বিদ্যুৎ খাতে ২০ হাজার মেগাওয়াটের মাইলফলক স্পর্শে সন্ধ্যায় আলোক উৎসব

  • ৭-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

দেশের বিদ্যুৎ খাত ২০ হাজার মেগাওয়াটের মাইলফলক স্পর্শ করেছে। এই মহেন্দ্রক্ষণকে স্মরণীয় করে রাখতে আজ শুক্রবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর তিনটি পয়েন্টে বর্ণিল আলোক উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

হাতিরঝিলের পুলিশ প্লাজায় সন্ধ্যা ৭টায় এই আলোক উৎসবের উদ্বোধন করবেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। হাতিরঝিল ছাড়াও সদরঘাট ও বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে এই আলোক উৎসব হবে। আতশবাজি পুড়িয়ে উদযাপন করা হবে এই আলোক উৎসব।

২০০৯ সালে তীব্র বিদ্যুৎ সংকটের মধ্যে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। সরকারের টানা দুই মেয়াদের শাসনামলে দেশে বিদ্যুৎ পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নতি হয়েছে।

এরই মধ্যে দেশে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সংখ্যা একশটি ছাড়িয়ে হয়েছে ১২৪টি। কয়লাভিত্তিক, গ্যাসভিত্তিক, তেলে চালানো, ডুয়েল ফুয়েল (গ্যাসেও চালানো যায়, তেলেও চালানো যায়) বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাশাপাশি চলছে পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ। সৌরবিদ্যুতের ব্যবহারও ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছে সরকার।

২০২১ সালের মধ্যে ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে শতভাগ মানুষকে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে সরকার।

এরই মধ্যে স্থাপিত সব কেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা বেড়ে হয়েছে ১৭ হাজার ৪৩ মেগাওয়াট। এছাড়া ক্যাপটিভ পাওয়ার প্ল্যান্টগুলো থেকে দুই হাজার ৮০০ মেগাওয়াট এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে প্রায় ২৯০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে। আর দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৯০ শতাংশই এখন বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।

২০১৩ সালের ১২ নভেম্বর ১০ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা অর্জন উদযাপনে হাতিরঝিলে আতশবাজি উৎসবের আয়োজন করে বিদ্যুৎ বিভাগ। তিন বছর পর ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর ১৫ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা অর্জনের উৎসব হয় একই এলাকায়। এবার ২০ হাজার মেগাওয়াটের উৎসব করা হবে রাজধানীর তিনটি জায়গায়। হাতিরঝিল ছাড়াও এবার বসুন্ধরা ও মিরপুরে আতশবাজি পুড়িয়ে এই আলোক উৎসব করা হবে।

বিদ্যুৎসচিব ড. আহমদ কায়কাউস জানান, দেশের ১২৪টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা ১৭ হাজার ৪৩ মেগাওয়াট। এর সঙ্গে ক্যাপটিভ পাওয়ার প্ল্যান্টগুলো থেকে আরও দুই হাজার ৮০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে। নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে প্রায় ২৯০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে। সেই হিসাবে মোট উৎপাদন ক্ষমতা দাড়িয়েছে ২০ হাজার ১৩৩ মেগাওয়াট। এছাড়া আগামী ১০ সেপ্টেম্বর ভারত থেকে আসছে আরও ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের সময় বিদ্যুতের উৎপাদন ক্ষমতা ছিল চার হাজার ৯৪২ মেগাওয়াট যা বর্তমানে ২০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে। মাত্র ১০ বছরে এই অগ্রগতি নিঃসন্দেহে একটি বিরল অর্জন। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহে আলোক উৎসব উদযাপনের মাধ্যমে এটিকে স্মরণীয় করা হবে।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহ-২০১৮। ‘অনির্বাণ আগামী’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত এই সপ্তাহের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিদ্যুৎ সপ্তাহ উপলক্ষে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নেয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি।

/ই

Ads
Ads