২৬তম জাতীয় জুনিয়র বালক-বালিকা কুস্তি প্রতিযোগিতা উদ্বোধন

  • ২৩-Jul-২০১৯ ১০:৪৪ অপরাহ্ন
Ads

কুস্তি খেলায় নতুন প্রাণচাঞ্চল্য আনলেন ড. কাজী এরতেজা হাসান 

:: জহির ভূইয়া ::

কার দ্বারা কখন কোন ইতিহাস রচিত হয় এটা আগাম কেউ বলতে পারে না। এই যেমন বিগত কয়েক মাস আগে ভাবাই যায়নি কুস্তি ফেডারেশনের কার্যক্রম আবার জমজমাট হয়ে উঠবে, প্রায় হারিয়ে যেতে বসা কুস্তি নতুন প্রাণ ফিরে পাবে! একজন মানুষের হাতে যেন জাদুর কাঠি আছে। আর সে মানুষটি তার হাতের জাদুর কাঠির ছোঁয়াতে রাতারাতি কুস্তি খেলাটির প্রাণে এনে দিলেন নতুন চাঞ্চল্য। তিনি হলেন ভোরের পাতা ও দ্যা পিপল’স টাইম-এর সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি। পাশাপাশি তিনি ভোরের পাতা গ্রুপ অব  ইন্ডাস্ট্রিজ, কাজী গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজ, বাজার ২৪, রুপান্তর ডিজাইন ও ডেভলপমেন্ট লিমিটেড এর  চেয়ারপারসন, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বারের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ডেভেলপমেন্ট কমিশনের চেয়ারপারসন এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য ও ধর্মবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য।

পরপর পৃষ্ঠপোষকতা করে দুটি সফল আয়োজনের মধ্যদিয়ে আরডিডিএলের চেয়ারম্যান ড. কাজী এরতেজা হাসান প্রমাণ করেছেন তিনি কতটা ক্রীড়াপ্রেমিক মানুষ। খেলাধুলার প্রতি কতটা ভালোবাসা আর প্রেম থাকলে একজন মানুষ একটি ছোট ফেডারেশনকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারেন? ২৬তম আরডিডিএল জাতীয় জুনিয়র বালক-বালিকা দুই দিনের কুস্তি প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি অনেক কিছু বললেন। স্বপ্ন না দেখতে পারলে যে স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয় না, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে এই মন্ত্র দিয়ে দেশকে উন্নতির শীর্ষে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন সেটাও তিনি জানালেন। 

ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, ময়মনসিংহ, চাপাইনবাবগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, রংপুর, মাদানরীপুর, কিশোরগঞ্জ, নড়াইল, দিনাজপুর ও পঞ্চগড় থেকে আসা ২০০ ছেলে-মেয়ের এই প্রতিযোগিতা নিয়ে আরডিডিএলের চেয়ারম্যানের আগ্রহটাও ছিল চোখে পড়ার মতো। কারণ বিগত বছরগুলোতে প্রায় হারিয়ে যেতে বসা কুস্তি খেলাকে তিনিই তো নতুন করে প্রাণসঞ্চার করেছেন। অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু সম্পর্কে মামা হন ড. কাজী এরতেজা হাসানের। আর কুস্তি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তাবিউর রহমান পালোয়ানের বন্ধু হলেন আশিকুর রহমান মিকু। সেই ‘মামা’ সম্পর্কের সূত্র ধরেই আজ কুস্তি ফেডারেশন যেন নতুন উদ্যোম পেয়েছে। সেই উদ্যোমের ধারাবাহিকতার প্রমাণ ২৬তম জাতীয় জুনিয়র বালক-বালিকা কুস্তি প্রতিযোগিতা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটির প্রধান অতিথি হিসেবে গতকাল হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ সাহেদ রেজা উদ্বোধন ঘোষণা করলেন। পাশেই ছিলেন আরডিডিএলের চেয়ারম্যান ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সৈয়দ সাহেদ রেজা বলেন, ‘আমি অবাক হয়েছি, এত গরমের মধ্যেই দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এত ছেলে-মেয়েরা ঢাকায় এসেছে খেলায় অংশ নিতে। আমি আনন্দিত, আমাদের কুস্তির বড়রা সাফের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। তোমরা আগামী দিনের তারকা। আমি আশা করব, এখান থেকে ফিরে গিয়ে খেলার চর্চা ধরে রাখবে। এছাড়া আমি ধন্যবাদ দিতে চাই আরডিডিএলের চেয়ারম্যানকে। তিনি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। আসলে সরকারের পক্ষে একা সব করা সম্ভব নয়। ব্যবসায়ীদেরও খেলায় সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে।’  

এরপর আরডিডিএলের চেয়ারম্যান ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি, তার বক্তব্যে বলেন, ‘মামা সম্পর্কের ভিত্তিতেই আজ আমি কুস্তি ফেডারেশনের প্রতিযোগিতায় আসতে পেরেছি। আসলে আমি ক্রীড়াপ্রেমিক নতুন নই। ২০১৬ সালে রংপুর রাইডার্সের একক মালিক ছিলাম। ক্রিকেটে যে আগ্রহ আর ইনভেস্টমমেন্ট হয়, আর ক্রিকেটে যে মাল্টিকাভারেজ হয়, সেটার ৫ ভাগও যদি কুস্তিতে দেওয়া হয়, তাহলে এদেশের কুস্তি খেলাটি বিশ্ব দরবারে শীর্ষ লেভেলে চলে যাওয়া কোনো স্বপ্ন নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান, এদেশের ছেলে-মেয়েরা খেলাধুলায় এগিয়ে আসুক। তাতে দেশ উন্নতির পথে এগিয়ে চলবে। তিনি সবসময় খেলায় সহযোগিতা করেন। এর আগে কুস্তির সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দিয়েছিলাম, ১ বছর আমি কুস্তির সঙ্গে আছি। আজ আমি ঘোষণা দিচ্ছি, ১ বছর কুস্তির উন্নতির জন্য যা যা করা দরকার, তা আমার কোম্পানির পক্ষ থেকে যতটা সম্ভব করব।’

মঙ্গলবার উদ্বোধনী দিনে আরও উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তাবিউর রহমান পালোয়ান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেসবাহ উদ্দিন আজাদ, ভলিবল মহিলা কমিটির চেয়ারম্যান সৈয়দা জান্নাত আরা (এসপি, সিআইডি) এবং আর অ্যান্ড এস করপোরেশনের সিইও মো. আসিফ হাসান।
 

Ads
Ads