চট্টগ্রামে পাহাড় ও দেয়াল ধসে মা-মেয়েসহ নিহত ৪

  • ১৪-Oct-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ঘূর্ণিঝড়ের তিতলির প্রভাবে ভারী বর্ষণের পর চট্টগ্রামের দুই জায়গায় পাহাড় ও দেয়াল ধসে চারজনের মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (১৪ অক্টোবর) রাত ১টার দিকে নগরের পাঁচলাইশ থানার রহমান নগর এলাকায় দেয়াল ধসে নুরে আলম নান্টু (৩৫) নামে একজন নিহত হন। তিনি গাইবান্ধার লাল মিয়ার সন্তান। আর রাত আড়াইটার দিকে নগরের ৯নং ওয়ার্ডের ফিরোজশাহ কলোনির ১ নম্বর ঝিল এলাকায় পাহাড় ধসের পর পৌনে ৫টার দিকে ১ জন এবং ভোরে ২ জন নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন- নুরজাহান (৪৫), তার আড়াই বছরের মেয়ে ফয়জুন্নেসা এবং নুরজাহানের মা বিবি জোহরা (৬৫)। তাদের বাড়ি লক্ষীপুর জেলায়।

পাঁচলাইশে দুর্ঘটনার বিষয়ে বায়েজিদ ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার এনামুল হক জানান, টানা ভারী বর্ষণে পাহাড়ের মাটি নরম হওয়ায় বড় একটি গাছ শিকড় ভেঙে নিচে পড়ে যায়। এতে পাহাড়ের পাদদেশে থাকা কয়েকটি কাঁচা-পাকা বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ধসে পড়ে দেয়াল।

চমেক পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) শীলব্রত বড়ুয়া জানান, এ ঘটনায় গুরুতর আহত একজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নেওয়ার পর নুরে আলম নান্টু মারা যান।

ফিরোজশাহ কলোনিতে পাহাড় ধসের বিষয়ে ঘটনাস্থলে থাকা আকবরশাহ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক লুৎফুর রহমান জানান, ভারী বর্ষণে পাহাড়ের মাটি সরে পাদদেশে থাকা দুইটি টিনশেড কাঁচাঘরের ওপর পড়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। পুলিশ-ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে। এলাকার লোকজনকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

চান্দগাঁও সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফোরকান এলাহি অনুপম জানান, রহমান নগর এলাকায় নিহত নান্টুর মরদেহ চমেক হাসপাতাল থেকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। অন্যদিকে ফিরোজ শাহ এলাকায় নিহত ৩ জনের মরদেহ ঘটনাস্থল থেকেই তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তাদের প্রত্যেককে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

/ই

Ads
Ads