সমকামিতার শাস্তি প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড!

  • ২-Apr-২০১৯ ১০:৪০ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

সমকামিতা ছড়িয়ে পড়ছে মহামারি আকারে। সমকামিতা পৃথিবীর সব ধর্মে নিষিদ্ধ। পৃথিবীর ইতিহাসে অনেক জাতি এ অপরাধের কারণে ধ্বংস হয়ে গেছে। ধ্বংসের পথে চলছে পশ্চিমা বিশ্ব। পশ্চিমা বিশ্বের নির্লজ্জ সমকামিতা দেশগুলোর চারিত্রিক অধঃপতনের কারণ।

পশ্চিমাদের এই বিকৃত ও মানসিক বিকারগ্রস্ত এই যৌন সম্পর্ক নিয়ে কঠোর শাস্তির ঘোষণা করলো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মুসলিম দেশ ব্রুনাই। শুধু মৃত্যুদণ্ড নয়, দণ্ডের বীভৎসতা জনসমক্ষে তুলে ধরতে পাথর ছুঁড়ে ক্ষতবিক্ষত করতে করতে মারা হবে যুগলকে। পাথর ছোড়ার এই শাস্তি দাঁড়িয়ে দেখবে সে দেশের মানুষ।

৪ লক্ষের কাছাকাছি জনসংখ্যার এই দেশটি ইসলামি শরিয়ত আইনের কঠোর বিধি মেনে চলে। যাবতীয় আইনকানুনের মাথা সে দেশের সুলতান হাসানল বোলকিয়া। ১৯৬৭ সাল থেকে মসনদে রয়েছেন তিনি। সম্প্রতি সমকামিতা নিয়ে এমন আইন জারি করেছেন হাসানল। শুধু সমকামিতা নয়, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের ক্ষেত্রেও দেওয়া হবে কঠোর শাস্তি।

আগামী ৩ এপ্রিল থেকে দেশে কার্যকর হবে এমন আইন। সমকামিতা এবং বিবাহ বহির্ভুত সম্পর্ক রোধ করতেই এই আইন কার্যকরী করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন হাসানল। 

ব্রুনেইয়ের প্রশাসন সূত্রে খবর, এই আইনটি প্রণয়নের কথা প্রথম ঘোষণা করা হয় ২০১৪ সালে। পরে ২০১৮ সালে ব্রুনেইয়ের একটি সরকারি ওয়েবসাইটে পাথর ছুঁড়ে মৃত্যুদণ্ডের কথা ফলাও করে লেখা হয়। 

মদ এমনিতেই নিষিদ্ধ ব্রুনেইতে। চুরি বা ডাকাতির শাস্তি হিসেবে অঙ্গচ্ছেদের বিধানও আছে দেশে। এবার তার সঙ্গে যুক্ত হল সমকামিতা। শরিয়তি বিধি মেনে এমন আইন শুধু ব্রুনাইতেই নয়, রয়েছে তার প্রতিবেশী দেশ ইন্দোনেশিয়াতেও। ২০০১ সালে ইন্দোনেশিয়ায় জুয়া, মদ কিংবা সমকামে জড়িত থাকাকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে ঘোষণা করা হয়।

Ads
Ads