বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আজ থেকে আরও গভীর হলো: মোদি

  • ১০-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

'বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আজ থেকে আরও গভীর হয়েছে' বললেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন মোদি।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জি বাংলাদেশের বিকাশের জন্য মহান লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেন। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ বানাবেন, আর ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্র বানাবেন। তার লক্ষ্য পূরণে সহযোগিতা করা আমাদের জন্য গর্বের বিষয়।  আমার পুরো বিশ্বাস, আমরা যত আমাদের সম্পর্ক মজবুত করব, ততই উন্নতির আকাশ ছুঁতে পারব।

অনুষ্ঠানে দুই প্রধানমন্ত্রী তাদের সরকারের আমলে অমীসাংসিত সমস্যাগুলোর সমাধানের অগ্রগতির কথা তুলে ধরেন। ভবিষ্যতে আরও কাছাকাছি আসার ইচ্ছার কথাও জানান। বলেন, দুই দেশ একসঙ্গে এগিয়ে চলবে সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের পানে।

মোদি তার বক্তব্য রাখেন হিন্দিতে। তবে বক্তব্যের শুরু এবং শেষে তিনি কথা বলেন বাংলাতেই।

আজ উদ্বোধন করা প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজ থেকে আমরা আরও কাছে এলাম, আমাদের সম্পর্ক আরও গভীর হলো। ধন্যবাদ।

বক্তব্যের শুরুতেও বাংলায় তিনি অনুষ্ঠানের কথা তুলে ধরে বলেন, এর সাথে যুক্ত সকলকে, বিশেষভাবে আমার বাংলাদেশের ভাই ও বোনেরা নমস্কার।

মোদি বলেন, আমি আগেও কয়েকবার বলেছি, প্রতিবেশী দেশের লিডারের সাথে প্রতিবেশীর মতোই সম্পর্ক হওয়া উচিত। যখন ইচ্ছা করবে কথা বলব, যখন ইচ্ছা করবে দেখা করব। এইসব প্রটোকলের বন্ধনে থাকা উচিত না। আর এই প্রতিবেশীর মতো থাকার বিষয়টা আমার সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে পরিষ্কারভাবে বুঝা যায়।

মোদি আরও বলেন, এটা আমার চতুর্থ ভিডিও কনফারেন্স। নিকট ভবিষ্যতে আরো একটি ভিডিও কনফারেন্স হবে। এই ভিডিও কনফারেন্সের সবচেয়ে ভালো দিক হলো, কোনো ধরনের ভিআইপি ভিজিট ছাড়াই হয়ে থাকে। আমরা এখন পাওয়ার কানেকটিভিটি ও রেলওয়ের কানেকটিভিটি শুরু করছি।

আজকের অনুষ্ঠানের কথা উল্লেখ করে মোদি বলেন, এই প্রজেক্ট পুরো হওয়ার আগেই ১.১৬ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ ভারতে থেকে বাংলাদেশে সঞ্চালন করা হচ্ছে। মেগাওয়াট থেকে গিগাওয়াটের এই কোয়ান্টাম জাম্প বাংলাদেশের সাথে আমাদের সোনালী অধ্যায়ের প্রতীক।

মোদি বলেন, আমাদের কানেকটিভিটি লাগাতার বাড়ছে। আখাউড়া-আগরতলা রেলওয়ে কানেকটিভিটি শুরু হলে তা হবে আরেকটি সাফল্য।

উল্লেখ্য, নতুন ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের মধ্যে ৩০০ মেগাওয়াট আসবে ভারতের সরকারি খাত ‘ন্যাশনাল থার্মাল পাওয়ার প্লান্ট’ থেকে। ২০০ মেগাওয়াট আসবে সে দেশের বেসরকারি খাত ‘পাওয়ার ট্রেডিং কর্পোরেশন’ থেকে।

বর্তমানে ভারত থেকে আমদানি করা বিদ্যুতের পরিমাণ ৬৬০ মেগাওয়াটের মধ্যে ৫০০ মেগাওয়াট পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর থেকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় যুক্ত হয়েছে। এ ছাড়া ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য থেকে কুমিল্লায় বিদ্যুৎ গ্রিডে যুক্ত হয়েছে।

/ই

Ads
Ads