বুধবার ● ২০ জানুয়ারি ২০২১ ● ৬ মাঘ ১৪২৭ ● ৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
নির্বাচনী মতবিনিময় সভায় প্রার্থীদের অভিযোগের পাহার
বরগুনা প্রতিনিধি
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:২৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

নির্বাচনী মতবিনিময় সভায় প্রার্থীদের অভিযোগের পাহার

নির্বাচনী মতবিনিময় সভায় প্রার্থীদের অভিযোগের পাহার

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে মেয়র, কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মতবিনিময় সভায় পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় তুলেছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীরা একে অপরকে দুষেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় বরগুনা সদর থানা প্রাঙ্গণে এ সভার আয়োজন করে বরগুনা সদর থানা পুলিশ।
সভায় পুলিশ সুপারসহ জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তাও আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।সভায় পুলিশের পক্ষ থেকে আমন্ত্রিত প্রার্থীদের বক্তব্য শোনা হয়। শুরুতে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর রইসুল আলম রিপন বক্তব্য রাখেন। তিনি তার ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী মোশাররফ হোসেন খানের বিরুদ্ধে তার সমর্থকদের ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ তোলেন। বলেন, মোশাররফ হোসেন খান আমার কর্মীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। 
মোশাররফ খান তার বক্তব্যে, পাল্টা রিপনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন। তিনি বলেন, ‘রিপন আমাকে উদ্দেশ করে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। আমি এর প্রতিকার চাই।’

পরে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আবদুল হালিম ও ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা জালাল উদ্দীন বক্তব্য রাখেন। উভয়ই কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ না আনলেও আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশঙ্কা করেন।

এরপর স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেন বক্তব্য রাখেন। তিনি নৌকার মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেন, ‘আমি নির্বাচনে ভীত-সন্ত্রস্ত। আমার প্রচার মাইকের ব্যাটারি ফেলে দিয়েছেন নৌকার কর্মীরা। এ নির্বাচনে আমার জীবন বিপন্ন হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। আমি যে কোনো মুহূর্তে হামলার শিকার হতে পারি। আমার নিরাপত্তা নেই। আমার প্রচারণায় প্রতিনিয়ত বাধা সৃষ্টি করছেন নৌকার প্রার্থীর সমর্থকরা। আমি আপনাদের সহায়তা চাই।’

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) রাতের হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার পোস্টার পুড়িয়ে দিচ্ছিল নৌকা সমর্থকরা। সেখানের সে দৃশ্য ভিডিও করার জন্য আমার কর্মীদের ওপর হামলা হয়। উপরন্তু পুলিশ আমার কর্মীদেরই আটক করে।’

প্রার্থীদের মধ্যে সর্বশেষ বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ। তিনি বলেন, ‘কালো টাকা ব্যবহার করে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেন ভোট কেনার পাঁয়তারা করে আসছেন। গতকাল ৬ নম্বর ওয়ার্ডে মারামারি হয়েছে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে। সেখানে পৌর মেয়র শাহাদাত হামলাকারী প্রার্থীর পক্ষে থানায় এসেছেন। এর শুরুটা কোথায়, এর রহস্যটা কি ?

বুধবার(১৩ জানুয়ারি) রাত ১টার দিকে আশ্রয়ণ থেকে একের পর এক আমার কাছে ফোন এসেছে। নৌকা সমর্থন করার কারণে আমার লোকজনকে মারধর করে ঘর ভাঙচুর করা হয়েছে। 

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) শহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-বরগুনা পুলিশ সুপার  মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর মল্লিক ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা নির্বাচন অফিসার দিলীপ কুমার হাওলাদার, বরগুনা সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মেহেদি ও বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  কে এম তারিকুল ইসলাম প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর মল্লিক বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আমরা বদ্ধপরিকর। নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় যথাযথ ব্যবস্থা নেব। আপনারা আমাদের সহযোগিতা করুন। আপনাদের সহনশীলতা আমাদের সবার জন্য কল্যাণকর। সবাই মিলে একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রেখে সুষ্ঠ নির্বাচনের উদাহরণ সৃস্টি করতে চাই।

প্রার্থীদের অভিযোগ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার বলেন, ‘আপনাদের সবার বক্তব্য আমরা নোট নিয়েছি। প্রতিটি বিষয়েই পুলিশ খোঁজ নিয়ে আইনি পদক্ষেপ নেবে।’








আরও সংবাদ
https://www.dailyvorerpata.com/ad/BHousing_Investment_Press_6colX6in20200324140555 (1).jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/431205536-ezgif.com-optimize.gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/agrani.gif
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]