আজ আখেরি মোনাজাত

  • ১৬-ফেব্রুয়ারী-২০১৯ ১০:৪০ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে চলছে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমা। দেশ-বিদেশের লাখো মুসলমানের কণ্ঠে আল্লাহ আকবর ধ্বনিতে মুখর তুরাগ তীর। আজ আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ জমায়েতের দ্বিতীয় দিন

তাবলিগ জামাত বাংলাদেশের শূরা সদস্য ও কাকরাইল মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ জোবায়ের আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন। এর আগে হেদায়েতি বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা আবদুল মতিন। সকাল ১০টা থেকে ১০.৩০টার মধ্যে মোনাজাত হবে।

চার দিনের এবারের ইজতেমায় সোমবার দ্বিতীয় ধাপে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে ২০১৯ সালের কার্যক্রম শেষ হবে। 

 

বিশ্ব ইজতেমার ইতিহাসে এবারই প্রথম আখেরি মোনাজাত করছেন একজন বাংলাদেশি। এ কারণে মোনাজাত আরবি ও বাংলা ভাষায় হবে বলে আশা করছেন অনেকেই। এতদিন তা আরবি ও উর্দু ভাষায় হয়ে আসছিল। শেষ দশকে ভারতের মাওলানা জোবায়ের, শেষ দুই বছরে মাওলানা সাদ কান্ধলভী আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেছিলেন। এছাড়া প্রায় এক দশক ধরে হেদায়েতি বয়ান করে আসছিলেন মাওলানা সাদ। হেদায়েতি বয়ান ও মোনাজাত বাংলায় হলে সেটি হবে বিশ্ব ইজতেমার ইতিহাসে প্রথম।

প্রসঙ্গত, দেশ-বিদেশের বিপুলসংখ্যক মুসল্লি যোগ দিয়েছেন মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহৎ এ ধর্মীয় সমাবেশে। এবার দেশের ৬৪ জেলার তবলিগ অনুসারীরা চার দিনকে দুই ভাগে ভাগ করে অংশগ্রহণ করছেন। ইজতেমাকে সর্বাত্মকভাবে সফল করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক নজরদারি ও প্রশাসনের তরফ থেকে নেয়া হয়েছে বিভিন্ন ধরনের প্রস্তুতি। বিশ্ব ইজতেমা ময়দান ও আশপাশে স্থায়ী সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে।

অন্যান্য বছরের মতো এবারো সমবেত লাখ লাখ মুসল্লির উদ্দেশ্যে তবলিগের ছয় উসূল অর্থাৎ কালেমা, নামাজ, এলেম ও জিকির, একরামুল মুসলিমিন, সহীহ নিয়ত ও তবলিগ ইত্যাদি বিষয়ে আম বয়ানের মাধ্যমে শুক্রবার ফজরের নামাজের পর ইজতেমার প্রথম দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

Ads
Ads