মঙ্গলবার ২ মার্চ ২০২১ ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭

শিরোনাম: বিশ্বে করোনায় মৃত্যু সাড়ে ২৫ লাখ ছাড়ল    করোনার টিকা নিলেন মির্জা ফখরুল    শেখ হাসিনায় উদ্ভাসিত সুবর্ণ জয়ন্তীর বাংলাদেশ    মিয়ানমারে ১০ সাংবাদিক আটক    নোয়াখালীতে ইউপি চেয়ারম্যানের অফিসে ককটেল নিক্ষেপ    কাদের মির্জা তালা ঝুলিয়ে দলীয় কার্যালয় ছাড়লেন    যে সীমান্ত দিয়ে পালিয়েছিল পি কে হালদার   
ছাত্রদল ছেড়ে যেভাবে হরকাতুল জিহাদে যুক্ত হন ইকবাল
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৪:২৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর দিয়াবাড়ি এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাব একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত হরকাতুল জিহাদের জঙ্গি আসামি মো. ইকবাল  হোসেনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেনেড হামলার ১৬ বছর এবং আদালতের রায়ের তিন বছর পর মঙ্গলবার ইকবালকে ঢাকার দিয়াবাড়ি থেকে গ্রেফতারের কথা জানানো হয় র‌্যাবের পক্ষ থেকে। 

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের জনসভায় ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনা এবং দলের শীর্ষ স্থানীয় কয়েকজন নেতা অল্পের জন্য বেঁচে যান। তবে নিহত হন মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেগম আইভি রহমানসহ ২৪ জন। গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে  ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর  বিচারিক আদালত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বিএনপি নেতা লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন । বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয় আরও ১১ জনের। ইকবাল এ মামলার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীদের একজন।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) কারওয়ানবাজারে র‌্যাব সদর দপ্তরে মিডিয়া ব্রিফিংয়ে মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইকবাল স্বীকার করে নিয়েছে যে, মুফতি হান্নানের নির্দেশে সে মঞ্চের দিকে গ্রেনেড ছুড়েছিল।

গ্রেফতার মো. ইকবাল হোসেন ওরফে ইকবাল ওরফে জাহাঙ্গীর ওরফে সেলিমের বাড়ি ঝিনাইদহে। ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন।  স্কুল-কলেজে পড়ার সময় তিনি ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৯৪ সালে কেসি কলেজ, ঝিনাইদহে ছাত্র সংসদে ছাত্রদলের নির্বাচিত শ্রেণি প্রতিনিধি ছিলেন। ১৯৯৫ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় ছিলেন। দেশে ফিরে এসে তিনি আইএসডি ফোনসহ বিভিন্ন ব্যবসায় যুক্ত হন। ২০০১ সালে তার চিন্তা-চেতনায় পরিবর্তন আসে। তিনি হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্ত হন। মুফতি হান্নানের সংস্পর্শে তিনি আসেন ২০০৩ সালে। তখন থেকে জঙ্গি প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন। মুফতি হান্নান ও হুজি–বির শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকজন নেতার সংস্পর্শে এসেছেন তিনি। তাদের সঙ্গে বিভিন্ন গোপন বৈঠকেও অংশ নেন। মুফতি হান্নানের নির্দেশেই তিনি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় অংশ নেন এবং মঞ্চ লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোড়েন।


র‌্যাবের মহাপরিচালক জানান,  ২০০৪ সালে হামলার আগেই ইকবাল ঢাকায় অবস্থান নিয়েছিল। আগস্টে মুফতি হান্নানের নির্দেশে সে ঢাকায় চলে আসে এবং গোপন আস্তানায় অবস্থান করতে থাকে। সেখানে মুফতি হান্নানসহ অন্যদের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক তৈরি হয় (তার)। মুফতি হান্নানের নির্দেশে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় সরাসরি অংশ নেন ইকবাল। মুফতি হান্নান তাকে গ্রেনেড সরবরাহ করেছিল। ইকবাল মঞ্চ লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছুড়েছিল।


তিনি আরও জানান,  ঘটনার পর থেকে জঙ্গি ইকবালকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালায় বলে জানায় র‌্যাব। ২০০৮ সালে ইকবালকে গ্রেফতারের জন্য ঝিনাইদহে তার বাড়িতে এবং পরে গাজীপুর ও সাভারসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হয়েছিল। কিন্তু ইকবাল আত্মগোপন করেন। তিনি ঝিনাইদহ, গাজীপুর ও সাভারে নিরাপত্তাকর্মী, শ্রমিক, রিকশাচালকের ছদ্মবেশে দিন কাটান।  ২০০৮ সালে দেশ ছেড়ে পালান।হামলার পর ২০০৮ সালে তিনি বিদেশে পালিয়ে গিয়েছিলেন। ২০২০ সালের শেষ দিকে তিনি দেশে ফেরেন।

ভোরের পাতা-এনই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  ছাত্রদল   হরকাতুল জিহাদ   ইকবাল  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]