বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শিরোনাম: চট্টগ্রাম টেস্টে ড্র মেনে নিল বাংলাদেশ-শ্রীলংকা    আগামী নির্বাচনে আ.লীগ বিজয়ের বন্দরে পৌঁছাবে: কাদের    আবদুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক    আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই    সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে প্রাণ গেল ৩ শিশুর    মানবতাবিরোধী অপরাধ: মৌলভীবাজারের ৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড    রাজধানীতে ভবন থেকে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
কল্পনায় রসগোল্লা খায় বিএনপি
#বাংলাদেশ কোনভাবেই শ্রীলঙ্কার সঙ্গে তুলনীয় নয়: ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। #মিথ্যাচার করে পৈশাচিক আনন্দ পাচ্ছে বিএনপি: শাহাবউদ্দিন মোহাম্মদ। #দিবা স্বপ্নে বিভোর হয়ে আছে বিএনপি: আফছার খান সাদেক।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৩ মে, ২০২২, ১১:১৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

শ্রীলংকা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একটি ঈর্ষণীয় দেশ ছিল। তাদের জনসংখ্যা কম এবং নয়নাভিন্ন একটি পর্যটনমুখী দেশ শ্রীলংকা। আমি বলবো, দুর্ভাগ্যজনিত কারণে আজকে দেশটির এই দশা। করোনা অতিমারি সবচে বড় দংশন করেছে এই দেশটিকে। বাংলাদেশের অগ্রগতি হলে, বাংলাদেশের উন্নয়ন হলে তো আমাদের সবার জন্যই মঙ্গলকর। সেখানে বাংলাদেশের অবস্থা যদি শ্রীলঙ্কার মতো হয় তাহলে কি তারা রক্ষা পাবে। এই সাধারণ বিষয়টুক তারা বুঝেনা। সেই ক্ষেত্রে তাদেরকে রাজনৈতিক উন্মাদ ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না। 



দৈনিক ভোরের পাতার নিয়মিত আয়োজন ভোরের পাতা সংলাপের ৭০৩তম পর্বে শুক্রবার (১৩ মে) এসব কথা বলেন আলোচকরা। ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসানের নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক, জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদের (জানিপপ) চেয়ারম্যান ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, জার্মান আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শাহাবউদ্দিন মোহাম্মদ,  লন্ডন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক, বহির্বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য প্রতিষ্ঠাতা আফছার খান সাদেক। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভোরের পাতার বিশেষ প্রতিনিধি উৎপল দাস।

ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন,  শ্রীলংকা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একটি ঈর্ষণীয় দেশ ছিল। আমরা ছোট বেলা থেকেই জানতাম এই দেশটি শতভাগ সাক্ষরতার একটি দেশ ছিল। তাদের জনসংখ্যা কম এবং নয়নাভিন্ন একটি পর্যটনমুখী দেশ শ্রীলংকা। আমি বলবো, দুর্ভাগ্যজনিত কারণে আজকে দেশটির এই দশা। করোনা অতিমারি সবচে বড় দংশন করেছে এই দেশটিকে। এর কারণেই মূলত তাদের আর্থিক বড় খাত পর্যটন শিল্পকে একেবারে ধসে দিয়েছে। তারা পর্যটন আকর্ষণের জন্য অর্গানিক ফারমিং করেছিল যা পরবর্তীতে তাদের জন্য আরেকটি বড় বিপদ হয়ে দাড়ায়। সেই কারণে তাদের খাদ্য উৎপাদন একেবারেই কমে এসেছিল এবং সেই কারণে খাদ্য সংকট দেখা গিয়েছিল। এর পাশাপাশি অতি উচ্চবিলাসী প্রকল্প হাতে নেওয়ার কারণে পরবর্তীতে যেই পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে সেখানে তাদের নিজেকেই দেউলিয়া ঘোষণা করতে হয়েছিল।  প্রতিবেশী সবসময় নিকট নৈকট্যের বিষয়। সেজন্য সবসময় তাদের পাশে দাড়াতে হয়। এইক্ষেত্রে দেশরত্ন শেখ হাসিনা তাদের প্রতি অনেক আগেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল। আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল। কিন্তু এখন আমরা যেসব কথা শুনছি সেখানে আমি বলতে চাই যে, শ্রীলঙ্কার সাথে বাংলাদেশের প্রকৃতগত অনেক পার্থক্য রয়েছে। বাংলাদেশ কোনভাবেই কোনঅংশে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে তুলনীয় নয়। আমাদের ভিন্ন মতাদর্শের রাজনৈতিক স্রোতধারার একটি অংশ বিষয়টা একেবারেই উল্টোভাবে পর্যালোচনা করছে। আমি আহ্বান জানাবো, সমালোচনা করেন কিন্তু অবশ্যই সেই সমালোচনা গঠনমূলক হতে হবে।

