এবার তারেক রহমানের স্ত্রীর সঙ্গে দ্বন্দ্বে  জড়ালেন ফখরুল!

ভোরের পাতা ডেস্ক
বিএনপির নেতা-কর্মীদের কাছে বগুড়া-৬ (সদর) জিয়া পরিবারের জন্য সংরক্ষিত আসন হিসেবে পরিচিত। ১৯৯১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত টানা চারবার এখানে সাংসদ হয়েছেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তবে দুর্নীতির মামলায় সাজা হওয়ায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের প্রার্থীতা নিয়ে সংশয় রয়েছে।
যার ফলে বিএনপির নেতৃত্ব নিয়েও সংশয় তৈরি হয়েছে। বিএনপির এক পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, মির্জা ফখরুল দলের প্রধান করে আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে। অপরপক্ষ বলছে জোবায়দাই যোগ্য প্রার্থী।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির বয়জোষ্ঠ্য এক নেতা বলেন, বর্তমানে জিয়ার সৈনিকের পূর্ণাঙ্গ দাবিদার হিসেবে বিবেচনা করতে হলে প্রথমে যার নাম উচ্চকণ্ঠে প্রলম্বিত হবে তিনি হচ্ছেন মির্জা ফখরুল। কারণ খালেদা জিয়া কারাবাসে রয়েছেন। আর তারেক রহমান জেলে রয়েছেন। আমি মনে করি তাদের পরে এ দলের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দাবিদার হচ্ছেন মির্জা ফখরুল, জোবায়দা নয়। কারণ বর্তমান বাংলাদেশের রাজনীতি কঠিনতর অবস্থায় রয়েছে। এই রাজনীতির মার পেচ জোবায়দা বা কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমানের বোধগম্য হবে না। ফলে দলের পূর্ণাঙ্গ হাল ধরতে হলে মির্জা ফখরুলকেই এগিয়ে আসতে হবে।

তবে উক্ত নেতার কথা হাওয়ায় মিলিয়ে দিয়ে জিয়া পরিবারপন্থী এক নেতা বলেন, জিয়া পরিবারের কাউকে ছাড়া বিএনপির মুকুট অন্য কারো মাথায় শোভা পাবে না। একটি দেশের গণতন্ত্র টিকিয়ে রাখতে হলে বংশ পরম্পরায় জোবায়দা বা শর্মিলা রহমানই হবেন দলের প্রধান।

অবস্থা দেখে ব্যাখ্যা করা যাচ্ছে যে বর্তমান বিএনপি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এক পক্ষ চাচ্ছে আগামী নির্বাচনে পারিবারিকভাবে জোবায়দাকেই দলের প্রধান হিসেবে আখ্যায়িত করা হোক। অপরপক্ষ চাচ্ছে মির্জা ফখরুলকে দলের প্রধান করা হোক। যেখানে দলীয় কোন্দলে জর্জরিত বিএনপি, সেখানে সাধারণ মানুষ তাদের ওপর আস্থা রাখতে পারবে না বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here