ঢাকায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জনসভা ২ নভেম্বর

  • ২৯-Oct-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

সিলেট ও চট্টগ্রামের পর এবার ঢাকায় আগামী ২ নভেম্বর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে জনসভার ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ ঘোষণা দেন।

সোমবার (২৯ অক্টোবর) সকালে রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই কর্মসূচির ঘোষণা দেন।

রিজভী বলেন, আগামী শুক্রবার বেলা দুইটা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোগে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় (ভিআইপি রোড) জনসভা অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, দলনিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন নিশ্চিতের জন্য আন্দোলনে আমাদের ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন হলে ভোটারদের ভোটাধিকারের কবর রচিত হবে। গণতন্ত্র হত্যাকারী শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ মানেই তা হবে স্বেচ্ছায় গণতন্ত্রের মৃত্যু ডেকে আনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনা করে রিজভী বলেন, শেখ হাসিনা কখনোই সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন করতে দেন না। তার কারণ, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিনি ক্ষমতার মসনদ থেকে ছিটকে পড়বেন। এই ভয়ে দীর্ঘস্থায়ীভাবে ক্ষমতায় থাকতে জালিয়াতির নির্বাচনেই তিনি উৎসাহী। ইভিএম জালিয়াতির নির্বাচনের প্রমাণিত যন্ত্র। সে জন্য এই জালিয়াতির যন্ত্রই শেখ হাসিনার একমাত্র ভরসা।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, আ. লীগ মুক্তিযোদ্ধা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর ওপর হানাদারি আক্রমণ শুরু করেছে। তারা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জায়গা-জমি দখল করতে দলীয় মাস্তানদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে।'

তিনি বলেন, র‌্যাবের গুলিতে পা হারানো গণবিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র লিমনের হাত-পা ভেঙে দিয়েছে আওয়ামী ক্যাডাররা। আশুলিয়ায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পিএইচএ ভবনে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট, কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবন, ছাত্রী হোস্টেল ও গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালসে হামলা একটি রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস, এটি সরকারের প্রত্যক্ষ মদদেই হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল খান, সহ- দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গণফোরাম সভাপতি ড. কামালের নেতৃত্বে নতুন রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন হওয়ার পর গত বুধবার সিলেটে প্রথম সমাবেশ হয়। নগরের তালতলার রেজিস্টারি মাঠে ওই সমাবেশ হয়। এরপর গত শনিবার চট্টগ্রামে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জনসভা হয়। শহরের কাজীর দেউড়িতে ওই জনসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ড. কামাল হোসেন। বিএনপির চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে সভার প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

/ই

Ads
Ads