বিএনপি নেতাদের একাউন্টে আবারো সন্দেহজনক লেনদেন

  • ২৮-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

রাজনীতির মাঠে ধরাশায়ী বিএনপি ১৭টি নতুন অ্যাকাউন্ট খুলে তাতে অর্থসংস্থান করছে বলে জানা গেছে। অ্যাকাউন্টগুলোতে প্রতিদিনই জমা পড়ছে বড় অংকের টাকা। কে, কীভাবে এবং কী উদ্দেশ্যে টাকাগুলো অ্যাকাউন্টে জমা করছে সে সম্পর্কে ব্যাংক কর্মকর্তারা কোনো তথ্য দিতে না পারলেও এখন পর্যন্ত ওই অ্যাকাউন্টগুলোতে মোট ৩৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা জমা হয়েছে এবং অ্যাকাউন্টগুলোর প্রত্যেকটি খোলা হয়েছে ১ থেকে ১৩ আগস্টের মধ্যে।

যেসব ব্যাংকগুলোতে অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে সেগুলো হলো- স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক (ঢাকা), ন্যাশনাল ব্যাংক (ঢাকা), এইচএসবিসি (ঢাকা), এক্সিম ব্যাংক (ঢাকা), স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক (রাজশাহী), ন্যাশনাল ব্যাংক (রাজশাহী) স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক (চট্টগ্রাম), স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক (চট্টগ্রাম), স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক (সিলেট), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (সিলেট), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (রংপুর), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (খুলনা), ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক (বরিশাল), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (ময়মনসিংহ), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (রংপুর)।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, পহেলা আগস্ট থেকে ১৩ আগস্টের মধ্যে অর্থাৎ ১৩ দিনে উক্ত ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলোতে ৩৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা জমা হয়। দিন যতই গড়াচ্ছে টাকার পরিমাণ ততই বাড়ছে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষের হিসেবে অনুযায়ী, ঢাকায় স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, এইচএসবিসি, এক্সিম ব্যাংকে মোট ৬টি অ্যাকাউন্টে মোট ১৩ কোটি ১১ লাখ টাকা জমা হয়েছে। স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক রাজশাহীর ২টি অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ৩ কোটি ৬ লাখ টাকা। স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক চট্টগ্রাম শাখায় জমা হয়েছে ৫ কোটি টাকা। ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড সিলেটের অ্যাকাউন্টে জমা পড়েছে ৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা। ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (খুলনা), ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক (বরিশাল), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (ময়মনসিংহ), ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (রংপুর) মোট ৪টি অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ৬ কোটি ১১ লাখ টাকা।

এদিকে তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, এই অর্থ জমা হচ্ছে দেশের প্রতিটি বিভাগস্থ বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে। অন্যদিকে এই অ্যাকাউন্টগুলো যাদের নামে খোলা হয়েছে তারা প্রত্যেকেই বিএনপির জাতীয় ও বিভাগীয় পর্যায়ের নেতা। বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গোচরে আসায় গভীরভাবে অনুসন্ধানে কাজ চলছে। অচিরেই এ সংক্রান্ত তথ্য বিশদভাবে জনসম্মুখে তুলে ধরা হবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, তারেক রহমানের নির্দেশেই এই ধরণের টাকা জমা করা হচ্ছে।

Ads
Ads