ছাত্রদলের সম্মেলনের ওপর আদালতের স্থগিতাদেশ: বিএনপিকে শোকজ

  • ১২-Sep-২০১৯ ০৭:৩০ অপরাহ্ন
Ads

::উৎপল দাস:: 

সন্ত্রাসী সংগঠন হিসাবে বিশ্বে কুখ্যাতি অর্জন করা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র অঙ্গ সংগঠন ছাত্রদলের আগামী কেন্দ্রীয় সম্মেলন আয়োজনে অস্থায়ীভাবে নিষেধাজ্ঞা (স্থগিতাদেশ) জারি করেছেন মহামান্য আদালত। বৃহস্পতিবার ঢাকা জজ কোর্ট থেকে এই স্থগিতাদেশ দেয়ার পাশাপাশি ৭ দিনের মধ্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ ১০ জন কেন্দ্রীয় নেতাকে কারণ দর্শানোরও নোটিশ দেয়া হয়েছে। 

আদালত সূত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার কথা ভেবে এবং ছাত্রদলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এই সম্মেলনকে ঘিরে রক্তক্ষয়ী সংঘাত ঘটতে পারে। এছাড়া এই সম্মেলন ঘিরে নিজেদের মধ্যে মারামারি থেকে শুরু করে দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রও নতুন করে দানা বাঁধতে পারে এই আশংকায় এমন স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে। 

এদিকে, ছাত্রদলের কাউকে বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় অফিসে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ও যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ মোট ১০ জন কেন্দ্রীয় নেতাকে আগামী ৭ দিনের মধ্যে ছাত্রদলের অভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধান না করে সম্মলেন দেয়ার সুযোগ নেই কেন এমন প্রশ্নের জবাব দিতে বলা হয়েছে। 

এদিকে, ঢাকা জর্জকোর্টের পেসকার বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতের এ সংক্রান্ত রায় নিয়ে নয়া পল্টনের বিএনপি অফিসে গেলেও নথিগুলো বিএনপির কোনো দায়িত্বশীল নেতা গ্রহণ করতে রাজি হচ্ছেন না বলে জানা গেছে। 

এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ছাত্রদলের ষষ্ঠ জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে বিতরণ করা হয়েছে কাউন্সিলর কার্ড। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দ্বিতীয় তলায় সংশ্লিষ্ট নেতারা ছবিযুক্ত ভোটার কার্ড বিতরণ করেন। উপস্থিত রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় ও ছাত্রদলের কাউন্সিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, কামরুজ্জামান রতন, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, হাবিবুর রশিদ হাবিব, রাজীব আহসান, আকরামুল হাসান প্রমুখ।

তবে আদালতের এই নিষেধাজ্ঞার পর অনেক প্রার্থীকে মন খারাপ অবস্থায় দেখা গেছে। 

Ads
Ads