আলুর খোসা ফেলে দেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ নয়

:: ভোরের পাতা অনলাইন ::

শরীর সুস্থ রাখতে গেলে প্রত্যেকদিন ফল, শাক সবজি খাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আলু হলো এমন একটি সবজি যা ছাড়া বাঙালির চলেই না। তাই আমাদের দেশে ভাতের পরেই আসে আলুর নাম। আলুতে ভিটামিন 'এ', 'বি' ও 'সি' আছে।

এছাড়াও আলুর খোসাতে আছে ভিটামিন 'এ', পটাশিয়াম, আয়রন, অ্যান্টি-অক্সাইড, ফাইবারসহ প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট। তরকারিতে, মাছের ঝোলে, মাংসে এমনকি বিরিয়ানিতেও আলু না হলে চলে না। তবে আলু খেলেও আমরা বেশিরভাগ সময়ই আলুর খোসা ফেলে দিই। কিন্তু আদৌ কী সেটা করা উচিত?

তবে আলু খেলেও আমরা বেশিরভাগ সময়ই এর খোসাটা ফেলে দিই। যা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়। কেননা পরীক্ষায় প্রমাণ হয়েছে যে আলুর খোসায় একাধিক পুষ্টিগত গুণ রয়েছে। আলুর খোসা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। তাই রান্নায় আলু দেওয়ার সময় খোসাসহ আলু দিন।

আসুন জেনে নেই আলুর খোসার পুষ্টিগুণ:

১. আলুর খোসায় প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম এবং মিনারেল রয়েছে। যা শরীরের রাসায়ানিক প্রক্রিয়াকে উন্নত করে। পটাশিয়াম আমাদের স্নায়ুতন্ত্রকে সচল রাখার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকারি।

২. আমাদের প্রতিদিন অন্ততপক্ষে ১৬ মিলিগ্রাম করে নিয়াসিন শরীরের জন্য প্রয়োজন। আর এই নিয়াসিন পাওয়া যাবে আলুর খোসা থেকে। যা আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

৩. আলু থেকে আমরা প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল এবং কার্বোহাইড্রেট পাই। আলুর খোসা থেকেও একই উপাদান পাওয়া যাবে। সুতরাং আলুর খোসা না ছাড়িয়ে খেলে এই প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল এবং কার্বোহাইড্রেট আরো বেশি করে পাওয়া যাবে। যা শরীরকে আরো শক্তিশালী ও রোগ প্রতিরোধক করবে।

৪. আয়রন হলো শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। আয়রণ রক্তের কণিকার স্বাভাবিক কার্যপ্রণালীকে সক্রিয় রাখার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। প্রত্যেকদিন ৩-৫টি খোসা আমাদের শরীরকে ৪ মিলিগ্রাম লোহা বা আয়রনের জোগান দেবে।

৫. যাদের হজমশক্তি দুর্বল তাদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে আলুর খোসা খাওয়া অত্যন্ত উপকারী। কারণ আলুর খোসায় প্রচুর পরিমানে ফাইবার আছে। ফাইবার আমাদের শরীরের হজমশক্তি বৃদ্ধি করে। আলুর খোসা গুরুপাক খাবারও সহজে হজম করতে সাহায্য করে।

৬. আলুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকার ফলে হজমশক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি আরো একটি উপকার হয়। আর তা হলো শরীরের অতিরিক্ত গ্লুকোজ শুষে নেয় আলুর খোসা ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। যদিও ডায়বেটিসে আলু খেতে মানা করে। তবে আলু যদি খোসা সমেত সিদ্ধ করে পানি ফেলে দিয়ে রান্না করা হয় বা খাওয়া হয় তাতে খুব একটা ক্ষতি হয় না।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here