বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শিরোনাম: চট্টগ্রাম টেস্টে ড্র মেনে নিল বাংলাদেশ-শ্রীলংকা    আগামী নির্বাচনে আ.লীগ বিজয়ের বন্দরে পৌঁছাবে: কাদের    আবদুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক    আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই    সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে প্রাণ গেল ৩ শিশুর    মানবতাবিরোধী অপরাধ: মৌলভীবাজারের ৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড    রাজধানীতে ভবন থেকে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র, বাংলাদেশ অভ্যুদয়ের মৌলিক দলিল: একটি প্রয়োজনীয় সহজপাঠ
শেখ মফিজুর রহমান
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২, ৫:০৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

কাউকে ভালোবাসতে চাইলে তার সম্পর্কে জানতে হবে, তাকে চিনতে হবে তবেই তাকে প্রকৃত ভালোবাসা যায়। তেমনি একটি দেশে জন্মালেই সেই দেশ আপন হয় না। দেশকেও জানতে হবে, এর ইতিহাস খুঁজতে হবে। তবেই সে দেশকে ভালোবাসা যাবে।

বাংলাদেশ রাষ্ট্রটি একটি মহান মুক্তিযুদ্ধের ফসল। একটি লোকায়িত জাতি হিসেবে বাংলাদেশের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে আত্মপরিচয়ের সুদীর্ঘ সংগ্রামে লিপ্ত। সুখে-দু:খে এক হয়ে বেঁচে থাকার সুতীব্র আকাক্সক্ষাই বাংলাদেশ নামের রাষ্ট্র গঠনে অনুপ্রেরণা যোগায়। আর সেই অনুপ্রেরণার সূত্র ধরেই আসে মহান একাত্তর। বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ইতিহাসের সব থেকে গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়।
বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের আদি অনুপ্রেরণার উৎস খুঁজে পেতে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র এক অনন্য দলিল। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে অনূদিত স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র ১০ এপ্রিল ১৯৭১ তারিখে বাংলাদেশের মুজিবনগরে ঘোষিত ও জারিকৃত হলেও ২৩ মে ১৯৭২ তারিখে বাংলাদেশ গেজেটের অতিরিক্ত সংখ্যায় প্রকাশিত হয়। তবে আইনের ছাত্র বা আইনের অঙ্গনে যাদের বিচরণ তাদের কাছে অনেকটা অজানা বা অগুরুত্বপূর্ণ রয়ে গেছে এই ঘোষণাপত্র। আমার লেখার শিরােনাম পড়লেই বোঝা যাবে। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের একটি সহজ-সরল অথচ প্রয়ােজনীয়ভাব-বর্ণনা পাওয়া যাবে এই লেখায় যা উপকৃত করবে দেশপ্রেমিক সকলকে।

বাংলাদেশে (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) ১৯৭০ সনের ৭ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭১ সনের ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত জনগণের প্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, যার মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল সংবিধান প্রণয়ন করা। উক্ত নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ মোট ১৬৯ জন জনপ্রতিনিধির মধ্যে ১৬৭ জন জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করেন, যারা ছিলেন আওয়ামী লীগ দলীয় সদস্য। জেনারেল ইয়াহিয়া খান সংবিধান প্রণয়েনের উদ্দেশ্যে জনপ্রতিনিধিদের মিলিত হবার জন্য ১৯৭১ সনের ৩ মার্চ দিন ধার্য করেন এবং সকল জনপ্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানান। পরবর্তীতে তিনি অন্যায়ভাবে উক্ত সভা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করেন। অন্যদিকে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার তাদের প্রতি আরোপিত অঙ্গীকার পালন না করে বরং বাংলাদেশের জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনায়রত অবস্থায় একটি অনৈতিক ও বিশ্বাসহন্তা যুদ্ধ ঘোষণা করে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশের জনগণের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণের বৈধ অধিকার পূরণের লক্ষ্যে ১৯৭১ সনের ২৬ মার্চ ঢাকায় স্বাধীনতার সময়োচিত ঘোষণা দেন এবং বাংলাদেশের মর্যাদা ও অখন্ডতা রক্ষার জন্য এ জনপদের মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেন। পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ নৃশংস, অসভ্য ও অন্যায় যুদ্ধ দ্বারা বাংলাদেশে নজিরবিহীন গণহত্যা সংঘটন করে এবং বাংলাদেশের জনগণের স্বপ্নকে পর্যদুস্ত করার অপপ্রয়াস গ্রহণ করে। বাংলাদেশের জনগণ তাঁদের বীরত্ব, সাহসিকতা ও বিপ্লবী ঐকান্তিকতা দিয়ে বাংলাদেশ এলাকায় কার্যকর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। জনপ্রতিনধিগণ জনগণের অভিপ্রায়ের প্রতি সশ্রদ্ধ অনুগত ও দীক্ষিত হয়ে যথাযথভাবে সংবিধান রচনার নিমিত্ত গণপরিষদ গঠন করেন এবং নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক পরামর্শ গ্রহণ করেন। বাংলাদেশের জনগণের জন্য সমতা, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায় বিচার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশ’ নামক সার্বভৌম জনগণের প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার ঘােষণা প্রদান করা হয়। অধিকন্তু এর দ্বারাই তো পূর্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক দেওয়া স্বাধীনতার ঘোষণার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়।

সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, সংবিধান প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি থাকবেন এবং সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রজাতন্ত্রের উপ-রাষ্ট্রপতি থাকবেন। রাষ্ট্রপতি প্রজাতন্ত্রের সশস্ত্র বাহিনীসমূহের সর্বাধিনায়ক হবেন এবং ক্ষমা প্রদর্শনের ক্ষমতাসহ সকল নির্বাহী ও আইন প্রণয়ন ক্ষমতা তার হাতে ন্যস্ত থাকবে। প্রধানমন্ত্রীসহ মন্ত্রিসভা রাষ্ট্রপতি নিয়ােগ প্রদান করবেন এবং কর ধার্য, আদায় ও অর্থ ব্যয় কার ক্ষমতা তার উপর অর্পিত থাকবে। গণপরিষদ আহ্বান ও মূলত বিচার ক্ষমতা তাঁর উপর ন্যস্ত থাকবে। মোটকথা, বাংলাদেশের জনগণের একটি সুশৃংখল ও আইনসম্মত সরকার উপহার দেবার জন্য রাষ্ট্রপতি যেরুপ প্রয়োজন বোধ করবেন সেরুপ কার্য করবেন।

বাংলাদেশের জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা আরো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন যে, রাষ্ট্রপতির অনুপস্থিতিতে রাষ্ট্রপতির যাবতীয় ক্ষমতা, কর্তব্য ও দায়িত্ব উপ-রাষ্ট্রপতি পালন ও প্রয়োগ করবেন। অধিকন্তু জাতিসমূহের পরিবারভূক্ত একজন সদস্য হিসেবে জাতিসংঘের সনদের প্রতি বিশ্বস্ত থাকার অঙ্গীকার প্রদান করা হয়।

আরো সিদ্ধান্তিত হয় যে, স্বাধীনতার এই ঘোষণাপত্র ১৯৭১ সনের ২৬ মার্চ হতে কার্যকর হয়েছে মর্মে বিবেচিত হবে।



আরো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় যে, এই দলিল কার্যকর করার জন্য দেশের রাষ্ট্রপতি ও উপ-রাষ্ট্রপতিকে শপথ পাঠ করাতে হবে এবং উক্ত শপথ পরিচালনার জন্য অধ্যাপক ইউসুফ আলীকে যথাযথ ক্ষমতার্পণ করা হয়।

সবশেষে বলতে চাই, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল আকাক্সক্ষা আজও বাস্তবায়িত হয়নি। আমরা একটি সত্য সুন্দর, কল্যাণ ও আনন্দের বিচার ব্যবস্থা চেয়েছি এবং সেটি বাস্তবায়ন করতে গেলে একটি সুস্থতর, সুন্দরতর ও সমৃদ্ধতর বাংলাদেশ গঠন করতে হবে। সে লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। আমরা সেই অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী হতে চাই যে সকালের অমিত সম্ভাবনা আমাদেরকে নিয়ে যাবে একটি আদর্শ, উন্নত ও কল্যাণকর রাষ্ট্রে। আমাদের পূর্বপুরুষের এতো মহিমান্বিত আত্মত্যাগ-সে কী সফল হবে না? বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাষায় আশাবদী হয়ে দাবী নিয়ে আমিও বলতে চাই,

‘বীরের এ রক্তস্রোত,
মাতার এ অশ্রুধারা
এর যত মূল্য সে কী ধরার ধুলায় হবে হারা।
স্বর্গ কি হবেনা কেনা।
বিশ্বের ভান্ডারী শুধিবেনা
এত ঋণ?
রাত্রির তপস্যা সে কী আনিবে না দিন।’ 

লেখক: সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ, সাতক্ষীরা

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]