আদায় করার জন্য দিয়েছেন নির্দেশনা। দূরদর্শিতাসম্পন্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ পর্যন্ত কোনো নির্দেশনাই না বুঝে দেননি। টোলের বিষয়টিও উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করবে- চোখ বন্ধ করে বলে দেওয়া যেতে পারে। তবে তার এই পরিকল্পনা সাফল্যের মুখে পৌঁছতে কেউ যেন কোনো চক্রান্ত না করে, সেদিকে আমাদের নজরদারি বাড়াতে হবে। কারণ পদ্মাসেতুর মতো এত বড় প্রকল্প, যা কিনা বাংলাদেশের একটি সাফল্য, যে কাজকে এগিয়ে নিতে সবাই তৎপর ও সতর্ক, তাকেই রুখে দিতে এখনো নানা ষড়যন্ত্রের জালে বন্দি করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। 

এদিকে ঈদুল আজহায় উত্তরাঞ্চলের দীর্ঘ যানজটের অন্যতম কারণ হিসেবে বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ে ধীরগতিকে চিহ্নিত করতে দেখা গেছে। তাই মহাসড়কে টোল আদায়ে পরিবহনকে থামিয়ে টোল আদায় প্রক্রিয়ার বাইরে আনা জরুরি। স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে টোল আদায়ের অনেক সিস্টেম বহু দেশে প্রচলিত। সেসব দেশের পদ্ধতি বিশ্লেষণ করে বাংলাদেশের মহাসড়কে এমন ব্যবস্থা করা যেতে পারে। যদিও পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমন একটি আভাস দিয়েছেন। তাকে ধন্যবাদ। পরিকল্পনাতে অতিগুরুত্বের সঙ্গে এই বিষয়টি তিনি দেখভাল করবেন বলে আমরা আশা রাখি। 

অন্যদিকে বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদ এবং বিশ্লেষকরা টাকা আদায় বা টাকার সংস্থান করার চেয়ে মহাসড়ক রক্ষণাবেক্ষণে অর্থের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করার প্রতি জোর দিতে বলেছেন। তারা এর ভালোমন্দ দুটি দিকই তুলে ধরেছেন। টোল সরকারের রাজস্ব আয়ের ভালো উৎস হতে পাওে তারা মন্তব্য করেছেন। আমরাও তেমনি মনে করছি। কিন্তু সেটার ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। কারণ সরকারের টাকার অভাবে মেরামত হচ্ছে না তা নয়, বরং রাস্তা মেরামত তদারকি ঠিকমতো হচ্ছে না বলেই রাস্তা মেরামতের পরেও বেশিদিন টিকছে না।  

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খোন্দকার এনায়েত উল্লাহর উক্তির সঙ্গে আমরাও একমত। তিনি বলেছেন, ‘টোল দিতে আমাদের আপত্তি নেই, তবে ভালো সড়কের ব্যাপারটিও নিশ্চিত করতে হবে। রাস্তা যদি ভালো থাকে, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা থাকে, আমাদের গাড়ি যদি দ্রুত চলাচল করতে পারে, তাহলে কিছুটা টোল দিতে হলেও আমাদের আপত্তি থাকবে না।’

Ads
Ads