১৪ লাখ প্রতিবন্ধী শিশুকে ভাতা দেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী

  • ৩-Apr-২০১৯ ০১:১৬ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয় বলে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আগামী বাজেটে দেশের ১৪ লাখ প্রতিবন্ধীদের ভাতার আওতায় আনা হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অটিজমে আক্রান্ত শিশুরা সমাজের বোঝা নয়। প্রত্যেক প্রতিবন্ধী ভাতা দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধীদের অধিকার সুরক্ষায় কাজ করছে। দেশে কোনো শ্রেণির মানুষ অবহেলিত থাকবে না সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে সরকার। একইসঙ্গে অটিস্টিকসহ সব ধরনের প্রতিবন্ধী মানুষের অধিকার অর্জনে সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।’
 
 ২ এপ্রিল, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ১২তম বিশ্ব অটিজম দিবসের কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিনি এ কথা বলেন। অটিজম দিবসের এবারের স্লোগান ‘সহায়ক প্রযুক্তির ব্যবহার অটিজম বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন ব্যক্তির অধিকার’।প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথম উদ্যোগ নিয়েছিলেন। খেলাধুলা ও শিক্ষাক্ষেত্রসহ প্রতিবন্ধীদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। এমনকি প্রতিটি বিভাগ ও মেডিকেল কলেজে প্রতিবন্ধী পরিচর্যা কেন্দ্র করা হবে।’ এসময় তিন ক্যাটাগরিতে ১১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হাতে সম্মাননা তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মেয়েদের এবং বগুড়ায় ছেলেদের জন্য অটিজম পরিচর্যা কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হয়েছে। ভবিষ্যতে দেশের প্রতিটি বিভাগে অটিজম পরিচর্যা কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। সম্ভব হলে প্রতিটি জেলায় এসব কেন্দ্র করে দেব। কারণ অটিজম আক্রান্ত বা প্রতিবন্ধী ছেলে-মেয়েদের নিয়ে তাদের বাবা-মার একটা চিন্তা থাকে। তাদের সেই চিন্তা দূর করার জন্য আমরা এ উদ্যোগ নিচ্ছি। আর এ সংক্রান্ত ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে তাদের সহায়তা করব। সেক্ষেত্রে বিত্তশালীদের বলব, ফান্ডে আপনারা অনুদান দিতে পারেন।
 
এক সময় অটিজম ছিল একটি অবহেলিত জনস্বাস্থ্য ইস্যু। এ সম্পর্কে সমাজে নেতিবাচক ধারণা ছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কন্যা ও স্কুল সাইকোলজিস্ট সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের নিরলস প্রচেষ্টায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অটিজম বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে। তিনি ২০০৭ সালে এ বিষয়ে দেশে কাজ শুরু করেন। সায়মা ওয়াজেদ এ অবহেলিত জনস্বাস্থ্য ইস্যুতে তার বিরাট অবদানের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্বীকৃতি পেয়েছেন।

অটিজমে আক্রান্ত শিশু ও বয়স্কদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে সহায়তার প্রয়োজনীয়তাকে তুলে ধরতে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ২০০৭ সালে ২ এপ্রিলকে ‘বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস’ হিসেবে পালনের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর থেকে প্রতি বছর দিবসটি পালন করা হচ্ছে।

Ads
Ads