শরীয়তপুরে রিমাকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে, ৪ জনের ফাঁসি আদেশ

  • ৭-মে-২০১৯ ১০:৪৬ অপরাহ্ন
Ads

:: মোঃ জামাল মল্লিক,শরীয়তপুর ব্যুরো ::

শরীয়তপুরে কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ৪ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত । মঙ্গলবার (৭ মে) দুপুরে জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক আ: ছালাম খান এই রায় দেন।। একই সঙ্গে আদালত আসামিদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ দেন।

আসামিরা হলেন, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার নাওডোবা ইউনিয়নের পশ্চিম নাওডোবা গফুর মোড়ল কান্দি গ্রামের সিদ্দিক মোড়লের ছেলে চুন্নু মোড়ল (৫০), চুন্নু মোড়লের স্ত্রী স্বপ্না বেগম (৪৫), হামেদ মোড়লের ছেলে নুরু মোড়ল (৩৫) ও পশ্চিম নাওডোবা আহাম্মেদ চোকিদার কান্দি গ্রামের মৃত জমির চৌকিদারের ছেলে সেলিম চৌকিদার (৩৭)।

ট্রাইব্যুনালের সরকারী কৌঁসুলী অ্যাডভোকেট মির্জা হজরত আলী জানান, ২০১৭ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় জেলার জাজিরা উপজেলার নাওডোবা ইউনিয়নের আহাম্মেদ চৌকিদার কান্দি গ্রামের ইলিয়াস চোকদারের মেয়ে রিমা আক্তার (১৩) নিখোঁজ হয়। পরে ১৩ সেপ্টেম্বর বিকেলে নাওডোবা মজিদ হাওলাদারকান্দি জনৈক খোকন হাওলাদারের পরিত্যক্ত ভিটায় পাটখড়ি দিয়ে ঢাকা অবস্থায় রিমার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। রিমাকে গামছা দিয়ে ফাঁস দিয়ে এবং বুকে কোপের জখম অবস্থায় পাওয়া যায়।

এ ঘটনায় রিমার বাবা ইলিয়াস চৌকিদার ১৪ সেপ্টেম্বর বাদী হয়ে জাজিরা থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০১৮ সালের ২৮ জুন আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। পরে ১৮ সেপ্টেম্বর আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগের মধ্য দিয়ে বিচার শুরু হয়। ১৪ জন সাক্ষীর পর সাক্ষ্য শেষে আদালত এ রায় দেন।

তিনি আরো বলেন, আসামি নুরু, চুন্নু, সেলিম মেয়েটিকে ধর্ষণ করে এবং স্বপ্না ধর্ষণে সাহায্য করেন। পরে তারা মেয়েকে হত্যা করে। শিশুটিকে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ফাঁসির আদেশ দেন এবং প্রত্যেককে জরিমানার আদেশ দেন আদালত। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা উপস্থিত ছিলেন। পরে আসামিদের কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।
আসামিদেরপক্ষের আইনজীবী আলমগীর হোসেন এ রায়ে  সন্তুষ্ট নয়। উচ্চ আদালতে আপিল করবেন তিনি।

Ads
Ads