রোববার ১৮ এপ্রিল ২০২১ ৫ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: চিত্রনায়ক ওয়াসিম আর নেই    মুজিবনগর সরকার দেশ ও জাতির সৃষ্টির সরকার    আ.লীগ সরকার ইলিয়াস আলীকে গুম করেনি : মির্জা আব্বাস    কাদের মির্জাকে প্রতিহতের ঘোষণা আ.লীগের    হেফাজতের ঢাকা মহানগর সভাপতি হাবীব গ্রেফতার    নিষিদ্ধ হতে পারেন ধোনি!    সৌদির ফ্লাইট রোববার থেকে শুরু   
যে দোয়া পড়লে আল্লাহর আজাব থেকে মুক্তি মিলবে
ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশ: শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:২৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

যে দোয়া পড়লে আল্লাহর আজাব থেকে মুক্তি মিলবে

যে দোয়া পড়লে আল্লাহর আজাব থেকে মুক্তি মিলবে

শুরুতেই কোরআন শরিফ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেছে পড়তে ও জানতে। কোরআন অজ্ঞতাকে অভিহিত করেছে মহাপাপ রূপে। মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছে জ্ঞানের পথে, মুক্তবুদ্ধির পথে। এমনকি বিশ্বাসের স্তরে পৌঁছার জন্যেও মানুষের সহজাত বিচারবুদ্ধির প্রয়োগকেই বেশি গুরুত্ব দিয়েছে কোরআন। বৈষয়িক ও আত্মিক জীবনকেও একই সূত্রে গেঁথেছে কোরআন। সুস্পষ্টভাবেই বলেছে, আল্লাহর বিধান অনুসরণ করো। দুনিয়া ও আখেরাতে তুমি সম্মানিত হবে। বিপথগামী হলে আজাব (শাস্তি) কেমন হবে সেটাও কোরআনে আল্লাহ বলে দিয়েছেন।

যারা সত্য অস্বীকার করেছে, আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের বিরোধিতা করেছে, পাপে নিমজ্জিত হয়ে সত্যের প্রতি কর্ণপাত করেনি তাদেরকেই আল্লাহর আজাব গ্রাস করবে। যারা বিশ্বাসের সঙ্গে সৎকর্ম করেছে কেবল তারাই সব ধরনের সুফল উপভোগ করবে।

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) আল্লাহর আজাব থেকে বাঁচতে নিয়মিত ছোট্ট একটি দোয়া পড়তেন। হাদিসের বর্ণনা থেকে তা সুস্পষ্ট। এটি ছিল উম্মতে মুহাম্মাদির জন্য অন্যতম শিক্ষা। কী দোয়া পড়তেন বিশ্বনবি?

হজরত হুজাইফা ইবনে ইয়ামান রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন যখন নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘুমানোর ইচ্ছা করতেন, তখন তিনি নিজের ডান হাত মাথার নিচে রেখে বলতেন-

اللَّهُمَّ قِنِي عَذَابَكَ يَوْمَ تَجْمَعُ عِبَادَكَ أَوْ تَبْعَثُ عِبَادَكَ

উচ্চারণ: ‘আল্লাহুম্মা ক্বিনি আজাবাকা ইয়াওমা তাঝমাউ ইবাদাকা আও তাবআছু ইবাদাকা।’

অর্থ: ‘হে আল্লাহ! যেদিন তুমি তোমার বান্দাদের একত্রিত করবে অথবা পুনরায় জীবিত করবে; সেদিন আমাকে তোমার আজাব থেকে হেফাজতে রাখ।’ (তিরমিজি)

প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পরকালের আজাব থেকে বাঁচতে যে দোয়া পড়তেন, সে দোয়ায় মুমিন বান্দার জন্য রয়েছে দুনিয়ার আজাব-গজব থেকে বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা ও শিক্ষা।

কেননা আল্লাহ তাআলা তার প্রিয় বান্দাদের পরকালীন জীবনকে সুন্দর করতে দুনিয়ার জীবনকে করবেন গোনাহমুক্ত। আর গোনাহমুক্ত জীবনের অধিকারী ব্যক্তিকে আল্লাহ কখনো আজাব-গজবের সম্মুখীন করবেন না। বরং দেবেন যথাযথ নিরাপত্তা। এটা মহান আল্লাহ তাআলা ঘোষণা।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, দিনের কোনো সময় এ দোয়াটি পড়ার সুযোগ না পেলেও অন্তত ঘুমানের সময় হাদিসের বর্ণনা মোতাবেক ডান হাত মাথার নিচে রেখে এ দোয়াটি বেশি বেশি পড়া।

ভোরের পাতা/ই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]