ভালুকায় ফোরলেন মহাসড়কের পাশে ময়লার স্তূপ, উৎকট গন্ধ হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য

:: মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, ময়মনসিংহ (ভালুকা) প্রতিনিধি ::

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের মায়ের মসজিদ হইতে আমতলী পর্যন্ত ময়লার স্তূপ। ‘নাক চেপে ধরে এক শত গজ পথ চলতে দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। ছাড়লেই দুর্গন্ধে পেট ফেঁপে যায়। ওই টুকু রাস্তা অতিক্রম করা মানেই জীবন হাতে নিয়ে যাওয়া’।

এমন মন্তব্য একজনের নয়, শত শত মানুষের। বিশেষ করে যারা ঢাকা ময়মনসিংহ রুটে যাতায়ত করেন।
পথচারী ও স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের মায়ের মসজিদ হইতে আমতলী পর্যন্ত মহাসড়কের পাশে ময়লা-আবর্জনা বর্জ্য ফেলা হয়। অনেক বছর ধরে ওই এলাকায় ময়লা ফেলা হচ্ছে। ময়লা-আবর্জনা আর বর্জ্যরে উৎকট দুর্গন্ধ আর বিপন্ন পরিবেশের কারণে ওই রাস্তাটি দিয়ে চলাচল সম্ভব হচ্ছেনা।

প্রতিদিন রিক্সা, ভ্যানগাড়ী ও  ট্রাকে করে বিভিন্ন বাজারের অলিগলি থেকে সংগ্রহ করা বর্জ্য সেখানে ফেলা হচ্ছে। ভোর থেকে দুপুর ও রাতের আঁধারে এসব বর্জ্য ফেলার সময় দুর্গন্ধে বাতাস দূষিত হয়ে পড়ে। কাকপীরা সেখান থেকে উচ্ছিষ্ট নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তায় চলাচলকারী জনতা ও যানবাহনের ওপর পড়ে। এতে রাস্তায় ময়লা-আবর্জনা ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি পথচারীর শরীরে পড়ায় জামা-কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। আশপাশের শতাধিক পরিবার একই অবস্থার মুখোমুখি বছরের পর বছর ধরে। সারা দিনই পশুপাখির উৎপাতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। দুর্গন্ধে এলাকার পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। মহাসড়কের পাশে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ থাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ জনগুরুত্বপূর্ণ রুটে চলাচলকারী যানবাহনের যাত্রীরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। তারা নাক চেপে ধরে কোনো রকমে পথ অতিক্রম করতে বাধ্য হচ্ছেন। দুর্গন্ধ সইতে না পেরে অনেকেই বমি করেন।

একাধিক অভিভাবক জানান, পাশেই স্কুল ও মাদরাসার কয়েক’শ ছাত্রছাত্রী দুর্গন্ধের মধ্যেই লেখাপড়া করতে বাধ্য হচ্ছেন। কাছাকাছি স্কুল বা মাদরাসা থাকায় এবং দুর্গন্ধের কারণে শিশুসন্তানদের স্কুলে লেখাপড়া করানো সম্ভব হচ্ছে না। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষের কাছে সাধারণ মানুষের দাবী।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here