বিএনপির ইশতেহারে ১৯ দফা

  • ১৮-Dec-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিসহ তরুণ প্রজন্মকে অগ্রাধিকার দেওয়ার পাশাপাশি বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণসহ ১৯ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)।ইশতেহারে প্রতিহিংসা ও প্রতিশোধের রাজনীতির দূর করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে দলটি।

মঙ্গলবার (১৮ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর গুলশানে লেকসোর হোটেলে ‘সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে' এই স্লোগান নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ইশতেহার ইশতেহার পাঠ করছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ইশতেহারে বলা হয়েছে, ক্ষমতায় গেলে শিক্ষাখাতে জিডিপির ৫ শতাংশ ব্যয় করা হবে। একইসঙ্গে একটি পৃথক শিক্ষা চ্যানেল চালু করা হবে ও এক কোটি নতুন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। আর কর্মসংস্থান না হওয়া পর্যন্ত বেকার ভাতা দেওয়ার কথাও ইশতেহারে বলেছে দলটি। প্রতিহিংসা ও প্রতিশোধের রাজনীতির বিপরীতে ভবিষ্যৎমুখী এক নতুন ধারার রাজনৈতিক সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার করার জন্য নতুন এক সামাজিক চুক্তিতে পৌছাতে একটি জাতীয় কমিশন গঠন করা হবে। এই কমিশনের সদস্য থাকবেন সংসদে সরকারি দলের নেতা, বিরোধী দলের নেতা এবং সর্বজন শ্রদ্ধেয় জাতীয় ব্যক্তিত্ব।

আরও বলা হয়েছে, ব্যক্তির বিশ্বাস-অবিশ্বাস এবং দলীয় আনুগত্যকে বিবেচনায় না নিয়ে কেমলমাত্র সততা, ক্ষমতায় গেলে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানিত নাগরিক, যুব, নারী ও শিশু, শিক্ষা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি, তথ্য ও প্রযুক্তি, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি, বৈদেশিক ও প্রবাসী কল্যাণ, কৃষি ও শিল্প, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা, প্রতিরক্ষা ও পুলিশ, আবাসন, পেনশন ফান্ড ও রেশনিল ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা, পরিবেশ, পররাষ্ট্র ও ক্ষুদ্র, নৃগোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের কল্যাণে কাজ করা হবে। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস-চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. সুকোমল বড়ূয়া, গোলাম আকবর খন্দকার প্রমুখ।

 

/কে

Ads
Ads