বুধবার ১২ মে ২০২১ ২৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: অপ্রতিরোধ্য করোনায়ও প্রতিরোধ গড়েছেন শেখ হাসিনা    চাঁদ দেখা যায়নি সৌদিতে, ঈদ বৃহস্পতিবার    মিতু হত্যা মামলায় স্বামী বাবুল আক্তার গ্রেপ্তার    মালয়েশিয়ায় ঈদ বৃহস্পতিবার    মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত চেয়ে আইনি নোটিশ    ৪৩তম বিসিএসের প্রিলি পরীক্ষার তারিখ পেছাল    মন্ত্রীদের বক্তব্য শুধু অশালীন নয়, অমার্জিত ও অগ্রহণযোগ্য: ফখরুল   
মসজিদের জমিতে মার্কেট নির্মাণের পাঁয়তারা করছে হুইপ শামসুল!
ভোরের পাতা ডেস্ক
প্রকাশ: রোববার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ২:৫৮ এএম | অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের পটিয়া আসনের সংসদ সদস্য হুইপ সামশুল হক চৌধুরী ও তাঁর ছেলে নাজমুল হক চৌধুরী শারুনের বিরুদ্ধে একের পর এক দুর্নীতির অভিযোগ উঠছে। এবার তাঁদের বিরুদ্ধে উঠেছে শত বছরের পটিয়া থানা মসজিদ দখল করে বহুতল বিপণিবিতান নির্মাণের অভিযোগ। শুধু তা-ই নয়, নিজেদের স্বার্থে তাঁরা পাল্টে দিয়েছেন মসজিদের নামও। প্রতিবাদ করায় হুইপ ও তাঁর ছেলের রোষানলে পড়েছেন পুলিশের কয়েক কর্মকর্তা। এ ছাড়া মসজিদ দখল করে বহুতল মার্কেট নির্মাণকে কেন্দ্র করে পুলিশ প্রশাসনে দেখা দিয়েছে তীব্র অসন্তোষ।



হুইপ ও তার পুত্রের এমন অপকর্ম নিয়ে মুখ খোলতে চান না পুলিশ প্রশাসনের কেউ। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘পটিয়া থানা জামে মসজিদের ২২ গন্ডা জমি দখল করে তাতে ১০ তলা অভিজাত মার্কেট নির্মাণের পাঁয়তারা করছে স্থানীয় এমপি  শামসুল হক চৌধুরী ও তার পুত্র শারুন চৌধুরী। এরই মধ্যে তাদের অনুসারী এক নেতাকে দিয়ে কথিত মসজিদ পরিচালনা কমিটি গঠন করেছে। পরিবর্তন করে দিয়েছে মসজিদের নাম। তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন কথিত মসজিদ কমিটি বিএনপি-জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতাকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ডেভেলপমেন্ট চুক্তিও করেছে। এরই মধ্যে মসজিদ ভেঙে ১০ তলা মার্কেট করে তাতে ৪০০টি দোকান তৈরির আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৮৯০ সালে ২২ গন্ডা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয় ‘পটিয়া থানা জামে মসজিদ’। প্রতিষ্ঠার পর থেকে পটিয়া সার্কেলের এএসপি কিংবা থানার অফিসার ইনচার্জ সভাপতি এবং মুসল্লিদের পক্ষ থেকে একজন সেক্রেটারি নির্বাচিত হয়ে মসজিদ পরিচালিত হয়ে আসছে। ১৯৯৪ সালে পটিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ও এ আহমদের যৌথ স্বাক্ষরে জনতা ব্যাংকের পটিয়া শাখায় ‘থানা মসজিদের’ নামে একটি যৌথ হিসাবও খোলা হয়। সরকারি বিভিন্ন দলিলেও স্থাপনাটি ‘পটিয়া থানা জামে মসজিদ’ হিসেবে উল্লেখ রয়েছে। গত এক দশকে পটিয়ার প্রাণকেন্দ্রে জমির দাম বেড়ে যায় কয়েক গুণ। ফলে ‘পটিয়া থানা জামে মসজিদ’-এর জায়গার ওপর কুদৃষ্টি পড়ে স্থানীয় এমপি শামসুল হক চৌধুরী ও তার পুত্রের। মসজিদের জায়গা দখল করতে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে ২০১৩ সালে এমপি তার অনুসারী এবং তৎকালীন পৌর মেয়র হারুনুর রশিদকে সভাপতি করে সাত সদস্য বিশিষ্ট কথিত মসজিদ পরিচালনা কমিটি গঠন করে। মসজিদের ওই জায়গায় ১০ তলা বহুতল মার্কেট নির্মাণের উদ্যোগ নেয় হুইপ ও তাদের অনুসারীরা। ৫০:৫০ চুক্তিতে মার্কেট নির্মাণের জন্য চুক্তি করা হয় বিএনপি ও জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতাকারী প্রতিষ্ঠান ‘নুসরাত ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেডে’-এর সঙ্গে। 

এ ডেভেলপার কোম্পানির মালিকদের একজন হচ্ছেন উপজেলা বিএনপির নেতা শফিকুল ইসলাম চেয়ারম্যান। কোম্পানির বাকি মালিকরাও বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। ২০১৮ সালে পটিয়া থানা জামে মসজিদের নাম পাল্টে ‘পটিয়া থানা ছদু তালুকদার জামে মসজিদ কমপ্লেক্স’ নামকরণ করে হুইপ পরিবার ও তার অনুসারীরা। অবৈধভাবে গঠিত কথিত মসজিদ কমিটি বাতিল এবং নুসরাত ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেডের সঙ্গে করা চুক্তি বাতিলের জন্য আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। ২০১৯ সালে পটিয়ার সিনিয়র সহকারী জজ প্রথম আদালত প্রদত্ত এক রায়ে ‘পটিয়া থানা ছদু তালুকদার জামে মসজিদ’ ও ‘নুসরাত ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী লিমিটেডে’র সঙ্গে করা চুক্তি অবৈধ এবং কথিত সোলেহনামা সবকিছু অবৈধ ঘোষণা করেন। কিন্তু এ রায়ের তোয়াক্কা না করে হুইপ শামসুল হক চৌধুরী, তার পুত্র নাজমুল হক চৌধুরী শারুন এবং তাদের অনুসারীরা মসজিদের জায়গায় ১০ তলা মার্কেট করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে। দোকান বরাদ্দের নামে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে দোকান প্রতি ৩০ থেকে ৪০ লাখ টাকা। ‘পটিয়া থানা ছদু তালুকদার জামে মসজিদ কমপ্লেক্স’ থেকে দেড় শ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পাঁয়তারা চলছে বলে জানা গেছে। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, হুইপ শামসুল হক চৌধুরীর অনুসারী হারুনুর রশীদের বাড়ি পটিয়া থানা মসজিদ থেকে কমপক্ষে ৪ কিলোমিটার দূরে। তিনি কোনো সময়ই পটিয়া থানা মসজিদ কমিটির দায়িত্বে ছিলেন না। মূলত পটিয়া থানা জামে মসজিদের জমি আত্মসাৎ করতেই হঠাৎ করে তাকে সভাপতি করে কথিত মসজিদ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কথিত এ কমিটির নেপথ্যে রয়েছে হুইপ শামসুল হক চৌধুরী ও তার পুত্র শারুনের দেড় শ কোটি টাকার বাণিজ্য।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]