বিএনপির সঙ্গে যারা যারা জোটে আগ্রহী নয়!

  • ২৪-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

এই বছরের ডিসেম্বরেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করে একটি নির্বাচনী জোট করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। বিশেষ করে যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির জোট হবে এমন একটি জোর আলোচনা রাজনীতি পাড়ায় ছিল। গত রমজানে বিএনপি যুক্তফ্রন্টের আহ্বায়ক ও বিকল্পধারার সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে নিজেদের ইফতার পার্টিতে নিয়ে এসেছিল, এমনকি তাঁকে ‘অভিভাবক’ হিসেবেও অভিহিত করেছিল। সে সময় যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির কথা হয়েছিল যে, তাঁরা যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে ২০ দলের বাইরে একটি আলাদা জোট গঠন করবে। জোট করতে বি. চৌধুরী প্রথম দিকে ভালোই উৎসাহী ছিলেন। এই উদ্দেশ্যে তিনি বিএনপির সঙ্গে কথা বলেছেন, মিটিং করেছেন, ইফতার পার্টিতেও গেছেন। কিন্তু পরবর্তীতে একটি পর্যায়ে গিয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন তিনি।

 

জোট করবার উদ্দেশ্যে কেবল বি. চৌধুরীর সঙ্গেই নয়, অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গেও অনানুষ্ঠানিক আলোচনা করেছিল বিএনপি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিএনপির সঙ্গে কেউই জোট করেনি।

প্রকৃতপক্ষে কোনো দলই বিএনপির সঙ্গে প্রকাশ্য নির্বাচনী জোটে এবং আন্দোলনের জোটে যেতে রাজি নয়। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, জেএসডির সভাপতি আ স ম রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না – তাঁদের বিএনপির সঙ্গে জোট করার কোনো আগ্রহ নেই। এই নেতারা মনে করছেন বিএনপি যে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নিয়ে জোট করতে চাচ্ছে তা থেকে বিএনপির অন্য দলগুলোকে দেওয়ার কিছুই নেই। দলগুলোর বদ্ধমূল ধারণা, বিএনপি আসলে সঠিক রাজনীতি করছে না। কারান্তরীণ চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের মতো ইস্যুগুলো নিয়ে বিএনপির রাজনীতি স্বচ্ছ এবং সঠিক নয় বলে মনে করছে দলগুলো। পাশাপাশি সামনের নির্বাচনে যে রাজনৈতিক মেরুকরণ হবে তাতে বিএনপি নিজেদের জন্য যতগুলো আসন প্রত্যাশা করছে তাতে যুক্তফ্রন্টের জন্য বাকি যে আসনগুলো বরাদ্দ থাকবে তার সংখ্যা যুক্তফ্রন্টের জন্য খুব সম্মানজনক হবে না বলে মনে করছেন তারা। যুক্তফ্রন্ট বরং মনে করছে, অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জোট করে যদি তারা ৩০০ আসনের জন্য আলাদা নির্বাচন করে, তাদের জন্য সেটিই বেশি সম্মানজনক হবে। তাই যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির ঐক্যজোট করার যে চেষ্টা বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর করেছিলেন, সেই উদ্যোগটা পুরোপুরি ভেস্তে গেছে। এছাড়া বিএনপি যাদের সঙ্গে ঐক্য করতে চাচ্ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম হলো কামাল হোসেনের গণফোরাম এবং বাম ফ্রন্ট। এই দলগুলোও ইতিমধ্যে বিএনপির সঙ্গে জোটে যেতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছে।

আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে জোটের একটি হিড়িক পড়ে গেছে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপির জন্য দুঃসংবাদ হচ্ছে দলগুলোর কোনোটিই তাঁদের সঙ্গে জোটে যেতে আগ্রহী না।

এই মুহূর্তে বিতর্কিত ইসলামী দল জামায়াতে ইসলামী বিএনপির সঙ্গে আছে। এছাড়া বিরোধী দলে অন্য যেসব ইসলামী দলগুলো আছে তাঁরা বিএনপির সঙ্গে জোট করতে মোটেও আগ্রহী না। ইসলামী দলগুলোর জোট ইসলামী ঐক্যজোটও বছর দুয়েক আগে ২০ দলীয় জোট ছেড়ে বেরিয়ে গেছে। অর্থাৎ ২০১৪ সালের নির্বাচনের সময় বিএনপি যেমন সবাইকে নিয়ে একটি ঐক্যজোট করতে পেরেছিল, এবার তেমনটি ঘটছে না। এবার ইসলামী দলগুলোই আলাদা জোট করছে।

দলগুলো কেন বিএনপির সঙ্গে জোট গঠন করতে আগ্রহী না তার পেছনে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কারণ আছে। প্রথমত, বিএনপির সঙ্গে জোট করলে বিএনপিই সব আসন দখল করে ফেলে, বাকি দলগুলোর জন্য কিছুই বাকি থাকে না। দ্বিতীয়ত, বিএনপির সঙ্গে জোট করার পর শেষ পর্যন্ত তারা যদি নির্বাচনে না যায় তাহলে বাকি দলগুলোর মধ্যে একটি অস্বস্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। কারণ বিএনপির নির্বাচনে না যাওয়ার একটি সম্ভাবনা থাকলেও, বাকি দলগুলোর মধ্যে নির্বাচনে যাওয়া নিয়ে কোনো অনাগ্রহ নেই। আর তৃতীয় এবং সবচেয়ে বড় কারণটি হচ্ছে, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াকে দলগুলো পছন্দ করে না। তারেকের নেতৃত্বে তাঁদের আপত্তি আছে। এসব কারণেই দেশের বিরোধী দলে থাকা দলগুলো বিএনপির সঙ্গে জোট করতে আগ্রহী হচ্ছে না। ফলে নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে, বিএনপি ততই একঘরে হয়ে যাচ্ছে।

Ads
Ads