ক্রিকেটারদের নিরাপত্তায় বিসিবির উদাসীনতা অপরাধের সামিল

  • ১৬-মার্চ-২০১৯ ০৫:১০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ড. কাজী এরতেজা হাসান ::

আজকের (১৫ মার্চ) দিনটা বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচে দুঃখের দিন হতে পারতো। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে এমনটা হয়নি। খুব সকালে ঘুম থেকে উঠেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অনলাইন পত্রিকায় দেখলাম নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভাল মাঠের খুব কাছের একটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। এতে সামান্যের জন্য বেঁচে গিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। দলের খেলোয়াড়েরা ওই মাঠেই অনুশীলন করছিলেন। অনুশীলন শেষে তারা মসজিদটিতে জুমার নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন। তবে তারা মসজিদে প্রবেশের আগেই সেখানে হামলা চালায় বন্দুকধারী সন্ত্রাসী। আশপাশের মানুষদের দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করতে দেখেন খেলোয়াড়রা।

হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মসজিদে বেশ কয়েকজনকে লুটিয়ে পড়তে দেখেছেন এক প্রত্যক্ষদর্শী। সর্বশেষ পাওয়া খবরে জানা গেছে, গুলিতে ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। যেখানে তিনজন বাংলাদেশিও রয়েছেন। 

অল্পের জন্য রক্ষা পাওয়া ক্রিকেটারদের ভয়ার্ত ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে এসেছে। সেই থেকে তাদের অতিদ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি উঠেছে। তাদের ফিরিয়ে আনতে সক্রিয় হয়েছে সরকার। আশা করছি খুব দ্রুতই নিরাপদে দেশে ফিরবেন বাংলাদেশে টাইগাররা। 

প্রশ্ন উঠেছে, বিদেশে গেলে ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) কেন উদাসীন? এই উদাসীনতা যে কতবড় অপরাধের সামিল তা বিসিবির কর্তাব্যাক্তিরা এখনো বুঝতে পারছেন না। অন্যদেশের ক্রিকেটাররা বাংলাদেশ সফরে আসলে তাদের ভিভিআইপি নিরাপত্তা দেয়া হয়। এক্ষেত্রে কোনো ক্রিকেটার যদি খেলার বাইরেও হোটেল থেকে কোথাও যেতে চান, সেখানেও নিরাপত্তা থাকে। তবে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা বিদেশ সফরে গেলে কেন তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়না? এ প্রশ্নের উত্তর খোদ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকেই দিতে হবে। 

আজ যদি কোনো কারণে বাংলাদেশের কোনো ক্রিকেটার নিহত হতেন তাহলে এর দায়ভার কে নিত? এই প্রশ্ন এখন দেশের ১৭ কোটি মানুষের। বাংলাদেশের একজন ক্রিকেটার যেখানেই যাক না কেন তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব বিসিবির। সেক্ষেত্রে ওই দেশের বোর্ডের সাথে বিসিবির নিরাপত্তা বিভাগের লোকজনের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করা উচিত। গত ১ মাসেরও বেশি সময় ধরে নিউজিল্যান্ডে খেলছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। কেন ক্রিকেটারদের নিরপত্তা পুরোপুরি নিশ্চিত করা হলো না, এ প্রশ্নের জবাবও বিসিবিকে দিতেই হবে। 

১৭ কোটি মানুষের ভালোবাসার প্রিয় ক্রিকেটারদের নিরাপত্তায় আর কোনো ধরণের গাফিলতি ভবিষ্যতে দেখতে চাই না। এখনই বিসিবির এ বিষয়ে অবস্থান পরিষ্কার না করলে এদেশের তরুণরা বসে থাকবে না। তারা অবশ্যই তীব্রতর আন্দোলন গড়ে তুলবে। তাই বিসিবির উচিত এ ঘটনায় তদন্ত করে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের কাছে ব্যাখ‌্যা দাবি করা। 

ক্রিকেটপাগল জাতি হিসাবে আমাদের ক্রিকেটাররা সুস্থ আছেন এই ভেবে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারছি। কিন্তু ভবিষ্যতে যে এমন অবস্থা হবে না তার নিশ্চয়তাও আমাদের দিতে হবে। 

লেখক: সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক ভোরের পাতা ও দ্যা পিপলস টাইমস এবং ভাইস চেয়ারম্যান, রংপুর রাইডার্স

Ads
Ads