যথাযোগ্য মর্যাদায় বেরোবিতে জাতীয় শোক দিবস পালন

  • ১৫-Aug-২০১৯ ০৮:৫৯ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি) রংপুর-এ যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার নানা কর্মসূচি পালন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সকালে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ১০টা  ৪৫ মিনিটে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ডক্টর মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও'র নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দের অংশগ্রহণে শোক পদযাত্রা বের করা হয়।

পদযাত্রাটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া প্রাঙ্গণে শেষ হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুর অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। ভাইস-চ্যান্সেলরের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর একে একে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদসমূহ, আবাসিক হল, বিভাগ, দপ্তর, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের বিভিন্ন সংগঠন, ইন্সটিটিউট, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়।

এ সময় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিহতদের এবং মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রভোস্ট তাবিউর রহমান প্রধানের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. পরিমল চন্দ্র বর্মণ, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল প্রভোস্ট ও বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সরিফা সালোয়া ডিনা, ইন্সটিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাসিউরেন্স সেল (IQAC) পরিচালক প্রফেসর ড. মো. নাজমুল হক, বহিরাঙ্গন পরিচালক ও ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিউল আজম খান, পরিসংখ্যান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মোঃ রশিদুল ইসলাম, কর্মকর্তা হাফিজ আল আসাদ প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর বলেন, আমাদের সকলের উচিত হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করা। তার আদর্শকে প্রকৃতপক্ষে ধারণ-লালন করা।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ সরকার জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ পালনের যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ও তার অংশ হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০০তম জন্মবার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় উদ্যাপন করবে।

এছাড়াও শোক দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে বাদ যোহর বঙ্গবন্ধু এবং শাহাদাত বরণকারী তার পরিবারবর্গের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মিলাদ মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

শোক দিবসের এসব অনুষ্ঠানিকতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

Ads
Ads