শাহাবউদ্দিন মোহাম্মদ বলেন, আজকে ভোরের পাতা সংলাপের আলোচ্য বিষয় বিএনপির মিথ্যাচারের রাজনীতি। আসলে বিএনপির জন্মই তো মিথ্যাচারের মাধ্যমে হয়েছিল। শ্রীলংকার যে অর্থনৈতিক বিপর্যয় হয়েছে তার সম্বন্ধে বিস্তারিত কথা বলেছেন আমার পূর্ববর্তী বক্তা ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। আমি যে কথাটি বলতে চাই সেটা হলও, বিএনপি মানেই মিথ্যাচার এবং তার জন্ম ইতিহাসও মিথ্যাচার। তাই বিএনপি মানেই আমার কাছে মনে হয় বাংলাদেশ নির্লজ্জবাদ দল, বাংলাদেশ নাফরমানবাদ দল, বাংলাদেশ নাটকবাজ দল। তারা বাংলাদেশকে শ্রীলংকার সাথে তুলনা করে পাগলের মতো প্রলাপ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় একটা শক্তি বাংলাদেশ বিরোধিতা করেছিল এবং সেই শক্তির ধারাবাহিকতা বহন করছে বিএনপি। তারা বলছে আওয়ামী লীগ বঙ্গোপসাগরে হাবুডুবি খাচ্ছে, অথচ তারা নিজেরাই কিন্তু বঙ্গোপসাগরে হাবুডুবি খাচ্ছে। তারা যেখানে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতির তুলনা করছে সেখানে তারা নিজেরাও বুঝছে না তারা কি বলছে। অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় শ্রীলংকার সঙ্গে বাংলাদেশকে মেলানো ঠিক হবে না। দুই দেশের সমাজ ও অর্থনীতি ভিন্ন। তাদের মূল্যায়ন তারা করবেন। ক্রমাগত উন্নতিতে এক যুগ আগে যে শ্রীলঙ্কা উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে উঠার পথে ছিল, সেই শ্রীলঙ্কা এখন দেনার দায়ে জর্জরিত হয়ে এখন দেউলিয়া হওয়ার পথে। জ্বালানি তেল কিনতে না পারায় দেশটিতে এখন বিদ্যুৎ মিলছে না। গাড়ি চালানো দুষ্কর হয়ে উঠছে। আসলে বিএনপি নিজেদেরকে দিয়ে বাংলাদেশের সাথে শ্রীলঙ্কার বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে তুলনা করছে। আসলে বিএনপির ইতিহাস হচ্ছে কল্পনায় রসগোল্লা খাওয়া। আসলে কল্পনায় রসগোল্লা খাওয়া ব্যাপার না, যত পারো ততো খাওয়া যায়, এতে কোন পয়সা লাগে না। কিন্তু বাস্তবে রসগোল্লা তারা জীবনেও খেতে পারবে না। বাংলাদেশের অগ্রগতি হলে, বাংলাদেশের উন্নয়ন হলে তো আমাদের সবার জন্যই মঙ্গলকর। সেখানে বাংলাদেশের অবস্থা যদি শ্রীলঙ্কার মতো হয় তাহলে কি তারা রক্ষা পাবে। এই সাধারণ বিষয়টুক তারা বুঝেনা। সেই ক্ষেত্রে তাদেরকে রাজনৈতিক উন্মাদ ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না।

আফছার খান সাদেক বলেন, প্রায় ৫১০০ কোটি ডলারের আন্তর্জাতিক ঋণ মাথায় নিয়ে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থার ভয়াবহতার কারণে জনবিক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা বিদেশি ঋণের দায় মেটাতে ব্যর্থ হচ্ছে, ফলে পণ্য আমদানি করতে পারছে না। এমনকি তেল আমদানির করার ক্ষেত্রেও এক ভয়ঙ্কর সংকটের মুখে পড়েছে। শ্রীলংকার এই অবস্থার পর অনেকে বলার চেষ্টা করছে যে, অপরিকল্পিত এবং অনুন্নয়নশীল পরিকল্পনায় মেগা প্রকল্প এরকম পরিস্থিতি ডেকে আনতে পারে। বিএনপির নেতৃবৃন্দরা বলার চেষ্টা করছে যে, শ্রীলঙ্কা থেকে শিক্ষা নিতে হবে, শ্রীলংকার মতো পরিস্থিতি বাংলাদেশেও হতে পারে। গত ১৩ বছরে বর্তমান সরকার অনেকগুলো বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে এবং এই প্রকল্প গুলো প্রায় শেষ পর্যায়ে। পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, কর্ণফুলী টানেল, রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের মতো বড় বড় প্রকল্পগুলো বাংলাদেশে গ্রহণ করা হয়েছে এবং এটি বাংলাদেশের উন্নয়নের দৃশ্যপট রচনা করেছে। বাংলাদেশের যে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে তার সবই জনসম্পৃক্ত এবং জনগণের কল্যাণে। শ্রীলঙ্কার বর্তমান দশা কিন্তু একদিনে হয়নি। বর্তমান তাদের এই পরিস্থিতির কারণে যেসকল মন্ত্রী-এমপিরা রয়েছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে বর্তমান সরকার ব্যর্থ হয়েছেন।  বাংলাদেশে কখনো শ্রীলংকার মত পরিস্থিতি হবেনা। আমাদের অর্থনীতির ভিত অনেক গভীর ও মজবুত। স্বাধীনতাবিরোধী চক্র শ্রীলংকার সাথে বাংলাদেশের তুলনা করে নতুন ষড়যন্ত্র রচনা করছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে তাদের এ মিথ্যাচার দেশের ১৭ কোটি মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা এখন বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। বিশ্বের বুকে ধারাবাহিক উন্নয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে রোডম্যাপ প্রণয়ন করে রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন সেটি বাস্তবায়িত হলে ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]