ইজ্জত বাঁচাতে চলন্ত বাস থেকে লাফিয়ে প্রাণ গেল গৃহবধূর

  • ২৮-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

ভোরের পাতা ডেস্ক

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে দুষ্কৃতিকারীদের কাছ থেকে সম্ভ্রম বাঁচাতে চলন্ত বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে গার্মেন্টস কর্মী শিউলী বেগমের (২৮) মৃত্যুর ঘটনায় দুই দিনেও তদন্ত শুরু করেনি পুলিশ। এদিকে পুলিশের এই নিষ্ক্রিয়তার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিউলীর পরিবারের লোকজন। 

শুক্রবার বাদ এশা জানাজা শেষে পুষ্টকামুরী কবরস্থানে শিউলীর লাশ দাফন করা হয়। অন্যদিকে শিউলীর দুই শিশু সন্তান মাকে না পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছে। 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় একটি বাসযোগে শিউলী তার কর্মস্থল গোড়াই শিল্পাঞ্চলের কমফিট কম্পোজিট গার্মেন্টসে যাওয়ার জন্য একটি বাসে উঠেন। বাসে উঠার প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে মহাসড়কের বাওয়ার কুমারজানী নামক স্থানে পৌঁছার পর যাত্রী বেশী কয়েকজন দুর্বৃত্ত শিউলী বেগমের শ্লীলতাহানির চেষ্টা করলে বাসের জানালা দিয়ে মাথা বের করে চিৎকার করতে থাকেন তিনি। এক পর্যায়ে দুষ্কৃতিকারীদের কাছ থেকে বাঁচতে শিউলী বেগম চলন্ত বাস থেকে লাফ দিলে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যান। ঘটনার দুইদিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ বাস এবং অপরাধীদের চিহ্নিত করতে পারেনি বলে তার পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেছেন। ওই বাসটিতে মাত্র দুই তিনজন লোক ছিল বলে প্রত্যাক্ষদর্শী শিউলীর গ্রামের হান্নান মিয়া এবং চায়না বেগম জানিয়েছেন। 

তবে সন্ধ্যার পর নিহত শিউলীর স্বামী শরীফ খান মির্জাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানা গেছে। এদিকে শিউলীর দুই শিশুপুত্র সিফাত এবং তাওহিদ মায়ের জন্য কান্নাকাটি করছে। 

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মিজানুল হক বলেন, এ বিষয়ে এখনো কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ আসলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Ads
Ads