কাপাসিয়ায় আমন ধানে রোগে আক্রমণ

  • ২১-Oct-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: আসাদুল্লাহ মাসুম, কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি ::

ধান পাকার মুহূর্তে কাপাসিয়া উপজেলার বিভিন্ন ধান খেতে অজানা রোগের আক্রমণ দেখা দিয়েছে। ফসল ঘরে তোলার এই সময়ে কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পড়ছেন। ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের পরামর্শ ও নির্দেশনা চেয়েছেন কৃষকরা। আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিলেও  পোকার আক্রমণে কৃষক আক্রান্ত জমিগুলোতে বিভিন্ন ব্রান্ডের কীটনাশক প্রয়োগ করেও তেমন কোন সুফল পাচ্ছেন না। অনেক জমিতে ধানগাছগুলো বিবর্ণ হয়ে পড়েছে।

কাপাসিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আশীষ কুমার কর বলেন, কাপাসিয়া উপজেলায় চলতি আমন মৌসুমে ধানচাষ হয়েছে ১১ হাজার ১৭৬ হেক্টর জমিতে। কোনো কোনো জমিতে ধান পাকতেও শুরু করেছে। এ অবস্থায় ধানখেতে মাজরা পোকার আক্রমণ ও পচন  দেখা দিলে আমাদের কাছে আসলে কৃষকের কথা শুনে কীটনাশক ব্যবহারের পরামর্শ দিব।

সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মাঠভর্তি শুধু ধান আর ধান। তবে সামান্য কিছু বাদে অধিকাংশ খেতের ধানের পাতা লাল হয়ে শুকিয়ে শীষ চিটা হয়ে গেছে। ধানের গাছ পছেগেছে।

টোক ইউনিয়নের পাঁচুয়া গ্রামের ধানচাষি আফতাব উদ্দিন বলেন, এবার ৯০ শতাংশ জমিতে ধান চাষ করেছি। ধান ফলানোর জন্য নগদ অর্থ ও শ্রম সবই শেষ করেছি। এখন ফসল ঘরে তুলব। ধানের পাতা লাল হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে হঠাৎ করেই ধানখেতে মাজরার আক্রমণ দেখা যাচ্ছে। কীটনাশক ছিটিয়েও লাভ হচ্ছে না।’ এতে করে আমর ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। আমরা কৃষি অফিস থেকে কোন পরামর্শ পাচ্ছি না। কৃষি অফিসের কেউ আমাদের সমস্যা দেখে না।

কৃষক মান্নান জানান, আমাদের ধানের পাতা সাদা হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে। কৃষি কর্মকর্তাার কাছে গেলে ঔষধের নাম বলে দেয় কিন্তু কোন কাজে আসে না। তারা মাঠে এসে দেখে না। 

কৃষক শফিকুল ইসলাম জানান, এবার আমাদের চাহিদা অনুযায়ী ফসল পাবনা রোগের কারণে। প্রতি ইউনিয়নে কৃষি উপসহকারী রয়েছে যারা মাঠে এসে কৃষকের কথা শুনে ঔষধ দেওয়ার কথা কিন্তু আমাদের এলাকায় আসে না।


উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোঃ সহিদুল ইসলাম জানান, কৃষকদের কীটনাশক ব্যবহারের পরামর্শ নিয়ে উপসহকারী কৃষি অফিসাররা স্ব-স্ব ব্লকে রয়েছেন তাদের কাছে গেলে তাঁরা কৃষকদের বিভিন্ন কলাকৌশল পরামর্শ দিবেন।  


কাপাসিয়া, গাজীপুর।

Ads
Ads