৬ কার্যদিবসে পুঁজিবাজার মূলধন হারিয়েছে ৯ হাজার ৭৫ কোটি টাকা

  • ২-Sep-২০১৯ ০৩:২১ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

গত ৬ কার্যদিবসের দর পতনে ৯ হাজার ৭৫ কোটি টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)।

এদিকে, অব্যাহত বিক্রয় চাপে দর পতন অব্যাহত ছিল চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)। এসময় সিএসই’র বাজার মূলধন কমেছে ৯ হাজার ৮৪০ কোটি টাকা।

ডিএসই ও সিএসই’র তথ্য বিশ্লেষণে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ২২ আগস্ট ডিএসই’র বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৪৪০ কোটি ২৬ লাখ টাকা। এসময় ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫ হাজার ২৩৬ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। কিন্তু পরবর্তী কার্যদিবস থেকে সামান্য বিরতিতে নিয়মিত দর পতনে আজ (রোববার) ডিএসই’র বাজার মূলধন ৩ লাখ ৭৯ হাজার ৪৫২ কোটি ১৮ লাখ টাকায় স্থিতি পেয়েছে। এদিন ডিএসইএক্স সূচক ৫ হাজার ৭০ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে।

অর্থাৎ গত ৬ কার্যদিবসে ডিএসই’র বাজার মূলধন কমেছে ৯ হাজার ৭৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা ও ডিএসইএক্স সূচক কমেছে ১৬৬.১৭ পয়েন্ট।

এদিকে, গত ২২ আগস্ট সিএসই’র বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ১৭ কোটি ৭৭৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। ওই সময় সিএসই’র সার্বিক মূল্যসূচক সিএসইএক্স ছিল ৯ হাজার ৭৩৪ পয়েন্টে। কিন্তু ৬ কার্যদিবসের ব্যবধানে আজ (রোববার) সিএসই’র বাজার মূলধন ৩ লাখ ৮ হাজার ২৯৪ কোটি ৩৮ লাখ টাকায় স্থিতি পেয়েছে।

এসময় সিএসই’র সার্বিক মূল্যসূচক ৯ হাজার ৪১০ পয়েন্টে নেমে এসেছে। অর্থাৎ এসময় সিএসই’র বাজার মূলধন কমেছে ৯ হাজার ৪৮০ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ও সূচক কমেছে ৩২৩.৩৪ পয়েন্ট।

রোববারের বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৫১টি কোম্পানি ও ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯৩টির, কমেছে ২১০টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৮টি প্রতিষ্ঠানের। এসময় ডিএসইতে ৮ কোটি ১ লাখ ৩৩ হাজার ৪৩২টি শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এদিন ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ২৫.০৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৭০ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে। এসময় শরীয়াহ্ ভিত্তিক কোম্পানিগুলোর মূল্যসূচক ডিএসইএস ও ডিএস-৩০ সূচক যথাক্রমে ৫.০৭ ও ৮.৬২ পয়েন্ট কমেছে।

দিনশেষে ডিএসইতে ৩৩২ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪০২ কোটি ৯১ লাখ টাকার। অর্থাৎ এদিন ডিএসইতে লেনদেন কমেছে প্রায় ৭০ কোটি টাকা।

দিনশেষে ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে মুন্নু সিরামিক।

এদিন কোম্পানিটির ১৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে ছিল ওয়াটা কেমিক্যাল, কোম্পানিটির ১১ কোটি ১১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে এবং ১০ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে মুন্নু জুট স্টাফলার্স।

ডিএসইর টার্নওভার তালিকায় থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো- জেএমআই সিরিঞ্জ, ন্যাশনাল পলিমার, ডোরিন পাওয়ার, লিনডে বাংলাদেশ, বিকন ফার্মা, ইউনাইটেড পাওয়ার ও ন্যাশনাল টিউবস।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ সূচক সিএসসিএক্স এদিন ৪৬.৯৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৪১০ পয়েন্টে।

এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৩০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৫৮টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৬টির দর।

দিনশেষে সিএসইতে ১৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

Ads
Ads