টাঙ্গাইলে উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা

  • ২-Apr-২০১৯ ০১:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: আব্দুস সাত্তার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ::

পঞ্চম ধাপে চতুর্থ পর্যায়ের নির্বাচনে রোববার টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।১২টি উপজেলার ৮ টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা নৌকা, ৩ টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী এবং ১.টিতে বিএনপির বহিস্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছে।টাঙ্গাইলের গোপালপুর,ধনবাড়ী ও মধুপুর উপজেলায় ৩জন আ’লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে। রোববার (৩১ মার্চ) রাতে উপজেলা পর্যায়ের চেয়ারম্যান প্রার্থী, সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তাগণ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন :-

টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আনছারী (নৌকা) প্রতিক নিয়ে ৫৯,৯৬৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি বহিষ্কৃত টাঙ্গাইল সদর উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী (ঘোড়া) প্রতিক নিয়ে ৩৭,৭৯৫ ভোট পেয়েছেন ।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ৩ লাখ ৮০ হাজার ৩৩৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৮৮ হাজার ৫৭৩ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ৯১ হাজার ৭৬৫ জন। মোট কেন্দ্র ১২৭টি।

কালিহাতী উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করলেও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনছার আলী (আনারস) প্রতিক নিয়ে ৬৬,০২৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোজহারুল ইসলাম তালুকদার (নৌকা) প্রতিক নিয়ে ২৭,৮৪৯ ভোট পেয়েছেন ।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ৩ লাখ ১২ হাজার ১১২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লাখ ৫৫ হাজার ৪০৫ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৭০৭ জন। মোট ভোট কক্ষ ৬২০ টি ও মোট কেন্দ্র ১০৮ টি।

মির্জাপুর উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী মীর এনায়েত হোসেন মন্টু (নৌকা) নিয়ে ৬৮,৮৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা বিএনপি সদস্য (পদত্যাগপ্রাপ্ত) ফিরোজ হায়দার খান (মোটরসাইকেল) প্রতিক নিয়ে ৪১,৪৯৯ ভোট পেয়েছেন ।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ৩ লাখ ২২ হাজার ৭৪৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৩৬ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ৬২ হাজার ৮১২ জন। মোট ভোট কক্ষ ৭৯৫ টি ও মোট কেন্দ্র ১২০টি।

ঘাটাইল উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা আওয়ামী লীগের প্রার্থী শহিদুল ইসলাম লেবু ( নৌকা) প্রতিক নিয়ে ৬৪,১০৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আরিফ হোসেন ( আনারস) প্রতিক নিয়ে ২৯,৮৮৭ ভোট পেয়েছেন ।

এ উপজেলায় মোট ভোটার ৩ লাখ ১৩ হাজার ৬০৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৫ হাজার ২২২ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ৫৮ হাজার ৩৮৩ জন। মোট ভোট কক্ষ ৭৫৫ টি ও মোট কেন্দ্র ১১৭টি।

ভূঞাপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল হালিম (নৌকা) ২০,৬৮০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমিরুল ইসলাম তালুকদার (মোটরসাইকেল) প্রতিক নিয়ে ১৫৯১৪ ভোট পেয়েছেন ।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৪৬ হাজার ৩৬২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭৪ হাজার ১১৯ জন ও মহিলা ভোটার ৭২ হাজার ২৪৩ জন। মোট ভোট কক্ষ ৩৫৬ টি ও মোট কেন্দ্র ৫৭ টি।

সখীপুর উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী জুলফিকার হায়দার কামাল (নৌকা) প্রতিকে ৫০,০৯১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু সাইদ মিয়া (আনারস) প্রতিকে ৩৬,৪৩৬ ভোট পেয়েছেন।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ১২ হাজার ৯৮৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৩১ হাজার ৭৫ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ৯৮ হাজার ১২ জন। মোট ভোট কক্ষ ৫২৪ টি ও মোট কেন্দ্র ৬৯ টি।

দেলদুয়ার উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৩ প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাহমুদুল হাসান (আনারস) প্রতিক নিয়ে ২৬,৯৯০ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফজলুল হক (নৌকা) প্রতিক নিয়ে ১৫,৮৫৭ ভোট পেয়েছেন ।

এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৬১ হাজার ৩৯৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮০ হাজার ৪৮২ জন ও মহিলা ভোটার ৮০ হাজার ৯১৪ জন। মোট ভোট কক্ষ ৩২৭ টি ও মোট কেন্দ্র ৫৬টি।

ধনবাড়ী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হারুনার রশিদ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৪২ হাজার ১৪০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৯ হাজার ৬৪৮ জন ও মহিলা ভোটার ৭২ হাজার ৪৯২ জন। মোট ভোট কক্ষ ৩৫০ টি ও মোট কেন্দ্র ৫৬টি।

মধপুর উপজেলায় চেয়ারমান পদে এ উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছরোয়ার আলম খান আবু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ২২ হাজার ৯২৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৯৪ হাজার ১৬ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ১৩ হাজার ৫০৯ জন। মোট ভোট কক্ষ ৫২১ টি ও মোট কেন্দ্র ৮৩টি।

গোপালপুর উপজেলায় চেয়ারমান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুছ ইসলাম তালুকদার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছে।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ২২ হাজার ৮৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লাখ ১০ হাজার ৯৫ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ১১ হাজার ৯৩ জন। মোট ভোট কক্ষ ৫১৬ টি ও মোট কেন্দ্র ৭৫ টি।

বাসাইল উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করলেও আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম (আনারস) প্রতিক নিয়ে ৩৫,৩৬১ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী হাজী মতিয়ার রহমান গাউস (নৌকা) প্রতিক নিয়ে ১৩,৫৮৮ ভোট পেয়েছেন ।

এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭৪২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৫ হাজার ৩২৩ জন ও মহিলা ভোটার ৬৮ হাজার ৪১৯ জন। মোট ভোট কক্ষ ৩৪১ টি ও মোট কেন্দ্র ৫৩ টি।

নাগরপুর উপজেলায় চেয়ারমান পদে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুছ ছামাদ দুলাল (ঘোড়া) প্রতিক নিয়ে ৩৫,৮৪৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগের প্রার্থী কুদরত আলী (নৌকা) প্রতিক নিয়ে ২৮,৩৭২ ভোট পেয়েছেন ।
এ উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ২৯ হাজার ৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৬১ জন ও মহিলা ভোটার ১ লাখ ১৫ হাজার ৪৯৩ জন। মোট ভোট কক্ষ ৬০৫ টি ও মোট কেন্দ্র ৮৫টি।

Ads
Ads