এখন দেখছি নালিশ আর নালিশ, চলছে গোপন বৈঠক

  • ১১-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

সামনে সময় ভালো নয় জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতা ও সরকারের মন্ত্রীদের পরামর্শ দিয়ে বলেন, “ভাসন না দিয়ে কাজে মনযোগ দিন।”

শনিবার (১১ আগস্ট) দুপুরে ধানমন্ডী ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের শোক দিবসের আলোচনা সভায় এ পরামর্শ দেন তিনি।

দলীয় নেতা ও মন্ত্রীদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কথা স্বরণ করিয়ে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “বঙ্গবন্ধু একবার আক্ষেপ করে বলেছিলেন, মন্ত্রীরা বিদেশ যেতে চায়। নেতারা কথা বেশি বলে কাজ তেমন করে না। 
“বর্তমান নেতাদের বঙ্গবন্ধুর সেই উক্তি স্বরণ করার অনুরোধ করছি। আমি আশা করি আমাদের সরকারী পদে আমরা যারা মন্ত্রী আছি, আমাদের সকলের মনে রাখা উচিত। যারা নেতারা আছেন ভাসন না  দিয়ে কাজের দিকে মনযোগ দিন। বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে আমাদের শিক্ষা গ্রহন করতে হবে”

“সময়টা ভালো নয়। আমি আমাদের নেতৃবৃন্ধের কাছে, আমার সহকর্মীদের কাছে বিনীত অনুরোধ করবো যার যার সীমানা পেরিয়ে  দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য দিবেন না। সরকারকে বিব্রত করে এমন বক্তব্য কেউ দিবেন না। দল সরকার বিব্রত হয় এমন কোন কথা দয়া করে কেউ বলবেন না। হোমওয়ার্ক করে কথা বলবেন, পলিসির ব্যপারে নেত্রীর সঙ্গে কথা বলে কথা বলবেন, ফ্রিস্টাইল কথা বলা যাবে না।” 

পোষ্টার ব্যনার ফেসটুনে ছবি দিয়ে মনোনয়ন পাওয়া যাবে না বলে দলীয় নেতাদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, “বঙ্গবন্ধুর ছবির পাশে নিজের ছবি দিয়ে আত্মপ্রচার বন্ধ করতে হবে। এই ছবি প্রদর্শনের প্রতিযোগিতা বন্ধ করুন। বঙ্গবন্ধুকে ব্যবহার করে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে ব্যবহার করে আত্মপ্রচারে যারা নিমগ্ন তাদের রাজনীতির কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন আছে। 

“প্লিজ এটা দেখবেন। একজন এমপি তার বাড়ি ঢাকা থেকে অনেক দুরের একটি দ্বীপে, তিনিও ঢাকায় বঙ্গবন্ধর পাশে ছবি দিয়ে পোষ্টার বিলবোর্ড করেছেন। কেন? যারা বাইরে তারা এখানে ছবি দিচ্ছেন? এটা কি তাদের নির্বাচনী এলাকা। প্লিজ এইসব প্রাকটিস বন্ধ করুন। ইলেকশন সামনে তো নেতারা এই পথে আসে যায় দেখবেন। এইসব বন্ধ করুন।” 

“এইসব ছবি প্রদর্শন করে নমিনেশন পাওয়া যাবে না, নমিনেশন পাওয়া যাবে জনগনের সেবা করে জনগনের মনজয় করে নিজের নাম্বার যতপ্লাস হবে। এইসব করে শেখ হাসিনার কাছে নমিনেশন পাওয়া যাবে না। এটা আমি পরিস্কার ভাবে বলে দিতে চাই।”

অতি দ্রুত দেশেরে রাজনৈতিক চিত্র বদল হবে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, “কিভাবে বদল হবে?কেন বদল হবে? কি কারণে বদল হবে? মওদুদ সাহেবের কি ম্যাজিক আছে, যে ম্যাজিক দিয়ে রাজনীতি বদল করবেন। নির্বাচনে দেশের জনগণের রায়ের মাধ্যমে সরকার বদল হতে পারে। এ ছাড়া অন্যকোন উপায়ে বদল করার যে খোয়াব দেখছেন, তা্ অচিরেই কার্পুরের মতো হাওয়ায় মিলিয়ে যাবেন।”

তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগ সরকারের সময় শেষ। কি করছেন আবার? রাতের অন্ধকারে কি গোপন বৈঠক করলেন? কাদের সঙ্গে পরামর্শ করলেন? সরকার কে বদলাবে? জনগণ। জনগণ কি আপনাদের চায়? নয়বছরে জনগণ আপনাদের ডাকে সাড়া দেয় নাই, তারপরও বুঝেন নাই। আজকে বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির দিন শেষ। আর সুযোগ নাই। দেশের জনগণকে ধোকা দিয়ে বোকা বানানোর সুযোগ নাই আর।”

ওবায়দুল কাদের বলেন, “সকল আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে। এখন দেখছি নালিশ আর নালিশ। আবার গোপন বৈঠক। আমরা জানি কোথায় কারা কারা বৈঠক করছেন। টেমস নদীর পাড়ে কখন কার সঙ্গে বৈঠক হচ্ছে। ব্যাংকক, দুবাইতে বসে কারা কোন গডফাদারের সঙ্গে বৈঠক করছেন। দেশেও রাতের অন্ধকারে বসে কোন বৈঠক হচ্ছে সব আমাদের নলেজে আছে । সময়মতো ধৈয্য ধরে আছি। মনিটর করছি আরও খোঁজ খবর নিচ্ছি। সময়মতো ব্যবস্থা নিবো।”

Ads
Ads