যে গোপন কারণে বিএনপি ছাড়ছেন মওদুদ!

  • ১৫-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

ভোরের পাতা ডেস্ক

দ্রুত রাজনীতিতে পরিবর্তন ঘটবে বলে রাজনীতির বাতাসে গুঞ্জন ছড়িয়ে আবারও ডিগবাজী দিয়ে দল পাল্টানোর অভাস দিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ। সূত্র বলছে, দীর্ঘ দশ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকায় কোনো রকম রাজনৈতিক আয়-উপার্জন করতে না পারার ক্ষোভ এবং আইন ব্যবসায় সুবিধা করতে না পারার কারণে বিএনপি ছেড়ে ভিন্ন একটি রাজনৈতিক দলে যোগদান করার গোপন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মওদুদ আহমদ।
সূত্র বলছে, রাজনীতির মাঠে ডিগবাজীর জনক হিসেবে বেশ সুপরিচিত মওদুদ আহমদ। স্বৈরশাসক এরশাদের মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন তিনি। এর পর থেকে বিভিন্ন সময়ে সুযোগ-সুবিধা আদায় করার নামে একাধিক রাজনৈতিক দল পরিবর্তন করে দেশবাসীকে চমক দেখিয়েছেন মওদুদ। রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ব্যবহার করে আইন ব্যবসায় প্রভাব বিস্তার করে দামি দামি মামলা হাতিয়ে নেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে। মওদুদ বিশিষ্ট মদ্যপায়ী হিসেবে রাজনীতির অঙ্গনে পরিচিত। যেকোন পার্টি, অনুষ্ঠানে গেলে খাবারের পূর্বেই মদের বিষয়ে খোঁজ নেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। সর্বশেষ ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে মওদুদ আহমদ আইনমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এই সময়ে টাকার বিনিময়ে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী, রাষ্ট্রবিরোধী জঙ্গিদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার মতো গুরুতর অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। সর্বশেষ দীর্ঘদিন ধরে জোরপূর্বক দখলে রাখা বাড়ি হারিয়েছেন তিনি। আইন ব্যবসায় নেই আগের মতো আর প্রভাব। টাকা নিয়ে মক্কেলদের দিনের পর দিন ঘুরানো তার পুরনো অভ্যাস।

এছাড়া দলীয় কমিটি দেওয়ার নামে মির্জা ফখরুল, মির্জা আব্বাসরা দু’হাতে পয়সা ইনকাম করলেও মওদুদ আহমদের হাতে এক সিকিও পড়ে না। দলে তার মতামতের কোন দাম নেই। দলীয় কোন অনুষ্ঠানে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে দাওয়াত দেওয়া হয় না। বরং নিজে আগ বাড়িয়ে তিনি সব অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার চেষ্টা করেন। যেটি তার জন্য এক ধরণের অপমান। তারেক রহমান তাকে সহ্য করতে পারেন না। মির্জা ফখরুল, রিজভী আহমেদ ইতোমধ্যে তাকে পার্টি অফিসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছেন। এলিটভাব নিয়ে রাজনীতি হয় না সেটি তাকে ভাল করেই বুঝিয়ে দিয়েছেন মির্জা ফখরুলরা। তাই সব মিলিয়ে বিএনপির জন্য অপমানিত হতে চান না মওদুদ আহমদ। সামনে আবার জাতীয় নির্বাচন। নির্বাচনের আগে ডিগবাজী দিলে ভালো দাম পাওয়া যায়। এছাড়া তিনি যেহেতেু সাবেক মন্ত্রী, তাই ভাল দামেই কোন দল তাকে ভিড়িয়ে নিতে পারে বলে আশাবাদী মওদুদ আহমদ।

গোপন সূত্রে জানা গেছে, মূলত তৃণমূল বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, ভালো দাম পেলে কোরবানী ঈদের আগেই বিএনপি ছেড়ে নাজমুল হুদার হাত ধরতে আগ্রহী মওদুদ আহমদ। কারণ, ইতোমধ্যে নাজমুল হুদা আওয়ামী লীগের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চান।

এদিকে মওদুদ আহমদের দলত্যাগের বিষয়ে আগাম আভাস পেয়ে তার কড়া সমালোচনা করেছেন রিজভী আহমেদ। মওদুদকে গুটিবাজ, পল্টিবাজ এবং ডিগবাজীর জনক হিসেবে তিরস্কার করেছেন। মওদুদ আহমদকে শায়েস্তা করতে ইতোমধ্যে যুবদলের এক নেতাকে ৫০ হাজার টাকাও দিয়েছেন রিজভী বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

Ads
Ads