বুধবার ১২ মে ২০২১ ২৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: অপ্রতিরোধ্য করোনায়ও প্রতিরোধ গড়েছেন শেখ হাসিনা    চাঁদ দেখা যায়নি সৌদিতে, ঈদ বৃহস্পতিবার    মিতু হত্যা মামলায় স্বামী বাবুল আক্তার গ্রেপ্তার    মালয়েশিয়ায় ঈদ বৃহস্পতিবার    মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত চেয়ে আইনি নোটিশ    ৪৩তম বিসিএসের প্রিলি পরীক্ষার তারিখ পেছাল    মন্ত্রীদের বক্তব্য শুধু অশালীন নয়, অমার্জিত ও অগ্রহণযোগ্য: ফখরুল   
শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দৃঢ়তা দেখাচ্ছে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো
উৎপল দাস
প্রকাশ: বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১, ৭:২৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি শিক্ষা। যুগোপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থা ছাড়া সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলা সম্ভবপর নয়। তাই বর্তমান সরকার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ কে সামনে রেখে শিক্ষা ক্ষেত্রে শৃংখলা আনয়নের লক্ষ্যে সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার জন্য ‘শিক্ষাকে দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রধান হাতিয়ার’ বিবেচনায় নিয়ে একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার।

শিক্ষা একদিকে যেমন মানুষের মৌলিক অধিকার, তেমনি অন্যদিকে তা এক সামাজিক পুঁজি। মানুষের চয়নের অধিকার প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষা উন্নয়নের পথ প্রশস্ত করে। এ মানব পুঁজির যথাযথ বিকাশ এবং উন্নয়ন কর্মকান্ডে তার সম্পৃক্তি দেশের সামগ্রিক জাতীয় উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে গতি সঞ্চারিত হয়ে রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ অর্জনে এগিয়ে যাওয়া যাচ্ছে। দেশকে শতভাগ সাক্ষরতার পথে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাতে নিয়েছেন নানামুখী প্রকল্প। সেগুলো মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে পিছিয়ে পরা সমাজের মানুষকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার জন্য উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা।

এক্ষেত্রে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধিভুক্ত উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো (বিএনএফই) দীর্ঘদিন ধরে গুরুত্বহীন প্রতিষ্ঠানে পরিণত হলেও বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মিশন বাস্তবায়নে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিষ্ঠানটি ছিল গুরুত্বহীনতার সর্বোচ্চ স্থানে। এমনকি সংস্থাটির নিজস্ব বিধিমালা ও ছিলনা। কিন্তু ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে সংস্থাটির মহাপরিচালক তপন কুমার ঘোষ যোগ দেয়ার পর থেকেই ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। শতভাগ স্বাক্ষরতা অর্জনের ক্ষেত্রে শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দৃঢ়তা দেখাচ্ছে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো।

তপন কুমার ঘোষ মহাপরিচালক হিসাবে যোগদানের পর থেকেই নানা মৌলিক প্রকল্প নিয়ে কাজ শুরু করেন। যার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য মৌলিক স্বাক্ষরতা প্রকল্প, এ প্রকল্পের আওতায় ৬৪ জেলায় ২৩ লক্ষ ৫৯ হাজার ৪৪১ জন ১৫-৪৫ বছর বয়ষ্ক নারী-পুরুষকে সফলতার সহিত প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। এমনকি মুজিব বর্ষ উপলক্ষে আরো ২১ লক্ষ নারী-পুরুষকে প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া হবে, সময়োপযোগী এই প্রকল্পের আওতায় সর্বমোট ৪৫ লক্ষ মানুষ নিরক্ষরতার দায়মুক্ত হবেন।

এছাড়া ‘আউট অব স্কুল চিলড্রেন এডুকেশন’ কর্মসূচি বিএনএফই -এর অন্যতম একটি প্রকল্প, সারা বিশ্বে এই করোনা মহামারির মধ্য দিয়েও প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন পূরনের জন্য ‘আউট অব স্কুল চিল্ড্রেন’ কর্মসূচী সফলভাবে বাস্তবায়নের লক্ষে মহাপরিচালক তপন কুমার ঘোষের নেতৃত্বে ৬১ জেলার জন্য ৫৩ টি এনজিও যাচাই-বাচাই সম্পন্ন করে মাঠপর্যায়ে কার্যক্রম শুরু হয়েছে।



‘আউট অব স্কুল চিল্ড্রেন’ কর্মসূচিতে সারাদেশে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে এবং ৮-১৪ বছর বয়সের ১০ লক্ষ ঝড়ে পড়া শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত হবে। এনজিও কর্মীদের মতে করোনা মহামারীর এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে বিভিন্ন প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে এতবড় প্রকল্প স্বচ্ছতার সাথে মাঠপর্যায়ে নিয়ে যাওয়া মহাপরিচালক তপন কুমার ঘোষের নেতৃত্বে হয়েছে বলেই খোদ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

বিএনএফই-এর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বলেন, মহাপরিচালক তপন কুমার ঘোষের সব থেকে বড় অবদান "আউট অব স্কুল চিল্ড্রেন" কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য স্বচ্ছভাবে যাচাই-বাচাই করে ৫৩ টি যোগ্য এনজিও নির্বাচন, বিএনএফই আইনের আলোকে বিধিমালা প্রস্তুত করা এবং উপজেলা পর্যায়ে সেটির অনুমোদন করানো, যেখানে প্রতিটি উপজেলায় রাজস্ব খাতে ৩ জন করে লোকবল নিয়োগ করা হবে সর্বমোট ১৪৭৩ জন লোকবল নিয়োগের মাধ্যমে বিএনএফই উপজেলা কার্যক্রম চালু হবে।

এ প্রসঙ্গে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো (বিএনএফই) তপন কুমার ঘোষ ভোরের পাতাকে বলেন, আমি দায়িত্বগ্রহণের পর থেকেই গণশিক্ষা কার্যক্রমকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশিত পথেই এগুচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। আশা করছি, বাংলাদেশ আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই শতভাগ স্বাক্ষরতার দেশে পরিণত হবে।এটি জাতির জনকের কন্যার স্বপ্ন। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো পুরোপুরিভাবে প্রস্তুত। কিছু চ্যালেঞ্জ আমাদের সামনে রয়েছে, সেগুলো নিয়ে আমি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনকে কয়েকটি প্রস্তাবনা দিয়েছি। তিনিও আন্তরিকভাবে সেগুলো গ্রহণ করেছেন। আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে কর্মমূখী শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি বাংলাদেশকে শতভাগ স্বাক্ষরতার দেশে পরিণত করতে নিরলসভাবে কাজ করছি।

ভোরের পাতা/পি

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  শেখ হাসিনা   স্বপ্ন    বাস্তবায়ন   দৃঢ়তা   উপানুষ্ঠানিক   শিক্ষা ব্যুরো  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]